পুঁজিবাজারে ‘স্বস্তির সপ্তাহে’ সূচক বাড়লেও কমেছে লেনদেন

0
248

ঢাকা প্রতিনিধি : গত সপ্তাহের পাঁচ কার্যদিবসের মধ্যে পাঁচ দিনই সূচক বেড়েছে সূচক দেশের পুঁজিবাজারে। তবে এর মাত্রা খুবই সামান্য। তবে সূচক বাড়লেও লেনদেনের পরিমাণ কিছুটা কমেছে। আর এই উত্থানের ফলে স্বস্তিতে সপ্তাহ পার করেছে বিনিয়োগকারীরা। তবে ধারবাহিকতায় উত্থানের ফলে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা বাজার কিছুটা পর্যবেক্ষণ করছেন।

বাজার পর্যালোচনায় দেখা যায়, সমাপ্ত সপ্তাহে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) সর্বনিম্ন লেনদেন রেকর্ড গড়লেও সপ্তাহের ব্যবধানে সূচক বেড়েছে। সপ্তাহের শুরু থেকে লেনদেনের মন্থরতায় বাজারের সর্বমোট লেনদেন আগের সপ্তাহের তুলনায় ৫৪ কোটি ১৪ লাখ টাকা কমে ৫৩৯ কোটি টাকায় নেমে এসেছে। গত সপ্তাহে ডিএসইতে ৩৩৩টি কোম্পানির শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে। এর মধ্যে দর বেড়েছে ১৩৯টির, কমেছে ১৬৯টির ও অপরিবর্তিত রয়েছে ২৪টির। এ সময় ডিএসইতে ৭৯ কোটি ৫১ লাখ ৮৪ হাজার ৫৬২টি শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়। সপ্তাহের ব্যবধানে ডিএসইতে শেয়ার লেনদেন কমেছে ৪.৮৮ শতাংশ। ডিএসই’র সপ্তাহিক বাজার পর্যালোচনায় এ তথ্য জানা গেছে।

গত সপ্তাহে পাঁচ কার্যদিবসে ডিএসইতে দুই হাজার ৬৯৯ কোটি ৭৯ লাখ ৯৩ হাজার ৬৩৭ টাকার শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে। এর আগের সপ্তাহের পাঁচ কার্যদিবসে ডিএসইতে লেনদেন হয়েছিল দুই হাজার ৯৭০ কোটি ৫০ লাখ পাঁচ হাজার ৩৮৭ টাকা। এসময় বাজারের সার্বিক লেনদেন কমেছে ৯.১১ শতাংশ।

মোট লেনদেনের ৯৩.৫৭ শতাংশ ‘এ’ ক্যাটাগরিভুক্ত, ৩.৭৮ শতাংশ ‘বি’ ক্যাটাগরিভুক্ত, ১.৪৪ শতাংশ ‘এন’ ক্যাটাগরিভুক্ত এবং ১.২১ শতাংশ ‘জেড’ ক্যাটাগরিভুক্ত কোম্পানির শেয়ার ও ইউনিটের মধ্যে লেনদেন হয়েছে।

চট্টগ্রাম স্টক এক্সেচঞ্জে (সিএসই) লেনদেন হয়েছে ৪৪৫ কোটি ৮০ লাখ টাকার শেয়ার। তবে সার্বিক সূচক বেড়েছে দশমিক ৩৪ শতাংশ। সপ্তাহজুড়ে সিএসইতে তালিকাভুক্ত মোট ২৮০টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের শেয়ার লেনদেন হয়েছে। এর মধ্যে দর বেড়েছে ১২৪টি কোম্পানির। আর দর কমেছে ১৩৭টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ১৯টির।

সমাপ্ত সপ্তাহে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) ১২ খাতে দর (রিটার্ন) বেড়েছে। অন্যদিকে দর কমেছে বাকি ৮ খাতে।

