পাটকেলঘাটায় অবৈধ ভাবে তিন ফসলি জমিতে ইটভাটা নির্মাণ!

0
602

মো. রিপন হোসাইন,পাটকেলঘাটা : পাটকেলঘাটায় সাতক্ষীরা-খুলনা মহাসড়ক সংলগ্ন বকশিয়া মাঠে তিন ফসলি জমি,শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও জনবসতি এলাকার মধ্যে কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়াই ইটভাটা নির্মানের অভিযোগ পাওয়া গেছে। প্রায় ১’শ বিঘা কৃষি জমিতে ইটভাটা নির্মান করায় আশপাশের কৃষিজীবি ও জনবসতি এলাকার দু’শতাধিক ব্যক্তি স্বাক্ষরিত লিখিত আপত্তিপত্র জেলা প্রশাসক,পরিবেশ অধিদপ্তরসহ বিভিন্ন দপ্তরে দাখিল করেছেন। দাখিলের ৬/৭ মাস অতিবাহিত হলেও অদ্যবধি আইনগত কোন ব্যবস্থা না হওয়ায় এলাকাবাসী হতাশ হয়ে পড়েছেন।
প্রাপ্ত অভিযোগের বিবরণ থেকে জানা গেছে, সাতক্ষীরা- খুলনা আঞ্চলিক মহাসড়কের ৪৫তম কিলোমিটার সংলগ্ন তালা উপজেলার বকশিয়া গ্রামে ৩ ফসলি মাঠে কর্তৃপক্ষের পূর্বানুমতি ছাড়াই সাতক্ষীরায় পলাশপোল গ্রামে বসবাসরত মৃত শহিদ মোল্লার পুত্র মোজাম্মেল হক নিজে মোল্ল্যা ব্রিকস্ নামে ইটভাটা নির্মাণ ও পোড়ানোর কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। বছরখানেক ধরে এসব অবৈধকাজ চললেও উপজেলা বা জেলা প্রশাসন নির্বিকার রয়েছেন। পরিবেশ অধিদপ্তর রয়েছে গভীর ঘুমে আচ্ছন্ন। এলাকার কৃষিজীবি মানুষ এ অবৈধ ইটভাটার ব্যপারে লিখিত আপত্তিপত্র গত ৪মে সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক, ৮মে পরিবেশ অধিদপ্তর এবং ১৪মে নির্বাহী প্রকোশলী (সওজ) সাতক্ষীরা বরাবর পৃথকভাবে দাখিল করেও কোন প্রতিকার পায়নি । একমাত্র সওজ কর্তৃপক্ষ ২২মে ভূমি ও বিল্ডিং (দখল উদ্ধার) অধ্যাদেশ ১৯৭০ এর ৫ ধারা মোতাবেক ১৫৯৫ নংস্মারকপত্রে ইটভাটা নির্মানকারীকে ৭ দিনের মধ্যে সড়ক সীমানা ব্যবহার ও নির্মাণকৃত ঘরবাড়ী অপসারনে নির্দেশ দেন। অজ্ঞাত কারনে কোন নির্দেশনাই মানা হয়নি। বরং নির্মাণ কাজ আরো দ্রুত গতিতে চালানো হয়েছে।
তথ্যানুসন্ধানে জানা গেছে, তালা উপজেলার ৪নং কুমিরা ইউ.পি চেয়ারম্যান এর দপ্তর থেকে গত ৩১ জুলাই ১৭০২ নং ক্রমিকে একসনা একটি ট্রেড লাইসেন্স নিয়ে এ অবৈধ কর্মকা- চালানো হচ্ছে। জেলা প্রশাসক,কৃষি অফিস এবং পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র বা অনুমতি তো দুরের কথা এসব দপ্তরে আবেদন পত্র পর্যন্ত জমা দেয়া হয়নি। দেশের খাদ্য উৎপাদনের কৃষি জমিতে কোনভাবে ইটভাটা স্থাপন করা যাবে না। তাছাড়া জনস্বাস্থ্যের ঝুঁকি এবং পরিবেশের ভারসাম্য হারায় সেসব স্থানে ইটভাটা নির্মাণ বা পোড়ানোর কাজ সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ করা হলেও এখানে তার কোনটি মানা হচ্ছে না। নীতিমালা অনুযায়ী এসব অবৈধ কর্মকা- পরিচালনাকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনের বিধান থাকলেও উপজেলা বা জেলা প্রশাসন নীরব দর্শকের ভুমিকায় রয়েছেন। সারা দেশে খাদ্যে ভেজালকারী ও মাদক সেবনকারীদের রোধ করতে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটগণ ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে কারাদন্ডের পাশাপাশি অর্থদন্ড অব্যাহত রেখেছেন। কিন্তু এ অবৈধ ইটভাটা নির্মাণকারীর বিরুদ্ধে কোন আইনগত ব্যবস্থা না নেয়ায় এলকাবাসী ফুঁসে উঠেছে। অনেকে মন্তব্য করে বলেছেন আইন কানুন কি শুধু দুর্বল ব্যক্তিদের জন্য ?
