পারমাণবিক বোমার ইতিকথা :হিরোশিমা ও নাগাসাকি

0
297

ড. মোঃ রওশন আলম : ১৯৯৭ সালের আগস্ট মাস। তখন আমি জাপানের ফুকুওকা শহরে বসবাস করছিলাম। সেবছর আগস্টের একদিনে রওয়ানা হয়েছিলাম নাগাসাকি শহর অভিমুখে। ফুকুওকা শহর থেকে মাত্র কয়েক ঘণ্টার পথ হচ্ছে নাগাসাকি। বাস ট্যুর। সঙ্গে আছেন আমার সহধর্মিণী আর কিউসু ইউনিভার্সিটির কিছু স্টুডেন্ট ও তাদের কারো কারো পরিবার। উদ্দেশ্য নাগাসাকির পিস মিউজিয়াম বা পিস পার্ক ঘুরে দেখা। পিস অর্থ যে শান্তি তা আমরা কমবেশি সকলেই জানি। শান্তির বিপরীতে অশান্তি শব্দটির সঙ্গেও আমাদের জানাশুনা একেবারে কম নয়। প্রায় ৭২ বছর পূর্বে এই নাগাসাকি শহরে একটি অশান্তির বোমা নিক্ষেপ করা হয়েছিল। পারমাণবিক বোমা। বোমাটির নাম ছিল ফ্যাটম্যান। ১৯৪৫ সালের ৯ আগস্ট নাগাসাকি শহরটিকে এই মারণাস্ত্র বোমার আঘাতে ও তার তেজস্ক্রিয়তার প্রভাবে ভয়ানক বিষাক্ত করে ফেলা হয়েছিল। সেদিন নাগাসাকির মানুষের লুকানোর বা আশ্রয় নেবার জন্য নিরাপদ কোনো জায়গা বা ঠাঁই ছিল না। ছিল না পানিতে ঝাঁপিয়ে পড়ে বাঁচারও। বাস, ট্রেন, কার— সব বাহনের চাকা সেদিন স্থবির হয়ে গিয়েছিল। পাখির ডানাও সেদিন মেলতে পারেনি নাগাসাকির আকাশে। এতটাই বিষাক্ত ছিল সেদিন নাগাসাকির আকাশ ও বাতাস। নাগাসাকি মিউজিয়ামে সংরক্ষিত রয়েছে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সেদিনের ঘটনার বীভত্স স্মৃতিচিহ্ন। আরো রয়েছে সেই সময়ের ধারণকৃত ভিডিও দৃশ্যও, সঙ্গে এনিমেশন। যা দেখলে আপনার চোখের জলও হয়তো শুষ্ক হয়ে আসবে। একটিমাত্র চিত্কার, একটিমাত্র আর্তনাদের ধ্বনিতে ১৯৪৫ সালের ৯ আগস্ট নাগাসাকির বাতাস ভারী হয়ে উঠেছিল। তা হচ্ছে- মিজু (পানি), মিজু (পানি), মিজু (পানি)… । জাপানিজ মিজু শব্দের অর্থ হচ্ছে পানি। পানির অপর নাম জীবন। সেই জীবনরক্ষাকারী পানিও সেদিন- ’৪৫ সালের ৯ আগস্ট দিনটিতে- শিশু, বৃদ্ধ, বালক, বালিকা কাউকে বাঁচাতে পারেনি। ফ্যাটম্যান নামক বোমাটির বিস্ফোরণ ও ফিউশন সেদিন নিঃশেষিত করে দিয়েছিল শান্ত শহর নাগাসাকিকে। ঝরে গিয়েছিল ৭৪০০০ তরতাজা প্রাণ।

