পাহাড়ধসে মর্মান্তিক মৃত্যু ।। ক্ষতিগ্রস্তদের পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করুন

0
187

বেঁচে থাকার শেষ চেষ্টায় ওরা আশ্রয় নেয় পাহাড়ের ঢালে নির্মিত খুপরি ঘরে। জানে সেখানে মৃত্যুর ভয় আছে।বর্ষা এলেই আতঙ্কে থাকে, এই বুঝি উঁচু পাহাড় থেকে নেমে আসা তাল তাল মাটি ওদের জীবন্ত কবর রচনা করবে। তার পরও বাধ্য হয় প্রিয় সন্তান আর পরিজন নিয়ে পাহাড়ের পাদদেশে আশ্রয় নিতে। গত দুই দিনে এমনই দরিদ্র ২৭ জন মানুষের প্রাণ কেড়ে নিয়েছে পাহাড়ধস। গতকাল দুপুর ১২টা পর্যন্ত রাঙামাটিতে ১১ জন, বান্দরবানে আটজন এবং চট্টগ্রামে আটজনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। উদ্ধারকারী ও স্থানীয় প্রশাসন আশঙ্কা করছে, মাটির নিচে আরো লাশ থাকতে পারে। অন্যদিকে গতকাল সকালে মানিকছড়িতে একটি সংযোগ সড়কের কাজ তদারকির সময় পাহাড়ধসে একজন মেজর ও একজন ক্যাপ্টেনসহ ছয়জন নিহত এবং বেশ কয়েকজন সেনা সদস্য নিহত হয়েছেন।
পাহাড়ধসের এই চিত্র প্রায় প্রতিবছরের। প্রতি বর্ষায় একনাগাড়ে কয়েক দিন ভারি বর্ষণ হলেই পাহাড়ধসের ঘটনা ঘটে। কয়েক বছরের মধ্যে সবচেয়ে বড় পাহাড়ধসের ঘটনাটি ঘটেছিল ২০০৭ সালের জুন মাসে, মারা গিয়েছিল ১২৭ জন। এরপর এমন শোকাবহ ঘটনা রোধে বিস্তর পদক্ষেপের কথা শোনা গিয়েছিল। কিন্তু বাস্তবে খুব কমই পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, পাহাড়ধসের অন্যতম কারণ পাহাড় কাটা। সেই পাহাড় কাটা এখনো চলছে। এমনকি প্রশাসনের নাকের ডগায় পাহাড় কাটা হচ্ছে বলেও আমরা পত্রপত্রিকায় দেখছি। কোথাও কোথাও জেলা প্রশাসন, সিটি করপোরেশন, চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ কিংবা অন্যান্য সংস্থা নিজেরাই পাহাড় কাটছে বা কাটাকে উৎসাহিত করছে। দ্বিতীয় কারণ, ঝুঁকিপূর্ণভাবে পাহাড়ের নিচে ছোট ছোট ঘর তুলে ভাড়া দেওয়া। সাধারণত গরিব মানুষ কম খরচে থাকার জন্য বস্তির মতো এই ঘরগুলোতে আশ্রয় নেয়। তৃতীয় কারণ, পাহাড়গুলোতে থাকা গাছপালা কেটে পাহাড়টাকে একদম ন্যাড়া করে দেওয়া। এর ফলে কয়েক দিনের অবিরাম বৃষ্টিতে উপরিভাগের মাটি নরম হয়ে যায় এবং একসময় তা ধসে পড়ে। তাই পাহাড়ধসে মৃত্যু রোধ করতে হলে পাহাড় কাটা বন্ধের পাশাপাশি ন্যাড়া পাহাড়গুলোকে সবুজ আচ্ছাদনে ছেয়ে দিতে হবে। পাহাড়ের নিচে বস্তি নির্মাণ বন্ধ করতে হবে। পাহাড় ঘিরে কংক্রিটের দেয়াল ও প্রশস্ত নালা নির্মাণ করতে হবে। আর এ কাজগুলো স্থানীয় প্রশাসন, সিটি করপোরেশনকেই করতে হবে। তা না করে পাহাড়ের নিচ থেকে সরে যাওয়ার জন্য কেবল মাইকিং করে কোনো লাভ হবে না।

প্রশাসনকে আশু ও দীর্ঘমেয়াদি দুই রকম উদ্যোগই নিতে হবে। আমরা চাই, পাহাড়ধসে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোকে দ্রুত আর্থিক সহযোগিতা দেওয়া হোক এবং তাদের পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করা হোক। শুধু ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার নয়, যারা এখনো পাহাড়ের নিচে ঝুঁকিপূর্ণভাবে বসবাস করছে, তাদেরও অন্যত্র পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করতে হবে। পাশাপাশি নিষেধ সত্ত্বেও যারা পাহাড়ের নিচে বস্তি বানিয়ে ভাড়া দিয়েছিল, তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে হবে। আমরা এমন করুণ মৃত্যু আর দেখতে চাই না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here