পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশের আগে ফাঁসি নয়

0
35

নিজস্ব প্রতিবেদক : পূর্ণাঙ্গ রায় পাওয়ার আগে যেন দণ্ডিত ব্যক্তির ফাঁসি কার্যকর না হয়, সে জন্য অ্যাটর্নি জেনারেলকে কারা মহাপরিদর্শকের সঙ্গে কথা বলতে নির্দেশ দিয়েছেন সুপ্রিমকোর্টের আপিল বিভাগ।
সর্বোচ্চ আদালতের পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ হওয়ার আগেই এক আসামির মৃত্যুদণ্ড কার্যকরে তোড়জোড় চলছে বলে তার আইনজীবী আদালতের দৃষ্টি আকর্ষণ করলে রোববার প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন এ নির্দেশনা দেন।
গত সপ্তাহে এক আইনজীবীর বরাত দিয়ে বেশ কয়েকটি গণমাধ্যম প্রকাশিত খবরে বলা হয়, চার বছর আগে আপিল বিভাগের চূড়ান্ত নিষ্পত্তির আগেই দুই ব্যক্তির মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়েছে।
এ নিয়ে তুমুল আলোচনা-সমালোচনার মধ্যে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বৃহস্পতিবার বলেন, ওই খবর সঠিক নয়। ফাঁসি কার্যকরের ক্ষেত্রে আইনের ব্যত্যয় ঘটেনি। রোববার আপিল বিভাগের কার্যক্রম শুরু হলে জ্যেষ্ঠ আইনজীবী ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন একটি মামলার কথা উল্লেখ করেন। তখন প্রধান বিচারপতি বলেন, ‘ফাঁসির মামলা নিয়ে কত সমালোচনা হচ্ছে। ২০০৬ সালের মামলা শুনতে লিস্টে নিয়ে এসেছি। ২০০৬, ২০০৭ ও ২০০৮ সালের মামলাগুলোর পর ২০১৫ সালের মামলাগুলো প্রায় শেষ করেছিলাম। এখন দেখা যায়, ২০১৩ সালের কিছু বাকি রয়েছে।’তখন আইনজীবী হেলাল উদ্দিন মোল্লা প্রধান বিচারপতিকে বলেন, তার মক্কেলের পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশিত হওয়ার আগেই ফাঁসি কার্যকরের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। রিভিউ (পুনর্বিবেচনা) আবেদন করা হবে, তার আগে যেন ফাঁসি কার্যকর না হয়, সেজন্য আদালতের হস্তক্ষেপ কামনা করেন আইনজীবী।
১৬ আগস্ট ওই রায় দেওয়া হয় জানিয়ে এ আইনজীবী বলেন, সেখানে তিন আসামিকে যাবজ্জীবন এবং একজনের মৃত্যুদণ্ড বহাল রাখা হয়। প্রধান বিচারপতি এ সময় জানতে চান— আসামিপক্ষ রিভিউ আবেদন করেছে কিনা। আইনজীবী হেলাল উদ্দিন তখন বলেন, ওকালতনামা পাইনি। ডিসির মাধ্যমে এখন ওকালতনামা পেতে ১০ দিন লাগে। অ্যাডভান্স অর্ডারের জন্য আসামির প্রাণভিক্ষার আবেদন খারিজ হয়েছে। এখনও রায়ে সই হয়নি। প্রধান বিচারপতি এ সময় বলেন, পূর্ণাঙ্গ রায় পাওয়ার আগে তো দণ্ড কার্যকর না। পরে তিনি অ্যাটর্নি জেনারেল এএম আমিন উদ্দিনকে বলেন, আপনি আইজি প্রিজন্সকে বলবেন পূর্ণাঙ্গ রায় পাওয়ার আগে যাতে দণ্ড কার্যকর করা না হয়।