পাহাড়িদের বাড়িঘরে আগুনের ঘটনায় মামলা, আসামি ৩০০

0
285

রাঙামাটি প্রতিনিধি: রাঙামাটির লংগদুতে যুবলীগ নেতা নুরুল ইসলাম নয়নকে হত্যার জের ধরে পাহাড়িদের বাড়িঘরে অগ্নিসংযোগের ঘটনার একদিন পরও পাহাড়িদের মাঝে আতঙ্ক কাটেনি। পাহাড়িদের পুড়ে যাওয়া চারটি গ্রামে এখনো জনশূন্য। ক্ষতিগ্রস্ত পাহাড়িরা লংগদু সদর থেকে বেশ কিছু দুরে জঙ্গলে ও বিভিন্ন স্থানে আশ্রয় নিয়েছেন।

এদিকে অগ্নিসংযোগের ঘটনায় পুলিশ এ পর্যন্ত ৭ জনকে আটক করেছে। এ ঘটনায় ১৫ জনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাতনামাসহ ৪শ’ ব্যক্তিকে আসামি করে শুক্রবার রাতে লংগদু থানায় মামলা করা হয়েছে। পরিস্থিতি শান্ত রাখতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর টহলসহ লংগদু সদর ও তার আশপাশ এলাকায় জারি করা ১৪৪ ধারা শনিবার দুপুরে প্রত্যাহার করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার খাগড়াছড়ি জেলার খাগড়াছড়ি-দীঘিনালা সড়কের চার মাইলের যৌথ খামার এলাকা থেকে রাঙামাটির লংগদু উপজেলা সদর ইউনিয়ন শাখার যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও ভাড়ায় চালিম মোটর বাইক চালক নূরুল ইসলাম নয়নের লাশ উদ্ধার করা হয়। ওইদিন তিনি মোটরসাইকেলে যাত্রী নিয়ে তিনি লংগদু থেকে খাগড়াছড়ি যান। এ হত্যাকাণ্ডের জন্য বাঙালিরা পাহাড়িদের দায়ী করেছেন। শুক্রবার স্থানীয় বাঙালীরা নয়নের লাশ নিয়ে লংগদু সদরে মিছিল বের করে।

পাহাড়িদের দাবি, মিছিলের সময় বাঙালিরা পাহাড়িদের চারটি গ্রামে হামলা চালিয়ে লুটপাটের পাশাপাশি অগ্নিসংযোগ করে। এতে প্রায় আড়াই শ’র বেশি ঘরবাড়ি পুড়ে যায়।

শনিবার সকালে জেলা প্রশাসক মো. মানজারুল মান্নান ও পুলিশ সুপার সাঈদ তারিকুল হাসান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। তারা উদ্ভূত পরিস্থিতি নিয়ে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে স্থানীয় নেতৃবৃন্দের সাথে জরুরি আইনশৃঙ্খলা সংক্রান্ত সভা করেছেন।

লংগদু থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোমিনুল ইসলাম জানান, অগ্নিসংযোগ, হামলা ও পুলিশের  ওপর আক্রমণের ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে ১৫ জনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাতনামাসহ ৪শ’ ব্যক্তিকে আসামি করে শনিবার লংগদু থানায় মামলা দায়ের করেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here