পোস্টার বিড়ম্বনা

0
291

মাগুরার একটি শহীদ স্মৃতিস্তম্ভে মুক্তিযোদ্ধাদের খোদাই করা নামগুলি বিভিন্ন পোস্টারে ঢাকা পড়িয়া গিয়াছে। জানা যায়, শহরের প্রাণকেন্দ্র ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের ভায়নার মোড়ে অবস্থিত স্মৃতিস্তম্ভটিতে শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের নাম সাদা পাথরের ওপর কালো কালিতে খোদাই করিয়া লিখা হইয়াছিল। উক্ত স্মৃতিস্তম্ভের চারিপার্শ্বের চারটি প্রকোষ্ঠে মাগুরা জেলার চার উপজেলার শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের পরিচয় তুলিয়া ধরিবার লক্ষ্যেই মূলত এই উদ্যোগ গ্রহণ করা হইয়াছিল। অথচ পোস্টারে ঢাকা পড়িয়া বর্তমানে স্মৃতিস্তম্ভটিতে কতজন মুক্তিযোদ্ধার নাম উত্কীর্ণ আছে—তাহা উদ্ধার করা অসম্ভব হইয়া পড়িয়াছে। এমতাবস্থায় স্থানীয় পৌরসভা কর্তৃপক্ষ স্থানটিতে পোস্টার লাগানো নিষেধ বলিয়া একটি ব্যানার ঝুলাইয়া দিয়াছেন বটে, কিন্তু ইত্তেফাকে প্রকাশিত এই সংক্রান্ত সচিত্র প্রতিবেদন হইতে স্পষ্টতই বোঝা যাইতেছে, সেই সতর্কবার্তা কোনো কাজে লাগে নাই। শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের নামের তালিকার উপর এই ধরনের অশ্রদ্ধা কোনোভাবেই প্রত্যাশিত নহে।

দেশে যত্রতত্র দেয়াললিখন ও পোস্টার লাগানোর ব্যাপারে নির্দিষ্ট নিয়ম ও আইন রহিয়াছে। কিন্তু শঙ্খ ঘোষের কবিতার মতো ‘মুখ ঢেকে যায় বিজ্ঞাপনে’। তাহাতে সর্বাপেক্ষা করুণ দশা রাজধানী ঢাকার। দেওয়ালেরও যে সৌন্দর্য থাকিতে পারে, অন্য অনেক কিছুর মতো নগরবাসীকে তাহা বেমালুম ভুলাইয়া রাখা হইয়াছে। বলা যায় পোস্টারের দাপটে নগরীর অধিকাংশ দেওয়ালই আজ মলিন বা বিবর্ণ। বিভিন্ন কোচিং সেন্টার, অমুক দল, তমুক ভাইয়ের অভিনন্দন-জ্ঞাপন আর মিডিয়ার কল্যাণে প্রতিভা খুঁজিবার জন্য ভোট চাহিয়া যত্রতত্রই চোখে পড়িতেছে হরেক ধরনের পোস্টার। বাসসহ অন্যান্য যানবাহনের চিত্র আরো বেশি নাজুক। হাজারও ঔষধের বিজ্ঞাপনে প্রায়শই যাত্রীদের বিব্রতকর অবস্থায় পড়িতে হয়। যাত্রীছাউনিগুলিও রক্ষা পাইতেছে না পোস্টারের কবল হইতে। যেইসব জায়গায় পোস্টার লাগানো নিষেধ, সেইসব জায়গার দেওয়ালে না পারিলেও আশেপাশে থাকা গাছ এবং বৈদ্যুতিক তারের খুঁটিতে পোস্টার সাঁটাইয়া দেওয়া হইতেছে অবলীলায়।

নগরের সৌন্দর্য রক্ষায় দেয়াললিখন ও পোস্টার লাগানো নিয়ন্ত্রণকল্পে ইতিপূর্বে ‘দেয়াললিখন ও পোস্টার লাগানো (নিয়ন্ত্রণ) আইন-২০১২’ পাস করা হইয়াছে। আইন লঙ্ঘন করিলে শাস্তি হিসাবে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে সর্বনিম্ন পাঁচ হাজার টাকা ও সর্বোচ্চ ১০ হাজার টাকা এবং অনাদায়ে ১৫ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ডের বিধান রাখা হইয়াছে। কিন্তু অবস্থাদৃষ্টে মনে হইতেছে, আইন প্রণয়নের কয়েক বত্সর পার হইয়া গেলেও আইনের যথাযথ প্রয়োগ লক্ষ করা যাইতেছে না। এই কারণেই কি যত্রতত্র দেয়াললিখন ও পোস্টার লাগাইবার হিড়িক ক্রমশই বৃদ্ধি পাইতেছে? পরিবেশকে অপরিচ্ছন্ন ও দৃষ্টিকটু করিবার পাশাপাশি মুক্তিযুদ্ধ বা ভাষা আন্দোলনের মতো মহান ঐতিহাসিক স্মৃতিবিজড়িত স্থাপনাসমূহও অবমূল্যায়িত হইতেছে। তাই যত্রতত্র দেয়াললিখন ও পোস্টার লাগানো বন্ধে আইনটির প্রয়োগ নিশ্চিত করা প্রয়োজন। উপরন্তু যাহারা সমাজের কল্যাণ করিবেন ভাবিয়া প্রচারের নিমিত্ত যত্রতত্র পোস্টার লাগান কিংবা দেয়ালে লিখেন, তাহাদেরও এই ব্যাপারে সচেতন হইবার প্রয়োজন রহিয়াছে। তাহাদের দায়িত্ব এইক্ষেত্রে আরো বেশি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here