পাচার রোধে চাই কার্যকর পদক্ষেপ

0
219

সুইস ব্যাংকে এখন বাংলাদেশিদের আমানত সাড়ে ৫ হাজার কোটি টাকা। সুইস ব্যাংকের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, ২০০৭ সালে বাংলাদেশিদের অর্থ ছিল ৮৯৮ কোটি টাকা। সেটি এখন ৬ গুণেরও বেশি, যা সুইস ব্যাংকে রাখা ভারতীয়দের অর্থের কাছাকাছি। ভারত, নেপালসহ বিভিন্ন দেশের মানুষের সুইস ব্যাংকে অর্থ রাখার প্রবণতা তুলনামূলক কমে আসছে। অথচ বাংলাদেশের ক্ষেত্রে তা বেড়েই চলেছে। গত বছরেও এই বৃদ্ধির হার ছিল ২০ শতাংশ।
কেন এমন ঘটছে, কারা এ অর্থ রাখছেন? সেসব ব্যক্তির নাম-ধাম আমাদের জানা নেই। তবে অজানা নয় যে, এই অর্থ অবৈধ পথে পাচার হওয়া। এটি আমদানি-রফতানির ক্ষেত্রে ওভার ইনভয়েসিং বা আন্ডার ইনভয়েসিংয়ের মাধ্যমে পাচার হয়ে থাকতে পারে। যেভাবেই হোক, অর্থ পাচার বাংলাদেশের অর্থনীতির জন্য বড় হুমকি। ওয়াশিংটনভিত্তিক সংস্থা ‘গ্গ্নোবাল ফিন্যান্সিয়াল ইনটিগ্রিটি (জিএফআই)’ অনুযায়ী ২০০৫ থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশ থেকে পাচার হওয়া অর্থের পরিমাণ ৬ লাখ কোটি টাকা। যে টাকায় কানাডায় বাংলাদেশি ধনীদের আবাস ‘বেগমপাড়া’ গড়ে উঠেছে। অনেকে মালয়েশিয়ায় সেকেন্ড হোম বানিয়েছেন। বাংলাদেশ থেকে পাচার হওয়া অর্থ পৃথিবীর নানা দেশে ছড়িয়ে আছে। ধারণা করা যায়, সুইস ব্যাংকে জমা অর্থ এই পাচার হওয়া অর্থেরই অংশ। তবে কেউ কেউ বলছেন, সুইজারল্যান্ডে কর্মরত বাংলাদেশিদের অর্থও এর মধ্যে থাকতে পারে। সেটি থাকলেও তা সামান্য।
যখন প্রবাসী শ্রমিকদের পাঠানো অর্থে দেশে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বাড়ছে, অর্থনীতির চাকা ঘুরছে, তখন এক শ্রেণির লোক ব্যাংক লোপাট করে, দুর্নীতি ও লুটপাট করে অর্থ পাচার করছেন। দেশের অর্থনীতি ধ্বংস করছেন। অর্থ পাচারকারীদের তালিকায় আমলা ও রাজনীতিকরাও আছেন, যারা হঠাৎ ধনী হওয়ার তথ্য গোপন রাখতে বিদেশে অর্থ পাচার করছেন। ব্যবসায়ী, রাজনীতিক, আমলা যারাই অর্থ পাচারের সঙ্গে যুক্ত থাকুন না কেন, তারা দেশের অনিষ্টকারী। তাদের প্রতি সদয় হওয়ার কোনো কারণ নেই। কিন্তু সরকার চোখ বুজে আছে। ভারতসহ বিভিন্ন দেশ সুইস ব্যাংকের কাছ থেকে তথ্য সংগ্রহে তৎপর। সুইজারল্যান্ডের সঙ্গে তথ্য লেনদেনে চুক্তিবদ্ধও হচ্ছে। কিন্তু বাংলাদেশের এমন কোনো উদ্যোগ দেখা যাচ্ছে না। পাচার হওয়া অর্থের খোঁজে বা পাচার রোধে কোনো তৎপরতাই লক্ষ্য করছি না।
আমরা পাচার রোধ ও পাচার হওয়া অর্থ ফিরিয়ে আনতে সরকারের আইনানুগ, কার্যকর পদক্ষেপ আশা করি। সেইসঙ্গে দেশের ব্যাংকগুলোর উন্নয়ন ও দেশে বিনিয়োগের অনুকূল পরিবেশ সৃষ্টিতে যথাযথ পদক্ষেপ নেওয়া জরুরি, যাতে ব্যবসায়ী-শিল্পপতিদের পুঁজি নিয়ে দুশ্চিন্তাগ্রস্ত হতে না হয় এবং বিনিয়োগে উৎসাহী হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here