পাইকগাছায় লবনাক্ত জমিতে তরমুজ চাষ নতুন সম্ভাবনা দুয়ার খুলছে, বাড়ছে আবাদ ও উৎপাদন

0
726

উত্তম চক্রবর্ত্তী : পাইকগাছায় লবনাক্ত জমিতে তরমুজের আবাদ নতুন সম্ভাবনার দুয়ার খুলেছে। চলতি মৌসুমে তরমুজের বাম্পার ফলন হয়েছে। হেক্টর প্রতি উৎপাদন হয়েছে প্রায় ৩৭ মেট্রিক টন। এ বছর এ উপজেলাতে ২০০ হেক্টর জমিতে আবাদ হয়েছে; যা গত মৌসুমের তুলনায় দ্বিগুণ বলে মনে করছে সংশ্লিষ্টরা ।
খুলনা জেলার পাইকগাছা উপজেলার অধিকাংশ এলাকায় লবণ পানির চিংড়ি চাষ হওয়ায় এলাকার বেশিরভাগ কৃষি জমি লবণাক্ত হয়ে পড়েছে। মাত্রাতিরিক্ত লবণাক্ততার কারণে ব্যাহত হয় ধান-পাটসহ প্রচলিত ফসলের উৎপাদন। তবে লবণাক্ত জমিতে তরমুজ চাষ এলাকায় নতুন সম্ভাবনা সৃষ্টি করেছে।
কৃষি বিভাগের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, চলতি মৌসুমে পাইকগাছায় ২০০ হেক্টর জমিতে ড্রাগন ও পাকিজা জাতের তরমুজের আবাদ হয়েছে। তবে এই আবাদ মূলত দেলুটি ও গড়ইখালীতে সীমাবদ্ধ। দেলুটিতে ১৭৫ এবং গড়ইখালীতে ২৫ হেক্টর জমিতে তরমুজের আবাদ করা হয়; যা গত মৌসুমের তুলনায় দ্বিগুণ। চাষীরা বলছেন, এবার তরমুজের বাম্পার ফলন হয়েছে। এ বছর হেক্টর প্রতি উৎপাদন হয়েছে প্রায় ৪০ মেট্রিক টন।
সৈয়দখালী গ্রমের কৃষক শেখ মোহাম্মদ আলী জানান, চলতি মৌসুমে তিনি ৫০ শতক জমিতে তরমুজের আবাদ করেছেন। বাম্পার ফলন হওয়ায় ৫০ শতক জমিতে উৎপাদিত তরমুজ তিনি প্রায় দেড় লাখ টাকায় বিক্রি করেছেন।
দেলুটি ইউপি চেয়ারম্যান রিপন কুমার মন্ডল জানান, কৃষি বিভাগের সার্বিক তদারকিতে ইউনিয়নের ২২ নম্বর পোল্ডারে এ বছর তরমুজের বাম্পার ফলন হয়েছে। উৎপাদিত তরমুজ বিক্রি করে কৃষকরা বিঘাপ্রতি আয় করছেন ৭০ হাজার টাকা পর্যন্ত। এ বছর ভালো ফলন হওয়ায় লবণাক্ত এলাকায় তরমুজ চাষ নতুন সম্ভাবনা সৃষ্টি করেছে বলে স্থানীয় এ জনপ্রতিনিধি মনে করছেন।
উপজেলা কৃষি অফিসার এএইচএম জাহাঙ্গীর আলম বলছেন, তরমুজ একটি লাভজনক ফসল। বীজ রোপণ থেকে ৬০ দিনের মধ্যে ফল বাজারজাত করা যায়। অন্যান্য ফসলের তুলনায় তরমুজের উৎপাদন খরচ অনেক কম। এছাড়া লবণসহিষ্ণু ও সেচ খরচ কম হওয়ায় তরমুজ চাষে কৃষকরা অধিক লাভবান হন। কৃষি বিভাগের এ কর্মকর্তা আরো জানান, গত মৌসুমের তুলনায় দ্বিগুণ জমিতে চলতি মৌসুমে তরমুজের আবাদ হয়েছে। গত বছর ১০৫ হেক্টর এবং তার আগের বছর মাত্র ৫০ হেক্টর জমিতে তরমুজের আবাদ হয়েছিল। কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে সার্বিক তদারকি ও সহযোগিতা করায় এ বছর হেক্টরপ্রতি প্রায় ৪০ মেট্রিক টন করে তরমুজের উৎপাদন হয়েছে। উৎপাদন ভালো হওয়ায় তরমুজ চাষে আগ্রহ বেড়েছে চাষীদের। ফলে আগামী বছর তরমুজের আবাদ আরো বাড়বে বলে মনে করছেন তিনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here