ঘুরে বেড়ানো যেহেতু আমার নেশা, তাই নাগাসাকি ভিজিটের ঠিক দু’বছর পর ১৯৯৯ সালের আগস্টে গিয়েছিলাম জাপানের আরেক শহর হিরোশিমায়। উদ্দেশ্য ছিল একই। অর্থাত্ হিরোশিমার পিস পার্ক বা পিস মিউজিয়ামটি পরিদর্শন। ইতিহাস আমাদেরকে সাক্ষ্য দেয় যে, হিরোশিমা নগরীতেই আমেরিকা বি-টুয়েন্টিনাইন বোমারু বিমান থেকে প্রথম পারমাণবিক বোমাটি নিক্ষেপ করেছিল। স্থানীয় সময় সকাল আটটা পনেরো মিনিটে। মানুষ তখনো ঘুমন্ত। দিনটি ছিল ১৯৪৫ সালের ৬ আগস্ট। ইউএস পারমাণবিক এই বোমাটির নাম দিয়েছিল লিটলবয়। লিটল মানে যে ছোট তা তো আমরা জানি। অথচ ধ্বংস ছিল তার কত বড় ও বীভত্স! সবই যেন এলোমেলো, নিঃশেষ। বেশিরভাগ স্থাপনা মাটির সাথে সেদিন মিশে গিয়েছিল। যদিও পিস পার্কে প্রবেশের পথে একটি ধ্বংসপ্রাপ্ত স্কুল এখনো সেদিনের সাক্ষী হয়ে দাঁড়িয়ে আছে। তাত্ক্ষণিকভাবে অন্ততপক্ষে ১৪০,০০০ মানুষ সে ঘটনায় নিহত হয়েছিলেন। তেজস্ক্রিয়তার প্রভাবে ও ক্যান্সারে পরের পাঁচ বছরে এই মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়িয়েছিল প্রায় ২৫০,০০০। বিকলাঙ্গ মানুষের সংখ্যা ছিল আরো অধিক। বলা হয়ে থাকে যে, এখনো সেখানে বিকলাঙ্গ শিশুর জন্ম হয়।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ছিলেন ফ্রাঙ্কলিন রুজভেল্ট। রুজভেল্ট মৃত্যুবরণ করেন ১২ এপ্রিল ১৯৪৫ সালে। তার স্থলাভিষিক্ত হয়েছিলেন হেনরি ট্রুম্যান। কিন্তু যুদ্ধের একেবারে শেষলগ্নে এসে হেনরি ট্রুম্যানের যেন আর তর সইছিল না। তিনি জাপানকে আত্মসমর্পণে বাধ্য করতে জাপানের হিরোশিমা ও নাগাসাকি নগরীতে এই মারণাস্ত্র-পারমাণবিক বোমা-নিক্ষেপের নির্দেশ দিয়েছিলেন। এটা এখন আর অজানা নয় যে, পোল্যান্ড আক্রমণের মাধ্যমে (১৯৩৯ সালের ১ সেপ্টেম্বর) হিটলারের নাজীবাহিনী দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সূচনা করেছিল। এরপর পৃথিবীর একক খলনায়কে পরিণত হওয়া এডলফ হিটলার ও তার বাহিনী একের পর এক দেশ আক্রমণেই যে কেবল মত্ত ছিলে তা নয়, ইহুদি নিধন ছিল তাদের আরো একটি এজেন্ডা। প্রায় ছয় মিলিয়ন ইহুদি নাজীবাহিনীর হাতে নির্মমভাবে নিহত হয়েছিল বলে বলা হয়ে থাকে। সে সময় খ্যাতনামা ইহুদি সায়েন্টিস্টরাও জার্মান ত্যাগ করতে বাধ্য হন জীবন বাঁচানোর তাগাদায়। মহাবিজ্ঞানী আইনস্টাইন ছিলেন তাদেরই একজন। স্বপক্ষ ত্যাগকারী জার্মান বিজ্ঞানীরা ব্রিটেন ও যুক্তরাষ্ট্রে ভিড় করতে থাকেন।

