পৌর কাউন্সিলর বলে কথা! বৈধ সংযোগ ছাড়াই তিনতলা বাড়িতে ৪বছর ধরে বিদ্যুৎ সংযোগ

0
638

নিজস্ব প্রতিনিধি

যশোরের চৌগাছায় পৌরসভার ৫ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর গোলাম মোস্তফা প্রায় চার বছর ধওে তার তিনতলা আলিশান বাসভবনে অবৈধভাবে বিদ্যুৎ ব্যবহার করছেন বলে গুরুতর অভিযোগ উঠেছে। বৃহস্পতিবার যশোর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ এর ডিজিএম প্রকৌশলী কামাল জিয়াউল ইসলাম লেলিন নিজেই উপজেলা পরিষদের মাসিক সমন্বয় সভায় সকলের সামনে বিষয়টি তুলে ধরেন। এরপর বিষয়টি প্রকাশ হয়ে পড়লে শহরব্যাপী তোলপাড়ের সৃষ্টি হয়।
চৌগাছা পৌরসভার ৫ নম্বর ওয়ার্ডের সরকারি কলেজের পিছনে কলেজের প্রাচীর ঘেষেই রয়েছে পৌর কাউন্সিলর গোলাম মোস্তফার একটি তিনতলা (কাজ চলছে) বিলাসবহুল বাড়ি। অভিযোগ উঠেছে, প্রায় চার বছর ধরে এই বাড়িতে বৈধভাবে কোনও সংযোগ না নিয়েও তিনি রীতিমত বিদ্যুৎ ব্যবহার করে আসছেন। পল্লী বিদ্যুতের এক শ্রেণির অসাধু কর্মচারীদের সহায়তায় তিনি এই অনৈতিক কাজ করে আসছেন। যার ফলে সরকার বড় অংকের রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হয়েছে।
জানতে চাইলে পৌর কাউন্সিলর গোলাম মোস্তফা সাংবাদিকদের বলেন, তিন-চার বছর নয়, সম্প্রতি কলেজের পাশে আমার নতুন বাড়িতে উঠেছি। বিদ্যুতের মিটারের আবেদনও করা হয়েছে। ঘরের ভেতরেও বিদ্যুৎ ব্যবহারের ব্যবস্থার কাজ শেষ। পল্লী বিদ্যুতের ডিজিএমের সঙ্গে কথা বলেছি,যেকোনও সময় মিটার লেগে যাবে।
জানতে চাইলে ডিজিএম প্রকৌশলী কামাল জিয়াউল ইসলাম বলেন, পৌর কাউন্সিলর গোলাম মোস্তফার বিরুদ্ধে তিনতলা বাড়িতে অনৈতিকভাবে বিদ্যুত ব্যবহারের অভিযোগটি সঠিক। আমরা তদন্ত করে এর সত্যতা পেয়েছি। বিষয়টি আজ (৮ অক্টোবর) উপজেলা পরিষদের সভায় জানিয়েছি। সভা থেকে এ বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দেওয়া হয়েছে। এছাড়া পৌর মেয়র সাহেবকেও আলাদাভাবে বলা হয়েছে। আপনি কেনো ব্যবস্থা গ্রহন করেছেন কিনা উত্তরে তিনি বলেন, যার বাড়ি তিনি একজন দায়িত্বশীল জনপ্রতিনিধি। তাই সকলকে জানিয়ে তারপর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। প্রায় চার বছর ধরে তিনি এভাবে বিদ্যুৎ ব্যবহার করছেন। তার বাড়ির ধরন অনুযায়ী প্রতিমাসে কমবেশি তিন হাজার টাকার মতো বিদ্যুৎ ব্যবহৃত হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। চারবছরের হিসেবে প্রায় এক লাখ ৬০ হাজার টাকার ক্ষতি হয়েছে বিদ্যুৎ বিভাগের বলছিলেন ডিজিএম প্রকৌশলি লেলিন।
এবিষয়ে চৌগাছা উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) প্রকৌশলী এম এনামুল হক বলেন, পরিষদের সভায় বিষয়টি উঠেছে। ১০ অক্টোবর এখানে একটি উপ-নির্বাচন আছে (পৌর সভার ৪ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পদে)। সেটি শেষ করেই ব্যবস্থা নেয়া হবে।