পাঠক শুণ্যতায় যশোরের গ্রন্থগারগুলো, কি বলছে কর্তৃপক্ষ ?

0
68

ডি এইচ দিলসান : মোবাইল গেম, ইন্টারনেট আর আকাশ সংস্কৃতির যুগে পাঠক শুন্যতায় ভুগছে যশোরের গ্রন্থগারগুলো। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের নেশায় তরুণদের পাঠাভ্যাসে যেমন ঘাটতি দেখা যাচ্ছে, তেমনি অনেক জায়গাতেই পাড়া-মহল্লার পুরনো ছোট লাইব্রেরিগুলো বন্ধ হয়ে গেছে। পাঠকের দেখা মিলছে না যশোর জেলা সরকারি গণ-গ্রন্থাগারেও। যা দুএকজন আসেন তারা হয় একান্তে সময় কাটান না হয় চাকরির পরিক্ষার পড়া করতে যান। বই পড়ে আত্মার খোরাক মেটানো পাঠক সংখ্যা নাই বললেও ভুল হবে না। যদিও এ ব্যাপারে আশার কথা সোনালেন যশোর জেলা সরকারি গণ-গ্রন্থাগারের সহকারী লাইব্রেরিয়ান মমতাজ খাতুন। তিনি বলেন আমার এখানে এত বেশি পাঠক হন যে বসতে দেওয়ার জায়গা পাওয়া যায় না। যদিও সরজমিনে গিয়ে দেখা গেছে ভিন্ন চিত্র। এই ভিন্ন চিত্রের ব্যক্ষ্যা হিসেবে তিনি বলেন সকালে অনেক পাঠক আসেন, কিবেলে পাঠক কম।
এমতবস্থায় আরো বেশি পাঠক টানতে কি কি পদক্ষেপ নিচ্ছেন সে বিষয়ে মমতাজ খাতুন বলেন, আমরা পাসিক সভা এবং চা চক্র করছি। যুগের সাথে তাল মিলিয়ে যশোর সরকারি গণগ্রন্থগার কি ই-বুক প্লাটফর্মে গেছে কি না সে ব্যাপারে তিনি বলেন, ঢাকাতে বই স্কানিং করে ই-বুক করছে, আমাদের এখনো ই-বুকের ব্যাপারে কোন নির্দেশনা নাই।
এদিকে গ্রন্থগারে পাঠক টানা এবং বই পড়ার অভ্যাস তৈরি করার ব্যাপারে যশোরের সাংবাদিক ও লেখক সাজেদ রহমান বলেন, “আমরা যখন ছোট ছিলাম তখন স্কুলে বই পড়া প্রতিযোগিতা হতো। ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় বই উপহার দিতো শিক্ষকরা। তিনি আক্ষেপ করে বলেন, এখন ক্রীড়া প্রতিযোগিতা হলে স্কুল গুলোতে ক্রেকারিজ সামগ্রী পুরস্কার দেওয়া হয়। স্কুলে হয় না পাঠচক্র, শিক্ষরার বলেন না সিলেবাসের বাইরে কোন কথা। তিনি সুপারিশ হিসেবে বলেন, শিক্ষকদেও দায়িত্ব নিতে হবে, কারন শিক্ষরাই পারেন একজন শিক্ষার্থীর বই পড়ার অভ্যাস তৈরি করে দিতে।
যশোর জেলা সরকারি গণ-গ্রন্থাগারের ৪৪ হাজার ৭শ ১১টি ’বই আছে। যার মধ্যে বেশিরভাগ বইতেই পড়ে আছে ধুলার আস্তারন। কারন যা যৎ সামান্য পাঠক আসেন তাদের বড় অংশ যান চাকরির পরীক্ষা বা বিসিএসের প্রস্তুতিতি নিতে।
এদিকে পাঠকদের অভিযোগ তাদের প্রয়োজন অনুযায়ী বই না পাওয়া, নতুন প্রকাশিত প্রয়োজনীয় গ্রন্থের অপ্রতুলতা এবং পুরনো পরিচালনা পদ্ধতির কারণে লাইব্রেরি আকর্ষণ হারাচ্ছে।
যশোরের একজন এনজিও কর্মী ও গবেষক ফয়সাল ইকবাল বলেণ গবেষণার কাজে সরাসরি লাইব্রেরিতে এসে সময় নষ্ট। লাইব্রেরিতে এসে প্রয়োজনীয় বই পাওয়া যায় না। অন্যদিকে অফিসে বসে ইন্টারনেটের কল্যাণে প্রয়োজনয়ীয় তথ্যসূত্র অনেক সহজেই পেয়ে যাওয়া সম্ভব।