পাইকগাছায় মামলায় পরাজিত হয়ে কৃত্রিম বিরোধ সৃষ্টি করে জমি দখলের পাঁয়তারার অভিযোগ

0
203

প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা

নিজস্ব প্রতিবেদক,পাইকগাছা: পাইকগাছায় জায়গা-জমির মামলায় হেরে প্রতিপক্ষরা কৃত্রিম বিরোধ সৃষ্টির অভিযোগ। আমিরপুরের মৃত পঞ্চরাম মন্ডলের ছেলে ভবতোষ দিংদের চলতি আমন মৌসুমে চাষাবাদে বাঁধার সৃষ্টির জন্য প্রতিপক্ষরা বহিরাগতদের সংগঠিত করে ভয়-ভীতি, হুমকি দিচ্ছেন বলে অভিযোগ করেছেন।
স্থানীয় বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার গড়ইখালী ইউপির নুরপুর-আমিরপুর মৌজায় বিভিন্ন দাগ খতিয়ানে সম্পত্তি নিয়ে স্থানীয় মৃত পঞ্চরাম মন্ডলের ছেলে ভবতোষ দিং ও ক্রয় সূত্রে করুণা কান্ত মন্ডলের ছেলে রামকৃষ্ণ মন্ডল দিংদের মধ্যে বিরোধ চলে আসছে। সর্বশেষ রামকৃষ্ণ দিংরা একাধিক মামলায় পরাজিত হলে প্রকৃত ওয়ারেশগণ ভবতোষ দিংরা সম্পত্তির দখল বুঝে নিলে উভয়ের মধ্যে বিরোধ দেখা দেয়। এ বিষয়ে ভবতোষ মন্ডল জানান, চলতি আমন মৌসুমে চাষাবাদে বাঁধা সৃষ্টি করার জন্য রামকৃষ্ণ দিংরা বহিরাগত সন্ত্রাসীদের নিয়ে তাদের উপর ভয়-ভীতি প্রদর্শন করে তাদের দখলীয় সম্প্রতিতে প্রবেশের অপতৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে। নুরপুর-আমিরপুর মৌজায় সি,এস ১১২ নং খতিয়ানে লিখিত ৪৬.৬১ একর জমি। যা আর.এস ১৬৮ ও ১৬৯ নং খতিয়ানে যা পরবর্তীতে এস,এ ৫১১, ১৬৪, ২৫৮, ৩৫৭, ৪৫৮, ৪৯৮ ও ৪৮০ নং খতিয়ানে রেকর্ডের মধ্য হতে ১৭.৪৭৫ একর জমি বাবদ কাঞ্চন বালার ওয়ারেশ ও পৈত্রিক ওয়ারেশ মূলে ভবতোষ দিং ক্রয় সূত্রে দাবীদার। প্রতিপক্ষ রামকৃষ্ণ মন্ডল দিংদের বিরুদ্ধে খুলনার সাব-জজ ৪র্থ আদালতে বাটোয়ারা বাবদ দেওয়ানী ২৩২/৯৪ মামলা করে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে জয়লাভ করেন। পরাজিত হয়ে রামকৃষ্ণ দিং এ রায়-ডিক্রির বিরুদ্ধে খুলনার অতিরিক্ত জেলা জজ ৪র্থ আদালতে দেওয়ানী আপীল ১৯১/০১ নং মামলা করেন। যা শুনানী অন্তে নামঞ্জর হয়ে বলে জানা গেছে। অতঃপর রামকৃষ্ণ দিং উক্ত দেওয়ানীর বিরুদ্ধে মহামান্য সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগে সিভিল রিভিউশন নং- ৩৫৬৬/১৬ মামলা দায়ে করে অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার আবেদন করলে দো-তরফা শুনানী অন্তে নালিশী জমির দখলের উপর স্থিতিবস্থা বজায় রাখার আদেশ দেন। এদিকে গত আমন মৌসুমে নালিশী জমির উৎপাদিত ধান্য কর্তনের সময় শান্তি ভঙ্গের আশংকায় ভবতোষের ভাই নিখিল মন্ডল পাইকগাছা নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে এম.আর ৩০৩/১৬ নং মামলা করলে শুনানী অন্তে আদালত দো-তরফা রিসিভার (তত্ত্বাবধায়ক) নিয়োগ করে। জানা গেছে, নিযুক্ত রিসিভার উৎপাদিত ধান্য বিক্রি করে সংশ্লিষ্ট আদালতে জমা দেন। বর্তমানে এ মামলাটি জেলা দায়রা জজ, খুলনা এ ক্রিমিনাল রিভিশন ১৪৬/১৭ নং মামলা হিসেবে বিচারাধীন রয়েছে। নিখিল মন্ডল অভিযোগ করেছেন, মামলায় পরাজিত হয়ে রামকৃষ্ণ, বিশ্বজিত, কৃষ্ণপদ গংরা এ সম্পত্তি থেকে তাদের উচ্ছেদের জন্য বহিরাগতদের সংগঠিত করে তাদের ভয়-ভীতি দেখাচ্ছেন এ কারণে তারা সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here