পাটকেলঘাটায় তাল রস সংগ্রহে ব্যস্ত গাছিরা

0
990

মো. রিপন হোসাইন,প্রতিনিধি : পাটকেলঘাটা সহ তালা উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় তাল রস সংগ্রহে ব্যস্ত গাছিরা। গ্রীষ্মের গরমে মনকে সতেজ করতে তালের রস বিশেষ গুরুত্ব বহন করে।
সরেজমিনে পাটকেলঘাটার কুমিরা, দাদপুর, বাহাদুরপুর, সেনপুর, নোয়াকাটি, মির্জাপুর, ধানদিয়া সহ তালা উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা যায় এই সকল এলাকার গাছিরা এখানে ব্যস্ত সময় অতিবাহিত করছে তালগাছ থেকে রস সংগ্রহের কাজে। তালের রস থেকে গুড় সংগ্রহ করে স্থানীয় চাহিদা মেটানোর পর সেগুলো দেশের বিভিন্ন প্রান্তে বিক্রয় করা হয়। প্রতিদিন সকালে, দুপুরে ও বিকালে তিন ধাপে তালগাছে থেকে রস সংগ্রহ করা হয়। এছাড়া তাল গাছে গুলি (রস রাখার পাত্র) পেতে রাখার সময় তাল গাছের মৌচা বা খাদি সামান্য অংশ কেটে ফেলতে হয়। যে তাল গাছে তাল ধরে না তাকে জটা তালগাছ বলে। সাধারণত জটা গাছ এবং সে গাছে তাল ধরে উভয় প্রকার তাল গাছ থেকে রস সংগ্রহ করা হয়। এই বিষয়ে অভয়তলা গ্রামের গাছি আবু সাঈদের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, গরম যত বেশি হবে তাল গাছের রস তত বেশি হবে। তিনি আরও জানান, প্রতিদিন পাটকেলঘাটার কুমিরা-কেশবপুর সড়কের বাহাদুরপুর মোড়ে তিনি তালের রস বিক্রয় করেন। প্রতি স্লাস ৫টাকা বিক্রয় করা হয়। ঐ গাছির সাথে কথা বলার প্রক্কালে কয়েকজন যুবক মটরসাইকেল থামিয়ে সেখান থেকে তালের রস পান করেন। তাদের অভিব্যক্তি জানতে চাইলে তারা জানান এখানকার তাল রস ভেজাল মুক্ত, টাটকা এবং অত্যান্ত মিষ্টি ও সু-স্বাদু। এই বিষয়ে আরও কথা হয় পাটকেলঘাটার নোয়াকাটি গ্রামের গাছি বজলুর রহমানের সাথে তিনি জানান, গরমের শুরুতে আমি ১৮টি তালগাছ পরিষ্কার করে রস সংগ্রহের জন্য প্রস্তুত করি। বর্তমানে ১৬টি গাছ থেকে রস পাওয়া যাচ্ছে। প্রতিটি তাল গাছ থেকে প্রতিদিন প্রায় ৫ থেকে ৬ লিটার রস পাওয়া যায়। আমি প্রতিদিন সন্ধ্যাকালিন মির্জাপুর বাজারে প্রতি গ্লাস রস ৫ টাকা করে বিক্রয় করি। প্রতিদিন আমি সব মিলে প্রায় তিন হাজার টাকার রস বিক্রয় করে থাকি।
বাজারে রস পান করতে আসা বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা ও তালা উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সহকারী কমান্ডার মোঃ এরফান আলী জানান, এই এলাকায় এক সময় তালের রসের খ্যাতি থাকলেও কালের বিবর্তনে হারিয়ে যেতে বসেছে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য তালের রস ও গুড়। কয়েক বছর আগেও এলাকার বিভিন্ন ক্ষেতের আইলের পাশে, রাস্তার দুই ধারে ছিল অসংখ্য তালগাছ। তাল গাছ সারা বছর অযতেœ অবহেলায় পড়ে থাকলেও গ্রীষ্মের মৌসুমে কদর বেড়ে যায়। অনেকাংশে তালের রস সু-স্বাধু ও মানব দেহের উপকারি তার কারণে মানুষের কাছে খুবই জনপ্রিয় এই তালের রস।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here