পাটকেলঘাটা বাজারের রমজানে শুরুতেই নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের দাম বেড়ে চলেছে নেই কোন তদারকি ব্যবস্থা

0
380

মো. রিপন হোসাইন : পাটকেলঘাটা বাজরের রমজানের শুরুতেই নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের দাম বেড়ে চলেছে। দাম বাড়ার কারনে ক্রেতাদের নাগালে বাইরে চলে গেছে। মাছ, মাংস, সহ অন্যান্য জিনিসের দাম কিছুটা স্বাভাবিক থাকলেও বেড়েছে শাক-সবজি সহ কাঁচামালের দাম। এতে অস্বস্তিতে রয়েছে সাধারণ ক্রেতারা। প্রতিবছরই রমজানের অযুহাতে ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেট বাজারকে অস্থিশীল পরিবেশ করে থাকে। এবং বাজারে নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের দাম বাড়িয়ে দেয়। গতকাল বৃহস্পতিবার সাতক্ষীরা জেলার সর্ববৃহৎ প্রধান বাণিজ্য কেন্দ্র পাটকেলঘাটা বাজার ঘুরে দেখা গেছে, প্রতি কেজি পটল ১৬ টাকা, বেগুন ৩৬ টাকা, শসা ৩০ টাকা, উচ্ছে ৫০ টাকা, পুঁইশাক ১০ টাকা, কাঁচা মরিচ ৬০ টাকা, আলু ১৬ টাকা, কাঁচ কলা ৩০ টাকা, পেয়াজ ৩৬ টাকা, রসুন ১২০ টাকা, ছোলা ৮৬ টাকা। যাহা রমজানের আগে দাম অনেক কম ছিল, এছাড়া কাচাবাজার অন্যান্য শাক-সবজি ও তৈরিতরকারীর দাম আগের তুলনায় বেড়েছে। রমজান মাসের আগে এ সকল জিনিসের দাম অনেক কম ছিল যাহা কেজি প্রতি ৫/৭টাকা বেড়েছে বলে ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন। এদিকে বাজারে মাছের সরবরাহ অনেকটা বেড়েছে। কিন্তু দাম কিছুটা বেড়েছে। প্রতি কেজি রুই মাছ ২২০ টাকা, কাতলা মাছ ২৫০ টাকা, চিংড়ি মাছ ৪৮০ টাকা কেজি, তেলাপিয়া ১৪০ টাকা, দেশী মুরগী ৩০০ টাকা, পোল্ট্রি ১৬০ টাকা, গরুর মাংস ৪৫০ টাকা, খাসি ৭০০ টাকা। এছাড়া বাজারে মুসরির ডাল ১৩৫ টাকা, বুট ডাল ৪৪ টাকা, ছোলার ডাল ৯০ টাকা, ভৌজ্য তেল সয়াবিন ৮৫ টাকা, সুপার ৮০ টাকা, পাম্প তেল ৬৭ টাকা বিক্রি হচ্ছে। চিনির দাম অস্বাভিক হারে বেড়েছে। গত বছরের তুলনায় চিনির দাম প্রায় দ্বিগুন হয়েছে।বর্তমানে চিনি ৭২টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে। কেজিতে তেলের দাম আগের তুলনায় বেড়েছে। যেমন, মুড়ি ৬০ টাকা, চিড়া ৪০ টাকা, ছোলা ৮৪ টাকা, দামে বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া রমজানে অস্বাভাবিক হারে চিনির দাম বেড়েছে মসলার বাজারও রয়েছে চড়া। গতকাল পাটকেলঘাটা বাজারের মুদি ব্যবসায়ীরা জানায়, গত বছরের তুলনায় দোকানে পর্যাপ্ত মাল মজুদ থাকায় এবং সরকার কঠোর অবস্থায় থাকার কারণে ব্যবসায়ীরা জিনিস পত্রের দাম কিছুটা স্বাভাবিক রেখেছে। এদিকে ভূক্তভোগী সাধারণ ক্রেতা রফিকুল ইসলাম জানান, এবার রমজান মাসে জিনিসপত্রের দাম দু’একদিনের আগের তুলনায় বেড়েছে অসাধু ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেট করে দাম বাড়াচ্ছে বলে ধারনা, তবে কাঁচাবাজারে পণ্যের দাম নিয়ে অস্বস্তিতে রয়েছে সাধারণ ক্রেতারা। ভেজাল পন্য সরবরাহ বন্ধ করতে প্রশাসনের তদারকি চায় সাধারন মানুষ। ভোক্তা অধিকার আইন অনুয়ায়ী প্রত্যেক ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানে মূল্য তালিকা তাকানো কথা। কিন্তু বাজারের ঘুরে দেখা যায় কোন মূল্য তালিকা নেই । যার কারনে যে যার ইচ্ছে মতো হাকিয়ে নিচ্ছে ক্রেতাদের কাছ থেকে পণ্য’র দাম।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here