প্রকাশ্যে ধূমপান ও যত্রতত্র থুতু-পানের পিক ফেলা বন্ধের নির্দেশনা চেয়ে রিট

0
99

অনলাইন ডেস্ক : প্রকাশ্যে ধূমপান, যত্রতত্র থুথু-পানের পিক ফেলা ও রাস্তা-ঘাট, ফুটপাতে মূত্র ত্যাগ বন্ধে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে রিট আবেদন করা হয়েছে। দেশে বিভিন্ন প্রকার আইন থাকলেও এ বিষয়ে সুনির্দিষ্ট কোনো আইন নেই বিবেচনায় নতুন আইন প্রণয়নের নির্দেশনা সংক্রান্ত রুল জারির আর্জি জানানো হয়েছে এই রিটে।

আজ বৃহস্পতিবার হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় মানবাধিকার ও সমাজ উন্নয়ন সংস্থার (মওসুস) পক্ষ থেকে এই রিট আবেদন করা হয়। সংগঠনের চেয়ারম্যান ও সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ড. মো. গোলাম রহমান ভূঁইয়া জনস্বার্থে এই রিট আবেদন করেন। বিষয়টি সংবাদমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন রিটকারী আইনজীবী নিজেই।

রিটে বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন সংযুক্ত করা হয়েছে। এতে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব, সড়ক ও জনপথ মন্ত্রণালয়ের সচিব, স্বরাষ্ট মন্ত্রণালয়ের সচিব, আইন বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব, ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন, চট্টগ্রাম, সিলেট রাজশাহীসহ দেশের সব সিটি করপোরেশন,পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ও বিআরটিএ’র চেয়ারম্যানসহ ২৩ জনকে বিবাদি করা হয়েছে।
আইনজীবী জানান, গত ১৩ ফেব্রুয়ারি সংশ্লিদের প্রতি লিগ্যাল নোটিশ পাঠানো হয়। ও নোটিশ পাঠানের পরও কোনো ধরনের পদক্ষেপ না নেওয়ায় এই আবেদন করা হয়েছে।

তিনি বলেন, শুধু বাংলাদেশে না, অনেক দেশেই যত্রতত্র থুতু ফেললে শাস্তির বিধান রয়েছে। যেমন সৌদিআরবে রাস্তায় থুতু ফেললে ১০০ থেকে ১৫০ রিয়াল জরিমানা করা হয়। গঙ্গায় বর্জ্য বা থুতু ফেললে তিন বছর কারাদণ্ড বা ১০ হাজার রুপি জরিমানার বিধান রেখে ভারতে ২০১১ সালে আইন করা হয়। আর ২০১৫ সালে মুম্বাইয়ের রাস্তায় থুতু বা পানের পিক ফেলার দায়ে পাঁচ হাজার রুপি জরিমানা ও এক থেকে ৫ দিন পর্যন্ত সরকারি দপ্তর ও রাস্তা ঝাড়ু দিয়ে পরিষ্কারের বিধান রাখা হয়েছে।

‘রাস্তায় চলতে-ফিরতে দেখা যায় মানুষ রাস্তার পাশেই প্রস্রাব করছে, দেয়ালের আশেপাশে থুতু নিক্ষেপ করছে, আবার কেউ কেউ একদম প্রকাশ্যেই ধূমপান করছেন। এর ফলে ওইসব জায়গা দিয়ে সাধারণ মানুষ চলাচলের সময় চরম বিপত্তিতে পড়ে’, বলেন রিটকারী আইনজীবী।