হিটলারের নাজীবাহিনী যে ইউরেনিয়াম-২৩৫ (পারমাণবিক বোমার উপকরণ) সমৃদ্ধিকরণ (এনরিচমেন্ট) করছিলেন, বিজ্ঞানী আইনস্টাইন তা জানতেন এবং পত্র মারফত গোপনে তা প্রেসিডেন্ট ফ্রাঙ্কলিন রুজভেল্টকে অবহিত করেছিলেন। বেশ কয়েকটি যুদ্ধগ্রস্ত দেশ (ব্রিটেন, ফ্রান্স, রাশিয়া, জার্মান, জাপান ও যুক্তরাষ্ট্র) সে সময় পারমাণবিক বোমা কিভাবে তৈরি করা যায়, সেই কৌশল নির্ণয়েও এগিয়ে যাচ্ছিলেন। অতি উত্সাহী এই দেশগুলো সেই দৌড়ে অনেকটা পিছিয়ে থাকলেও যুক্তরাষ্ট্রের বিজ্ঞানীরা বেশ সফলতার সাথে বোমা তৈরির কৌশল নির্ণয় করতে সক্ষম হন। প্রথমে তারা ইউরেনিয়াম গবেষণা ও এনরিচমেন্টের জন্য ব্রিগস ইউরেনিয়াম কমিটি গঠন করেছিলেন (১৯৩৯ সালের ২১ অক্টোবর) (পদার্থবিজ্ঞানী লিম্যান জে ব্রিগসের নামানুসারে)। ফিশনযোগ্য ইউরেনিয়াম গবেষণা যখন তুঙ্গে, ঠিক তখনই গঠিত হয়েছিল পারমাণবিক বোমা তৈরির মূল প্রকল্প-ম্যানহাটন প্রজেক্ট (১৯৪২ সালের ১৮ আগস্ট)। ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়য়ের প্রফেসর, পদার্থবিদ ড. জে. রবার্ট ওপেনহাইমার ছিলেন এই ম্যানহাটন প্রজেক্টের প্রধান। অন্তত ডজনখানেক জগেসরা বিজ্ঞানী সে সময় ম্যানহাটন প্রজেক্টের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ছিলেন। তাদের প্ল্যানের মূল লক্ষ্য ছিল তিনটি কাজকে একসঙ্গে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া। (ক) পর্যাপ্ত পরিমাণে ফিউশনযোগ্য ইউরেনিয়াম-২৩৫ এবং প্লুটোনিয়াম উত্পন্ন করা, (খ) তারপর ইউরেনিয়াম/প্লুটোনিয়াম সমৃদ্ধ পারমাণবিক বোমা তৈরি এবং (গ) সেই বোমাকে কিভাবে বহন করে তা লক্ষ্যস্থলে নিক্ষেপ করা যায় তার নিখুঁত উপায় খুঁজে বের করা।

ম্যানহাটন প্রজেক্ট সফলতা পায়। তাঁদের আবিষ্কৃত প্রথম পারমাণবিক বোমাটির নাম দিলেন তারা গেজেট। তারা গেজেটের সফল পরীক্ষামূলক বিস্ফোরণ ঘটাতে সক্ষম হন নিউ মেক্সিকো স্টেটের লস আলমাসোর ট্রিনিটি নামক স্থানে (১৯৪৫ সালের ১৬ জুলাই)। পরীক্ষালব্ধ এই বোমাটির ভয়াবহতা দেখে তাত্ক্ষণিকভাবে বিজ্ঞানীদের মাঝে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। বিজ্ঞানী ইসিদর রাবির প্রতিক্রিয়া ছিল এরকম-“প্রকৃতির সমস্ত নিয়ম আজ পাল্টে গেলো, মানুষ আজ থেকে পৃথিবী ধ্বংসের বিধাতা হলো”। এই প্রজেক্টের প্রধান স্বয়ং ওপেনহাইমার বলেছিলেন, “আমি নিজেই এখন মৃত্যুরূপে আবির্ভূত হলাম”। যেসব বিজ্ঞানী এই পারমাণবিক বোমা আবিষ্কার করেছিলেন, তারাই এর বিষাক্ত ভয়াবহতা অনুভব করে তা না প্রয়োগের জন্য অনুরোধ জানিয়েছিলেন। কিন্তু যুদ্ধের সময় কে শোনে কার কথা। পরের দুটি পারমাণবিক বোমা লিটলবয় (৬ আগস্ট ১৯৪৫) ও ফ্যাটম্যান (৯ আগস্ট ১৯৪৫) জাপানের হিরোশিমা ও নাগাসাকি নগরীতে বিস্ফোরণের মাধ্যমে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের যবনিকা টেনে আনে।

এরপর পৃথিবী ধীরে ধীরে প্রবেশ করতে থাকে এক পারমাণবিক বোমার জগতে। আমরা আজ পারমাণবিক বোমার জগতেই বাস করছি। একটি দুটি বাটন টিপলেই সবকিছুর ইতি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here