পুতিনের উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করল যুক্তরাষ্ট্র, ইইউ ও ব্রিটেন

0
86

ম্যাগপাই নিউজ ডেস্ক : যুক্তরাষ্ট্র শুক্রবার ঘোষণা দিয়েছে যে, তারা রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন এবং রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সার্গে ল্যাভরভের সম্পদ জব্দ করবে। এর আগে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) ও ব্রিটেন একই ধরণের পদক্ষেপের ঘোষণা দেয়। পৃথিবীব্যাপী বিভিন্ন দেশ, ইউক্রেন আক্রমণের কারণে রাশিয়ার সরকারের উপর আরোপিত নিষেধাজ্ঞা আরও জোরদার করে চলেছে।

রাশিয়ার সর্বোচ্চ কর্মকর্তাদের সম্পদ ও ব্যাংক হিসাব জব্দের বিষয়ে ব্রাসেলসে ইইউ এর পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা সর্বসম্মতিক্রমে রাজি হওয়ার পর, যুক্তরাষ্ট্রের ট্রেজারি ডিপার্টমেন্ট এই পদক্ষেপের ঘোষণাটি দেয়।

ব্রিটেনের সরকারও শুক্রবার একই পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী লিজ ট্রাস টুইটারে লিখেন, “ইউক্রেনের সার্বভৌমত্ব পুনর্বহাল না হওয়া পর্যন্ত আমরা ক্রেমলিনের বিরুদ্ধে অর্থনৈতিক আঘাত হানা বন্ধ করব না”।

তবে, ইইউ নেতারা এই বিষয়ে একমত হন যে, পুতিন ও ল্যাভরভের বিরুদ্ধে এখনই ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা আরোপ করাটা সময়োচিত হবে না, কারণ আলাপের জন্য পথ খোলা রাখার প্রয়োজন রয়েছে।

অপরদিকে, ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন, “সর্বোচ্চ আঘাত করার জন্য” সুইফট নামের আন্তর্জাতিক ব্যাংক লেনদেন ব্যবস্থাটি থেকে রাশিয়াকে বিচ্ছিন্ন করতে, দেশগুলোর প্রতি শুক্রবার আহ্বান জানান।

তবে, নিষেধাজ্ঞার জবাবে রাশিয়াও কিছু পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। এর মধ্যে রয়েছে ব্রিটেনের বিমানগুলোকে রাশিয়ার আকাশসীমায় প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা আরোপ। তবে, তার আগে ব্রিটেনও রাশিয়ার অ্যারোফ্লট নামের এয়ারলাইন্সটির বিষয়ে একই ধরণের নিষেধাজ্ঞা জারি করে।

অপরদিকে, শুক্রবার আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের (আইসিসি) এক অভিশংসক সতর্ক করেছেন যে, ইউক্রেন আক্রমণের সময়ে রাশিয়া কোন যুদ্ধাপরাধ করেছে কিনা সেটি খতিয়ে দেখতে পারে এই আদালত।

আইসিসি’র অভিশংসক করিম খান শুক্রবার এক বিবৃতিতে বলেন, “ইউক্রেনের ভূখন্ডে সংঘাতে জড়িত সকল পক্ষকে আমি মনে করিয়ে দিতে চাই যে, আমার দফতর তার এখতিয়ার প্রয়োগ করে ইউক্রেনে সংঘটিত যে কোন গণহত্যা, মানবতা বিরোধী অপরাধ অথবা যুদ্ধাপরাধ বিষয়ক কর্মকান্ড তদন্ত করে দেখতে পারে।”