ইটপ্রস্তুত ও ভাটা স্থাপন (নিয়ন্ত্রণ) আইন ২০১৩ অনুযায়ী জেলা প্রশাসনের অনুমতি ছাড়া ভাটা স্থাপন ও পোড়ানোর অপরাধে ১ বছর জেল অথবা ১ লাখ টাকা জরিমানার বিধান রাখা হয়েছে। সাথে সাথে যদি কোন ব্যক্তি ধারা ৮এর উপধারার (১)এর বিধান লঙ্ঘন করে নিষিদ্ধ এলাকায় ইটভাটা স্থাপন করেন তাহলে অনধিক ৫ বছর কারাদন্ড বা অনধিক ৫লাখ টাকা অর্থদন্ডের পাশাপাশি উভয়দন্ডে দন্ডিত হইবে। এছাড়া কৃষি জমি অনাবাদী দেখিয়ে ইটভাটা স্থাপনকারীকে আইনের আওতায় এনে সকল কার্যক্রম বন্ধ রাখার বিধান রয়েছে। সড়ক ,মহাসড়ক,আবাসিক এবং প্রতিবেশ সংকটাপন্ন এলাকার ১কিলোমিটারের মধ্যে ভাটা নির্মানের বিধান না থাকলেও এখানে আইনের তোয়াক্কা না করে নির্মাণ করা হয়েছে। সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, একাধিক অনিয়মের মাঝে নির্মাণ করা ভাটায় গত ২৩ নভেম্বর সকাল ৭টায় ইটভাটা মালিক নিজেই আগুন দিয়ে ইট পোড়ানো কাজের উদ্বোধন করেন। এছাড়া ৫/৬টি এস্কেভেটর মেশিন দ্বারা রাতদিন অব্যাহতভাবে কৃষি জমির উপরিভাগের (টপ সয়েল) লাখ লাখ ঘনফুট মাটি কেটে পাহারসম স্তুপ করে রাখা হচ্ছে। ইট ভাটাটির পার্শ্বেই দ্বীনি শিক্ষার জন্য কুমিরা এবতেদায়ী মাদ্রাসা অবস্থিত। মাদ্রাসাটিতে ২শতাধিক কোমলমতি ছেলেমেয়ে অধ্যয়নরত আছে। ইটভাটার চিমনি দিয়ে নির্গত বিষাক্ত কালো ধোঁয়ায় শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে পড়ার আশংকা দেখা দিয়েছে। এছাড়া ভাটার নির্গত কার্বন মিশ্রিত ধোঁয়ার কারনে এলাকার গাছপালা ও প্রাণীকুল মারাতœক বিপর্যয়ের মুখে পড়েছে। ভাটার পার্শ্বে কৃষি জমির মালিক কুমিরা গ্রামের মোঃ কামরুজ্জামান, আলাউদ্দীন সরদার, সিরাজুল ইসলাম, জগদানন্দকাটি গ্রামের স্বপন দাশ, এনজিও কর্মী রেজাউল করিম, মনোহরপুর গ্রামের রবিউল ইসলাম,কামরুল ইসলামসহ শতাধিক ব্যক্তি ই্টভাটা নির্মানের আপত্তি জানিয়ে জেলা প্রশাসক, পরিবেশ অধিদপ্তর, কৃষি অফিস, সড়ক বিভাগসহ বিভিন্ন দপ্তরে গণদরখাস্ত দাখিল করেও কোন প্রতিকার পাইনি। এব্যাপারে ভূক্তভোগী কৃষিজমির মালিক কামরুজ্জামান,আজগর সরদার, নুরুল ইসলামসহ একাধিক ব্যক্তি বলেন ইটভাটার নির্গত বিষাক্ত কালো ধোঁয়ার কারণে জমির ফসল নষ্ট হচ্ছে। বিভিন্ন ফসলের উপর ভাটার কালো ছাই পড়ে ফসলের উৎপাদন ব্যাহতের আশংকা দেখা দিয়েছে।
সংশ্লিষ্ট ভাটা মালিক আলহাজ্জ্ব মোজাম্মেল হক বলেন এখন কাগজপত্র নেই তাতে কি হয়েছে। খুব তাড়াতাড়ি সকল কাগজপত্র পেয়ে যাব।
এ বিষয়ে সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক আবুল কাশেম মোঃ মহিউদ্দীন এর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন এ ধরনের ইটভাটা সম্পর্কে আমার কিছু জানা নেই। যদি অবৈধভাবে নির্মাণ করা হয়ে থাকে তাহলে দ্রুত তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here