পাটকেলঘাটায় যত্রতত্র কোন রকম পরীক্ষা নীরিক্ষা ছাড়াই জবাই করা হচ্ছে গরু, ছাগল ও মহিষ

0
333

মো.রিপন হোসাইন,পাটকেলঘাটা : সাতক্ষীরা জেলার বানিজ্যিক প্রাণ কেন্দ্র পাটকেলঘাটা বাজার। এখানে খেয়ালখুশিমত যেখানে সেখানে যত্রতত্র গরু, ছাগল মহিষ জবাই করা হচ্ছে। যার ফলে পরিবেশ দুষনের পাশাপাশি জনস্বাস্থ্য চরম মুখথুবড়ে পড়েছে । তালা উপজেলা সেনেট্যারি অফিসার চরম দায়িত্বহীনতায় দেড় বছরে চরম স্বাস্থ্যহীনতায় পড়েছে। । সরে জমিনে গেলে দেখা মেলে পাটকেলঘাটাসহ তালা উপজেলায় বিভিন্ন কসাই খানা থেকে শুরু করে বিভিন্ন হেটেল-রেস্তেরাই ,বেকারী দোকানগুলোর অবস্থা দেখলে সহজেই অনুমান করা যায় সেনেট্যারী কর্তা কতটা কর্তব্যপরায়ন এবং দায়িত্বহীনতা। জানা যায়, পাটকেলঘাটা বাজারে মাত্র ১৫টি অনুমোদিত কসাই খানা আছে। যার মধ্যে ১০টি গরুও ৫টি ছাগল। কিন্তু বাজার ঘুরে দেখা যায়, বর্তমানে বাজারে প্রায় ৫০টিরও অধিক কসাই খানায় গরু,ছাগল ও মহিষের মাংস বিক্রি করা হচ্ছে। অর্থ্যাৎ অনুমোদিত কসাই খানার প্রায় ৩ গুন অনুমোদনবিহীন কসাই খানা আছে। আরো জানা যায়, বাজারের কলেজ রোড, থানা ভবন সংলগ্ন সড়ক, ওভারব্রীজ, খাদ্যগুদাম, বাজার মাছপট্টি পাশ্বে, কুমিরা বাসস্ট্যান্ড সহ এলাকার বিভিন্ন জায়গায় খোলা মেলা ভাবে বিক্রি করা হচ্ছে এই সব পশুর মাংস। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ব্যক্তি জানান, যেখানে সেখানে খোলা জায়গায় মাংস বিক্রি হওয়ায় পরিবেশ নষ্ট হচ্ছে। তাছাড়া স্কুল কলেজ চলাকালীন সময় এমনভাবে মাইক বাজিয়ে মহিষের অথবা গরুর মাংস বিক্রয়ের প্রচার চালানো হয় যে, ছেলেÑমেয়েরা ক্লাসে মনোনিবেশ করতে পারে না। এছাড়া পাটকেলঘাটায় মহিষ জবাই করার কোন প্রকার অনুমোদিত কসায়খানা না থাকলেও, ইদানিং দেখা যাচ্ছে এলাকায় মাইক প্রচার চালিয়ে বিভিন্ন স্থানে মহিষ জবাই করা হচ্ছে। এদিকে নির্দিষ্ট স্থানে পশু জবাই না করার ফলে, যেখানে সেখানে জবাইকৃত পশুর বর্জ্য ফেলে রাখার ফলে পরিবেশ মারাত্মক ভাবে দুষিত হচ্ছে। পাটকেলঘাটা বাজারের বিশিষ্ট্য ব্যবসায়ী হিরো আলম জানান, আমার জমিতে অবৈধভাবে কসাইরা ছাগল জবাই করে আমার জমি নষ্ট করছে। সেখানে এমন অবস্থা হয়েছে যে, সে জায়গায় কোন রকমে যাওয়া যায় না। এদিকে আরো অভিযোগ আছে যে, গরু, ছাগল, মহিষ জবাই করার পূর্বে কোন রকম পরীক্ষা নিরিক্ষা করা হয় না। পরীক্ষা করা অত্যন্ত প্রয়োজনীয় হলেও তা পাটকেলঘাটা বাজারের মাংস বিক্রেতারা মানছে না। পাটকেলঘাটা সরুলিয়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক বিশ্বাস আতিয়ার রহমান বলেন,পরীক্ষা নীরিক্ষা না করে গরু ছাগলের মাংশ খাওয়া ঠিক নয়। যুগীপুকুরিয়া গ্রামে আফসার সরদার বলেন,আমরা যে গোস্ত খায় তা কতটুকু ভাল আমরা জানিনা । কিন্তু পরীক্ষা নিরীক্ষা না করে বিক্রয় করা ঠিক নয়। একই কথা ব্যক্ত করেন থানার কাশিপুর গ্রামে শেখ টিপু সুলতান বলেন, আমরা যে গরু মাংশ খায় তা কতাটা স্বাস্থ্যসম্মত সেটা আমরা ভেবে দেখেনি। কারন অসুস্থ্য পশুর মাংস খেলে বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভবনা বেশী। তাছাড়া সাধারন মানুষ জানে না, যে গরুও মহিষের মাংস ভাল ভাবে সিদ্ধ না করে খেলে, এদের মাংসাশে থাকা কৃমি মানুষের শরীরে প্রবেশ করে এবং ইহা শিশুদের দেহে প্রবেশ করে রক্তশূণ্যতা সহ নানা রকম রোগব্যধির সৃষ্টি করে। তালা উপজেলা সেনেট্যারি ইন্সপেক্টর শাহানাজ আক্তার কাছে মোবাইল’র যোগাযোগ করা হলে ফোনটা রিসিফ হয়নি । উপজেলায় ১৫টি অনুমোদিত কসাইখানা আছে। একটি নিদিষ্ঠ স্থানে পশু জবাই করার কথা। পরীক্ষা-নিরীক্ষা করার কথা ভেটিনারী ডাক্তারদের। পশু জবাই হওয়ার পরে মাংশ পরীক্ষা করার দায়িত্ব উপজেলা সেনেট্যারি ইন্সপেক্টরে ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here