পাট হইতে পচনশীল পলিব্যাগ

0
363
পাট হইতে পচনশীল পলিব্যাগ তৈরি করিয়া বাজারজাত করিতে পারিলে আমাদের পাট শিল্পের পুনর্জাগরণ ঘটিবে। একই সাথে পরিবেশ উন্নয়নে তাহা পালন করিবে বৈপ্লবিক ভূমিকা। গত শুক্রবার ডেমরার লতিফ বাওয়ানী জুটমিলে পাট হইতে এই পলিব্যাগ তৈরির প্রাথমিক পাইলট প্ল্যান্ট উদ্বোধন করা হইয়াছে। পাট বা পাটজাত বর্জ্য হইতে পলিব্যাগের জন্য সেলুলোস নিয়া তাহার সহিত কোমোসিনথেটিক মিলাইয়া তাহা অল্প আঁচে গলাইয়া পছন্দ মতো রঙ মিশাইয়া ছাঁচে ফেলিয়া তৈরি করা হইবে পরিবেশবান্ধব এই পলিব্যাগ। প্রচলিত পলিথিনের মতোই ইহা হালকা, পাতলা, টেকসই ও দামে সাশ্রয়ী হইবে। ইহা মাত্র দুই হইতে তিন মাসেই মিশিয়া যাইবে মাটিতে। বাংলাদেশে পাটের তৈরি এই পলিব্যাগ উদ্ভাবন করেন বাংলাদেশ পাটকল করপোরেশনের (বিজেএমসি) প্রধান বৈজ্ঞানিক উপদেষ্টা ও বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি গবেষণা কেন্দ্রের সাবেক মহাপরিচালক ড. মোবারক আহমদ।
পলিথিন পরিবেশের শত্রু নিঃসন্দেহে। বিজ্ঞানীদের মতে, পলিথিন ব্যাগ মাটির সঙ্গে মিশিয়া যাইতে বা আগের অবস্থায় ফিরিয়া যাইতে লাগে সাড়ে চারশত বত্সরেরও বেশি সময়। সূর্যের তাপ, আবহাওয়া, আর্দ্রতা, ব্যাকটেরিয়া, ছত্রাক ইহাদের কোনোটিই পলিথিনকে নষ্ট করিতে পারে না। ইহাছাড়া বড়জোর ২০ শতাংশ পলিথিনের ব্যাগ পুনর্ব্যবহারযোগ্য। অবশিষ্ট ৮০ ভাগই পরিবেশ ও স্বাস্থ্যের জন্য বিপজ্জনক। ইহা ক্যান্সার ও চর্মরোগের অন্যতম কারণ। জাতিসংঘের পরিবেশ বিষয়ক এক সমীক্ষায় দেখা যায়, প্রতি বত্সর বিশ্বে এক মিলিয়নের বেশি পাখি ও লক্ষাধিক জলজ প্রাণীর ধ্বংসের কারণ পলিথিনের ব্যবহার। আবার পরিবেশ ও বন  মন্ত্রণালয়ের হিসাব অনুযায়ী, খোদ ঢাকাতেই মাসে প্রায় ৪১ কোটি পলিব্যাগ ব্যবহূত হয়। আর বুড়িগঙ্গা নদীর নিচে রহিয়াছে ৫-৬ ফুট দীর্ঘ পলিব্যাগের স্তর যাহা এখানকার জীববৈচিত্র্যের জন্য হুমকিস্বরূপ। অন্যদিকে অনেক রপ্তানিপণ্য আন্তর্জাতিক মানদণ্ডে বাতিল হইয়া যায় শুধু অপচনশীল পলিথিনের মোড়কের কারণে। তাই এই সমস্যা দূর করিতে বিজ্ঞানীরা পচনশীল পলিথিন উদ্ভাবনের চেষ্টায় রত। ইহারই মধ্যে বাংলাদেশ পাট হইতে পচনশীল পলিব্যাগ আবিষ্কার করিয়া বিশ্বে চমক সৃষ্টি করিয়াছে। আশা করা যায়, ইহাতে আমাদের রপ্তানি বাণিজ্য যেমন লাভবান হইবে, তেমনি পরিবেশবান্ধব পলিব্যাগ উত্পাদন ও বাজারজাতে বিশ্বকে পথ দেখাইবে বাংলাদেশ।
আমাদের দেশে ২০০২ সালে আইন করিয়া পলিথিনের উত্পাদন, বাজারজাত ও বিক্রয় নিষিদ্ধ করা হয়। এমনকি পাট ও পাটজাত পণ্যের উত্পাদন বাড়াইতে ১৭টি পণ্যে পাটজাত মোড়কের ব্যবহার করা হয় বাধ্যতামূলক। আজ ১৫ মে সারাদেশে এই সম্পর্কিত আইন বাস্তবায়নে পরিচালনা করা হইতেছে বিশেষ অভিযান। এতদসত্ত্বেও আমাদের দেশে পলিথিনের ব্যবহার পুরাপুরি বন্ধ হয় নাই। কারণ মাছ-মাংসসহ এমন কিছু পণ্য রহিয়াছে, যেখানে পলিথিনের ব্যবহার আজও জনপ্রিয়। ইহার বিকল্প, সহজলভ্য ও সাশ্রয়ী পাটের পলিব্যাগের প্রচলন ও বাজারজাত শুরু হইলে এই পরিস্থিতিরও অবসান হইবে বলিয়া আশা করা যায়। বর্তমানে প্রাথমিকভাবে দেশীয় প্রযুক্তিতে ছোটখাটো মেশিন দিয়া এই ধরনের পলিব্যাগ তৈরি হইতেছে। তবে শীঘ্রই দেশে ইহার উপযুক্ত মেশিনও তৈরি হইয়া যাইবে বলিয়া আমরা আশা করি। পাটশিল্পকে কেন্দ্র করিয়াই এই দেশের মানুষ একদিন স্বাধীনতার স্বপ্ন দেখিয়াছিলেন। এখন এই পণ্যের বহুমুখীকরণ ও আধুনিক ব্যবহারের মাধ্যমে আমরা উন্নত বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখিতে চাই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here