পাটকেলঘাটায় ফাগুনের বাতাসে সুবাস ছড়াচ্ছে স্বর্ণালী মুকুল

0
695

বাম্পার ফলনের সম্ভবনায় মুখ দেখেছে চাষিরা

মো. রিপন হোসাইন,পাটকেলঘাটা : ঋতুরাজ বসন্তের মাঘের শেষে আর ফাল্গুনের আগমনী বার্তা দেয় দক্ষিনা হাওয়া আর গাছে গাছে œ মুকুলের সমারোহ। ফাগুনের ¯িœগ্ধ বাতাসে সুবাস ছড়াচ্ছে স্বর্ণালী মুকুল পাটকেলঘাটাসহ তালা উপজেলায়। এ পুষ্টিকর ফলটি বাম্পার ফলনে সম্ভবনা ইঙ্গিত দি”্ছে । মুকুলে ছেয়ে যাওয়া গাছগুলো দেখে ভাবা যেতে পারে সর্বাধিক জনপ্রিয় এই ফলের এক চমৎকার ফলন হতে পারে । তবে সংগ্রহের আগ পর্যন্ত আবহাওয়া পরিস্থিতি অনূকূলে থাকবে কি না নিয়ে বিশেজ্ঞ ও বিজ্ঞানীরা চিন্তিত । মুকুল ঝরে পড়া বিষয়ে যথাযথ টেকসহ পরিচর্যার ব্যবস্থার নেয়া অত্যাবশ্যাাক । তাই বলা যায় কবির ভাষায়, ফাল্গুনের বিকাশিত কাঞ্চন ফুল ডালে-ডালে পুঞ্জিত আস্ম্র মুকুল। বনে বনে ফুল ফুটেছে,দোলে নবীন পাতা। আমের মুকুলের মিষ্টি ঘ্রানে এখনই মৌ মৌ করতে শুরু করেছে। মুকুলের সেই সুমিষ্ঠ সুবাস আন্দোলিত করে তুলছে মানুষের মন।
সরেজমিনে দেখা গেছে, ভিটা-বাড়ী,আঙ্গিনা অথবা বাগানের সারি-সারি গাছে মুকুলের ফুটন্ত ডাল পালা উঁকি মেরে বের হতে শুরু করেছে। তালা উপজেলায় চারদিকে দৃষ্টিদন্দন এই দৃশা সবারই নজর কাঁড়ছে । মনে পড়ে সেই ছোট বেলার কথা সামান্য হাওয়া দোলা খেয়ে আম গাছ থেকে টপকে পড়া আম কুড়িয়ে রসালো ফলের স্বাদ,তৃপ্তির সঙ্গে খাওয়া সবাই মিলে-মিশে একসাথে আম খাওয়ার প্রতিযোগিতা । ফাগুনের হাওয়ায় সবুজ পাতার ফাঁকে ফাঁকে দোল খাওয়া সোনাঝরা মুকুলের স্বপ্ন বাধঁছেন চাষিরা ।
বনফুল থেকে মৌমাছির দল গুনগুন করে ভিড়তে শুরু করেছে আম্ম্রমুকুলে । গাছের কচি শাখা প্রশাখায় ফোটা সোনালী ফুলগুলোর উপরে সূর্যচ্ছটা পড়তেই চিকচিক করে উঠেছে। পরিবেশ ও পরিবেশ যেন আসছে আম উৎসবেই ।

ফল গবেষনা সূত্রে জানা গেছে, চলমান জলবায়ু পরিস্থিতি আমের মুকুল ফুঁটে উঠার জন্য যথোপয়োগী ইতোমধ্যে অসংখ্যা গাছের মুকুলিত রুপ নজর কাঁড়ছে। জানুয়ারী মাঝা-মাঝি থেকে শুরু করেছে গাছগুলো মুকুলিত চলতি মাসের মাঝামাঝি চাষের জন্য যথোপযোগী আবহাওয়া সুবাদে শতকরা ৯০-৯৫ভাগ গাছ মুকুলিত হয়ে উঠেছে। পাটকেলঘাটায় জুসখোলা গ্রামে শেখ আনসার আলী বলেন, যত বেশি আমের মুকুল ,ততবেশি ঝড়-তুফানের আশাঙ্খা রয়েছে। এদিকে ফাগুনের আগুন লাগতে শুরু করেছে আম কাননে মধু মাস জানান দিচ্ছে মুকুলে মুকুলে। আম গাছে শীষচুড়া মুকুলের রঙে একবার হলুদে হয়ে গেছে । মুকুলের সু-ঘ্রানে স্তরে গেছে আকাশ-বাতাস । ভাল ফলনের আশায় বুক বাঁধছেন এ উপজেলায় আম চাষিরা ।

জাতীয় অথৃনীতিতে আম লাভজনক মৌসুমী ফল ব্যবসা হওয়ায় প্রতিবছর বাগানের সংখ্যা বাড়ছে। তবে গড়ে উঠা নতুন আমবাগান গুলোর প্রায়ই বনেদি জাতের । বিশেষ করে ল্যাংড়া,গোপালভোগ,ক্ষিরসাপাত ও আশ্বিনা জাতের হাইব্রিড গাছই বেশি হচ্ছে।
এদিকে আমের মুকুলের চাষিরা খুশি হলেও বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তারা বলেছেন,পুরোপরিভাবে শীত বিদায়ের আগেই আমের মুকুল আসা ভাল নয়। হঠাৎ ঘন কুয়াশা পড়লেই আগে ভাগে আসা মুকুল ক্ষতিগ্রস্থ হবে,যা ফলনেও প্রভাব পড়বে।

সাতক্ষীরা আবহাওয়া অধিদপ্তরের কর্মকর্তা মল্লিক শফিকুল ইসলাম জানান, তুলনামূলকভাবে তাপ মাত্রা উঠানামা বাড়তে পারে। এতে করে বলা যায় বেশি ভাগই আবহাওয়া ভাল হবে বলে আশাবাদ ব্যাক্ত করেন।
আমের পরিচর্চা ও পরামর্শা বিষয়ে তালা উপজেলা কৃষি অধিদপ্তরের কৃষি অফিসার আব্দুল্লাহ আল-মামুনের কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, আমরা প্রতিনিয়ত চাষীদের পরামর্শসহ বিভিন্ন ট্রেনিং ব্যবস্থা করেছি। তিনি আরো বলেন,মুকুল ও মটরদানা এবং মারবেল মতো হলে গাছে স্প্রে করার জন্য পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছি। প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা প্রতিটি এলাকায় চাষে সাফল্য এনে দেবে ।