পেনশন লইয়া শিক্ষকদের ভোগান্তি প্রসঙ্গে

0
203

বেসরকারি স্কুল-কলেজ মাদ্রাসার অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক ও কর্মচারীদের অবসরকালীন ভাতা পাইতে যে অবিশ্বাস্য বিড়ম্বনা পোহাইতে হয় উহার কি কোনোই প্রতিকার নাই? পত্রিকান্তরের খবরে প্রকাশ, বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহের শিক্ষক ও কর্মচারীরা অবসর গ্রহণের পর চার/পাঁচ বত্সর কাটিয়া গেলেও তাহাদের ঐ পাওনা টাকা পান না। ইহার কারণ অর্থাভাব। প্রতিমাসে প্রায় ৩৬ কোটি টাকা এ বাবদ প্রয়োজন। অথচ, এই খাতে শিক্ষকদের মাসিক বেতন হইতে শতকরা ৪ ভাগ হারে অর্থ কর্তন বাবদ আর ঐ অর্থ ব্যাংকে জমা রাখা বাবদ যে অর্থ আয় হয় উহার পরিমাণ মাসে দাঁড়ায় ১৮ কোটি টাকা। ফলে প্রতিমাসেই এ ক্ষেত্রে ঘাটতি থাকে ১৮ কোটি টাকা। ২০১০ সালে অবসর ভাতার জন্য যাহারা আবেদন করিয়াছিলেন বর্তমানে তাহাদের আবেদন নিষ্পত্তির কাজই চলিতেছে, ইহার দরুন স্বাভাবিকভাবেই ২০১০ পরবর্তী সময়ের আবেদনকারীরা নিদারুণ সংকটের আবর্তে নিপতিত হইয়া যারপরনাই কায়-ক্লেশে দিন গুজরান করিতে বাধ্য হইতেছে। এই পাওনা টাকা পাইতে বত্সরের পর বত্সর যাবত্ অপেক্ষা আর পরিবার-পরিজন লইয়া নিদারুণ অর্থকষ্টের মধ্যে কালাতিপাত করাটা যে কতখানি হূদয়বিদারক তাহা কি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ অনুমান করিতে পারেন? পারেন না নিশ্চয়ই, কেননা, পারিলে ইহার সমাধানকল্পে বাস্তবোচিত ও কার্যকর উদ্যোগ নিশ্চয়ই এতদিনে গৃহীত হইত।

এই সকল শিক্ষক-কর্মচারীকে অবসরকালীন সুবিধা প্রদানের জন্য গঠিত ‘বেসরকারি শিক্ষক-কর্মচারী অবসর সুবিধা বোর্ড’ এবং ‘বেসরকারি শিক্ষক-কর্মচারী কল্যাণ ট্রাস্ট’ নামক দুইটি প্রতিষ্ঠানই আজ অর্থাভাবে শিক্ষকদের ভাতার দাবি মিটাইতে অপারগ। প্রতিমাসে গড়ে পাঁচ শতাধিক শিক্ষক-কর্মচারী অবসর গ্রহণ করেন। সরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পেনশনের ব্যবস্থা আছে আর বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যাহারা এমপিওভুক্ত তাহারা এই ভাতা লাভের উপযুক্ত। অর্থাভাবে বর্তমানে অবসরে যাওয়া প্রায় ৭০ হাজার শিক্ষক-কর্মচারীর আবেদন আজ নিষ্পত্তির অপেক্ষায় অরণ্যে রোদন করিয়া ফিরিতেছে। ২০১৬-১৭ সালে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অনুরোধে সরকার পাঁচশত কোটি টাকা এনডাওমেন্ট আর একশত কোটি টাকা অনুদান দিলে পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হইলেও ২০১৫ হইতে নূতন জাতীয় পে-স্কেলের আওতায় শিক্ষকদের বেতন-ভাতা বৃদ্ধি পাওয়ায় এক্ষেত্রে ঘাটতি কমার পরিবর্তে পুনরায় বৃদ্ধিই পাইতেছে। এমতাবস্থায় শিক্ষকদের বেতন হইতে শতকরা ৬ ভাগ কর্তন আর সরকারের নিকট স্পিড মানি হিসাবে এককালীন ৬ শত কোটি টাকা বরাদ্দের প্রস্তাবও করা হইয়াছে। ইহা ভালো কথা। কিন্তু এতসবের পরেও কথা একটি থাকিয়াই যায়। আর উহা এই যে, বেসরকারি এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারীদের এ বিষয়ক দায়িত্ব যেহেতু সেই ২০০২ সাল হইতেই সরকার নিজ কাঁধে লইয়াছে, সুতরাং উহা বহন করার দায়িত্বও তাহাদের উপরই বর্তায় বৈকি? বর্তমানে সারাদেশে এই জাতীয় শিক্ষক-কর্মচারীর সংখ্যা প্রায় সাড়ে পাঁচ লাখে পৌঁছিয়াছে। তাহাদের অবসরকালীন ভাতা প্রদানের বিষয়টির সুরাহাকল্পে সরকারকেই অবিলম্বে আগাইয়া আসিতে হইবে। আরেকটি বিষয় এই যে, এই ভাতা পাইতে হইলে পিয়ন-চাপরাশি-ড্রাইভার ও শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অসাধু কিছু কর্মচারী সমন্বয়ে গঠিত একটি অসাধু চক্রকে ঘুষ দিয়া খুশি করিতে হয়। অপরের কষ্টার্জিত অর্থের উপর যাহারা এইরূপ অবৈধভাবে ভাগ বসায় তাহাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণও একই সাথে প্রত্যাশিত।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here