প্রতিদিন ৩০০ রোহিঙ্গা ফেরত নেবে মিয়ানমার

0
334

উখিয়ায় নৌকাডুবিতে নিহতের ঘটনায় জাতিসংঘের শোক ৮ রোহিঙ্গার লাশ উদ্ধার

ম্যাগপাই নিউজ ডেক্স : রাখাইনে সহিংসতার কারণে ছয় লাখের বেশি রোহিঙ্গা মুসলিম বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। অথচ আন্তর্জাতিক চাপের মুখে মিয়ানমার এখন বলছে তারা প্রতিদিন কেবলমাত্র ৩০০ রোহিঙ্গাকে ফেরত নেবে। গত সোমবার মিয়ানমারের শ্রম, অভিবাসন ও জনসংখ্যা মন্ত্রণালয়ের স্থায়ী সচিব ইউ মুইন্ট কিয়াইং বলেন, প্রতিদিন দুটি চেক পয়েন্ট দিয়ে ৩০০ জন রোহিঙ্গাকে যাচাই করে রাখাইনে ফিরিয়ে নেওয়ার পরিকল্পনা করছে মিয়ানমার। মংডু শহরের দুটি চেক পয়েন্ট থেকে রোহিঙ্গাদের নেওয়া হবে।

এদিকে, রোহিঙ্গাবাহী একটি নৌকা গতকাল মঙ্গলবার ভোরে উখিয়ার উপকূলীয় এলাকা বাইলাখালির চ্যানেলে ডুবে যায়। এঘটনায় চার জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। জাতিসংঘ নৌকাডুবিতে চার রোহিঙ্গার মৃত্যুর ঘটনায় শোক জানিয়েছে। গতকাল ইউএনএইচসিআর এর ওয়েবসাইটে প্রকাশিত এক বিবৃতিতে নৌকাডুবির ঘটনায় এই প্রতিক্রিয়া জানানো হয়।

ইউএনএইচসিআর-এর বিবৃতিতে বলা হয়, বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চলীয় উপকূলের কাছে মঙ্গলবার সকালে নৌকাটি ডুবে গেলে চার রোহিঙ্গা নিহত হয়। এছাড়া আরও বেশ কয়েকজন আহত হয়।

এদিকে, টেকনাফের উপকূলে গত দুইদিনে তিন শিশুসহ চারজনের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। অন্যদিকে, মিয়ানমারে গত দুই মাস ধরে চলমান নৃশংসতায় নিজেদের দায় এড়াতে রোহিঙ্গাদের কাছ থেকে সেনাবাহিনী জোরপূর্বক স্বাক্ষর নিচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

ইউ মুইন্ট কিয়াইং আরো বলেন, রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনে ১৯৯২ সালে বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের যৌথ ঘোষণার কিছু অংশ সংশোধনে বাংলাদেশ প্রস্তাব করেছে। যাতে করে নিজেদের আবাসস্থলের প্রমাণ দিতে পারবে এমন রোহিঙ্গারা ফিরতে পারে। তবে যৌথ ঘোষণার আওতায় থাকা প্রধান চারটি নীতিতে পরিবর্তন আসবে না। দেশটির বিরোধী দল ইউনিয়ন সলিডারিটি অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট (ইউএসডিপি) জানিয়েছে, যৌথ ঘোষণায় যে পরিবর্তন আনার কথা বলা হচ্ছে তা পর্যবেক্ষণ করবে তারা।

রোহিঙ্গাদের মানবিক সহায়তা অব্যাহত রাখা হবে : ইইউ কমিশনার

ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) মানবিক সাহায্য ও সংকট ব্যবস্থাপনা বিষয়ক কমিশনার ক্রিস্টস স্টাইলিয়ানাইডস বলেছেন, সহিংসতার মুখে বাংলাদেশে এসে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের জন্য ইইউ’র সহায়তা ও সমর্থন অব্যাহত থাকবে। গতকাল তিনি দুই দিনের বাংলাদেশ সফর শুরু করেছেন। ব্রাসেলস থেকে ইউরোপিয়ান কমিশনের এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