গত সপ্তাহে সবচেয়ে বেশি দর বেড়েছে খাদ্য ও আনুষাঙ্গিক খাতে। এই খাতে ৩.৭ শতাংশ দর বেড়েছে। এরপরে পর্যটন ও ভ্রমণ খাতে ২.৮ শতাংশ দর বেড়েছে, মিউচ্যুয়াল ফান্ডে ২.৩ শতাংশ, তথ্য প্রযুক্তিখাতে ২.১ শতাংশ, জ্বালানি ও বিদ্যুৎ খাতে ১.৮ শতাংশ, বিবিধ খাতে ১.৭ শতাংশ, ট্যানারি খাতে ১.২ শতাংশ, পাট খাতে দশমিক ৯০ শতাংশ, টেলিকম খাতে দশমিক ৫ শতাংশ, কাগজ খাতে দশমিক ৫ শতাংশ, ব্যাংক খাতে দশমিক ৪ শতাংশ এবং ফার্মাসিউটিক্যালস খাতে দশমিক ১ শতাংশ দর (রিটার্ন) বেড়েছে।

এছাড়া দর কমেছে বাকি ৮ খাতে। এর মধ্যে সিমেন্ট খাতে সবচেয়ে বেশি দর কমেছে। এই খাতে ১ শতাংশ দর কমেছে। এছাড়া সেবা-আবাসন খাতে দশমিক ৯ শতাংশ, প্রকৌশল খাতে দশমিক ৮ শতাংশ, জীবন বিমাতে দশমিক ৮ শতাংশ, সাধারণ বিমাখাতে দশমিক ৫ শতাংশ, আর্থিক খাতে দশমিক ৫ শতাংশ, সিরামিক খাতে দশমিক ২ শতাংশ, বস্ত্র খাতে দশমিক ১ শতাংশ দর কমেছে।
ডিএসইতে পিই রেশিও বেড়েছে

সমাপ্ত সপ্তাহে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) সার্বিক মূল্য আয় অনুপাত (পিই রেশিও) বেড়েছে। গত সপ্তাহের চেয়ে পিই রেশিও বেড়েছে দশমিক ০৭ পয়েন্ট বা দশমিক ৪৬ শতাংশ। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

ডিএসইর তথ্য অনুযায়ী, আলোচ্য সপ্তাহে ডিএসইতে পিই রেশিও অবস্থান করছে ১৫ দশমিক ৩৭ পয়েন্টে। এর আগের সপ্তাহে ডিএসইর পিই রেশিও ছিল ১৫ দশমিক ৩০ পয়েন্ট।

বিশ্লেষকদের মতে, পিই রেশিও যতদিন ১৫ এর ঘরে থাকে ততদিন বিনিয়োগ নিরাপদ থাকে।

সপ্তাহ শেষে খাতভিত্তিক ট্রেইলিং পিই রেশিও বিশ্লেষণে দেখা যায়, ব্যাংক খাতের পিই রেশিও অবস্থান করছে ৮ পয়েন্টে, সিমেন্ট খাতের ২৫.৪ পয়েন্টে, সিরামিক খাতের ২৬ পয়েন্টে, প্রকৌশল খাতের ২২ পয়েন্টে, খাদ্য ও আনুষাঙ্গিক খাতের ২৫.৪ পয়েন্টে, জ্বালানি ও বিদ্যুৎ খাতে ১৩ পয়েন্টে, সাধারণ বিমা খাতে ১২ পয়েন্টে, তথ্য ও প্রযুক্তি খাতে ২৬.১ পয়েন্টে, পাট খাতের পিই রেশিও মাইনাস ২২.১ পয়েন্টে, বিবিধ খাতের ২৮.৪ পয়েন্টে, এনবিএফআই খাতে ২০.৭ পয়েন্ট, কাগজ খাতের মাইনাস ৩৩.৪ পয়েন্টে, ওষুধ ও রসায়ন খাতের ১৯.৮ পয়েন্টে, সেবা ও আবাসন খাতের ১৬.৫ পয়েন্টে, চামড়া খাতের ১৭.৬ পয়েন্টে, টেলিযোগাযোগ খাতে ১৯.২ পয়েন্টে, বস্ত্র খাতের ২৬.১ পয়েন্টে এবং ভ্রমণ ও অবকাশ খাতে ২৩.৪ পয়েন্টে অবস্থান করছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here