পুলিশের তালিকায় পলাতক, প্রকাশ্যে ঘুড়ে বেড়ান ইউএনওর সঙ্গে

0
23

কালীগঞ্জ (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি : পুলিশের তালিকায় পলাতক। অথচ অপহরণ মামলার প্রধান আসামি রুবেল কাউন্সিলর দিব্যি ঘুরে বেড়াচ্ছেন। শুধু প্রকাশ্যে নয়, প্রশাসনের বিভিন্ন অনুষ্ঠানে তার সরব উপস্থিতি সবাইকে হতবাক করেছে।

ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাদিয়া জেরিনের সঙ্গে আসামি রুবেলের অভিযানের ছবি মঙ্গলবার বিকালে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হলে বিতর্ক ও তীব্র সমালোচনার সৃষ্টি হয়।

মঙ্গলবার বিকালে ইউএনও কালীগঞ্জ ঝিনাইদহর অফিসিয়াল ফেসবুক আইডিতে অপহরণ এবং মারপিট মামলার প্রধান আসামি রুবেলকে ইউএনও সাদিয়া জেরিনের সঙ্গে অনিয়মতান্ত্রিক পার্কিং, যানজট ও ফুটপাত দখলে সচেতনতামূলক অভিযানে অংশ নিতে দেখা যায়।

রুবেল ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ পৌরসভার ২নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ও শহরের খয়েরতলা গ্রামের মন্টু মিয়ার ছেলে।

জানা গেছে, গত ২৪ অক্টোবর কালীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অমিত সাহা বিষুকে অপহরণ ও মারপিট করা হয়। এ ঘটনায় তার মা শ্রীমতি ইতি শিকদার কালীগঞ্জ থানায় বাদী হয়ে মামলা করেন। মামলায় রুবেলকে প্রধান করে ৪ জনকে আসামি করা হয়।

এ বিষয়ে ইউএনও সাদিয়া জেরিন বলেন, আমরা যখন সরকারি কাজে যাই, তখন আমাদের সঙ্গে কে থাকে না থাকে অতটা খেয়াল করতে পারি না। হয়ত অভিযানের সময় তিনি আমাদের কাছে আসতে পারেন। আমি সঠিকভাবে বলতে পারব না।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা কালীগঞ্জ থানার এসআই ভবতোষ রায় জানান, এই মামলার ৩ আসামি আদালত থেকে ইতোমধ্যে জামিন নিলেও প্রধান আসামি কাউন্সিলর রুবেল জামিন নেননি।

তিনি বলেন, ঘটনার সঙ্গে আসামি রুবেলের সম্পৃক্ত নিয়ে কিছুটা সন্দেহ থাকায় প্রকৃত ঘটনা জানতে পুলিশ সেদিনকার কল রেকর্ড (সিডিআর) তলব করেছে। সেটি পেলেই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

তিনি আরও বলেন, আমার সামনে কখনো রুবেল পড়েননি; তিনি পুলিশের তালিকায় পলাতক।

বিষয়টি নিয়ে মামলার কাউন্সিলর রুবেল মিয়া জানান, আমার নামে যে থানায় মামলা হয়েছে তা আমি জানি না। আর যদি কেউ করে থাকেন তবে সেটি মিথ্যা ও উদ্দেশ্যমূলক।

এ বিষয়ে বাদীপক্ষের আইনজীবী আব্দুল মালেক মিনা জানান, অপহরণ ও মারপিট মামলার পলাতক আসামি ইউএনও বা পুলিশের সঙ্গে ঘুরে বেড়ানো অপরাধ ও গর্হিত কাজ। আসামিকে হয় জামিন নিতে হবে, নইলে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করবে।

তিনি বলেন, কালীগঞ্জের সাবেক ছাত্রলীগ সভাপতি অমিত সাহাকে অপহরণের পর মারপিট করা মামলার আসামি কীভাবে প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়ায় তা বোধগম্য নয়। এতে মানবাধিকার খর্ব হয়।