আমাদের চট্টগ্রাম অফিসের আজহার মাহমুদ উখিয়া থেকে জানান,

মংডু, বুথিডং ও রাথেডং টাউনশিপে সেনাবাহিনী একটি দলিলে রোহিঙ্গাদের স্বাক্ষর করতে বলছে। ওই দলিলে লেখা আছে, মিয়ানমার আর্মি রোহিঙ্গাদের উপর কোনো নির্যাতন করেনি। কোনো অগ্নিসংযোগ কিংবা ধর্ষণও করেনি। সেখানকার আরসা বিদ্রোহীরাই এসব ঘটনা ঘটিয়েছে। রোহিঙ্গাদের ধরে নিয়ে এই দলিলে স্বাক্ষর করতে বলছে। না করলে তাদের নিকটস্থ সেনা ফাঁড়িতে নিয়ে ভয়াবহ নির্যাতন করছে।

দুইদিন আগে টেকনাফের শাহ পরীর দ্বীপ হয়ে বাংলাদেশে ঢোকা রোহিঙ্গা নুর আবদুল্লাহ। তিনি অভিযোগ করেন, পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়েছে মনে করে গত সপ্তাহে তিনি বলিবাজারে নিজেদের বাড়িতে ফিরে আসেন। গত বুধবার বাড়ি থেকে বের হলে একদল সৈন্য এসে তাকে ধরে নিয়ে একটি নির্জন স্থানে নিয়ে যায়। সেখানে একটি দলিল দেখিয়ে স্বাক্ষর করতে বলে। তবে তিনি কিছু না বোঝায় তাতে স্বাক্ষর দেননি। পরে সৈন্যরা তাকে পাশের একটি সেনা ক্যাম্পে নিয়ে যায়। বুধবার সারারাত তাকে বেদম পেটায়। পরে তিনি স্বাক্ষর দিলে সকালে তাকে ছেড়ে দেয়।রোহিঙ্গা এক্টিভিস্ট রো নে সান লুইন জানিয়েছেন, মিয়ানমার সৈন্যরা এখন নিজেদের দোষ ঢাকতে নানা রকম উদ্যোগ নিচ্ছে। এর একটি হচ্ছে এই স্বাক্ষর অভিযান। পাশাপাশি রোহিঙ্গাদের জোরপূর্বক এনভিসি (ন্যাশনাল ভেরিফিকেশন কার্ড) নিতে বাধ্য করছে বলে জানান তিনি। এই এনভিসি হচ্ছে এমন একটি কার্ড, যেটি দ্বারা বোঝায়- কার্ড বহনকারী একজন বিদেশি এবং তিনি মিয়ানমার সরকারের কাছে নাগরিকত্বের আবেদন করেছেন।

উখিয়া (কক্সবাজার) সংবাদদাতা জানান, স্থানীয় ইউপি সদস্য নিজাম উদ্দিন জানান, একটি মাছ ধরার নৌকা নিয়ে প্রায় ৪০ জন রোহিঙ্গা বুচিডং এলাকা থেকে সাগর পথে রওনা হন। গতকাল ভোরে নৌকাটি জালিয়াপালং ইউনিয়নের উপকূলীয় এলাকা বাইলাখালী চ্যানেল দিয়ে উপকূলে উঠার চেষ্টা করলে প্রচন্ড ঢেউয়ের আঘাতে নৌকাটি ডুবে যায়।

উখিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. নিকারুজ্জামান জানিয়েছেন, নিহতরা হলেন বুচিডং জেলার আকিয়াব গ্রামের মোহাম্মদ হালিমের ছেলে সিরাজুল হক (১৬), আবুল হাশেমের স্ত্রী জোহুরা খাতুন (৫৫), মো. ইসলামের ছেলে এনামুল হাসান (৫) ও আলী জোহারের মেয়ে মিনারা বেগম (৫)। উদ্ধার করা ২১ জনকে কুতুপালং শরণার্থী ক্যাম্পে পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় ১৫ জনকে বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here