পূর্ব ঘোষণা ছাড়াই পরিবহন ধর্মঘট, জনজীবন অতিষ্ট

0
371

রাশেদুজ্জামান (রাসেল) বেনাপোলঃ যশোরের বেনাপোল সহ দেশের বিভিন্ন জেলায় পূর্ব ঘোষণা ছাড়াই পরিবহন ধর্মঘটে জনজীবনে দুর্ভোগ নেমে এসেছে।

যশোরের বেনাপোল স্থল বন্দর। ও পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে যাতায়াত সুবিধার্থে দেশের সিংহভাগই পাসপোর্ট যাত্রীরা এ পথে যাতায়াত করে থাকেন। বর্তমানে ধর্মঘটের কারণে বেনাপোল ইমিগ্রেশনে ভারতগামী পাসপোর্ট যাত্রী অনেকাংশে কমে আসলেও দেশের বিভিন্ন এলাকার দূরপাল্লার মানুষগুলো ভারত ভ্রমণ শেষে নিজ দেশে পরিবার-পরিজনের কাছে ফিরে যাবার বেলায় সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

নতুন সড়ক পরিবহন আইন বাস্তবায়নের প্রতিবাদে শ্রমিক সংগঠন বাস চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে।
সোমবার সকাল থেকেই বেনাপোলে বাস চলাচল বন্ধ হওয়ায় দূর-দূরান্তের ফিরে যাওয়া ও ভারত থেকে নিজ দেশে ফিরে আসা যাত্রীরা চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন।

পরিবহন কাউন্টারে বসে থাকা মোঃ মোহসিন বলেন, তিনি চট্টগ্রামে যাবেন। কিন্তু পরিবহন বন্ধ থাকায় বুঝতে পারছিনা কিভাবে বাড়িতে ফিরবো। ঢাকাগামী গৌরদাস বলেন, কয়েকদিন ভারত ভ্রমণ শেষে কিছুক্ষণ আগে নিজ দেশে এসে পৌছালাম। এসেছি শুনেছি পরিবহন শ্রমিক ধর্মঘটের কারণে দূরপাল্লার সকল পরিবহণ বন্ধ আছে। বুঝতে পারছি কিভাবে পরিবারের মানুষগুলোর কাছে ফিরে যাবো। খুব চিন্তা হচ্ছে এবং আমার পরিবারের লোকজনও আমাকে নিয়ে চিন্তা করছেন। বুঝতে পারছি না এখন কি করব।

আশিক সাগর পরিবহনের বেনাপোল তত্তাবধায়ক মিলন হোসেন বলেন, নতুন সড়ক পরিবহন আইন কার্যকরের প্রতিবাদে শ্রমিকরা বাস চালাচ্ছেন না। দুর্ঘটনার মামলায় জামিন যোগ্য দাবিসহ সড়ক আইনের কয়েকটি ধারার সংশোধন চান চালকরা। যার কারনে তারা অনির্দিষ্টকালের জন্য কর্মবিরতি ডেকেছেন। তিনি আরো বলেন, দুর্ঘটনায় কেউ মারা গেলে নতুন আইনে চালকদের মৃত্যুদণ্ড এবং আহত হলে পাঁচ লক্ষ টাকা দিতে হবে। যা শ্রমিকের পক্ষে সম্ভব নয়। তাছাড়া কোন চালক কখনো ইচ্ছাকৃতভাবে দুর্ঘটনাসহ কোন প্রকার বিপদের সম্মুখীন হতে চান না। তবুও নতুন আইনে তাদেরকে মোটা অংকের জরিমানা এমনকি মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের আইন করা হয়েছে। তাই বাস চালিয়ে কেউ জেলখানায় যেতে চাচ্ছেন না বলেও তিনি জানান। আর এসব কারণেই নতুন পরিবহন আইন সংস্কারের দাবি জানান শ্রমিকরা।

এছাড়াও অন্যান্য পরিবহনের অনেকে বলেন, আপনারা সবাই অবগত আছেন যে, দীর্ঘদিন থেকে আমাদের দেশের সড়কে অবৈধ নছিমন, করিমন, মাহিন্দ্রা ইজিবাইক সহ অনেক ধরনের ঝুঁকিপূর্ণ যানবহন চলে। এবং তাদের কারণেই মানুষ বেশী ছোট বড় দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছেন। এসব যানবাহনের কারণে দুর্ঘটনা সৃষ্টি হলেও তাদের কেউ দেখেনা সব ধরনের জেল-জরিমানা হয় বাস চালকদের।
আর এসবের কারণে ফাঁসি ও যাবজ্জীবন দণ্ডের ভয়ে অনেক চালকরা গাড়ি চালানো বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।