প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক প্রশাসনকে ব্যবহার করে দলীয় ত্রাণ কমিটি করার ঘোষণার নিন্দা ওয়ার্কার্স পার্টি( মার্কসবাদী) বিবৃতি

0
345

করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় খাদ্য মজুত ব্যবস্থা, পরিবহণ ও বিতরণে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীকে পূর্ণ দায়িত্ব প্রদান, করোনা চিকিৎসায় সেনাবাহিনীর মেডিকেল কোর’কে সংযুক্তকরণ এবং সারাদেশে কার্যকর লকডাউনের দাবী
প্রেস বিজ্ঞপ্তি : বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি (মার্কসবাদী)’র সভাপতি নুরুল হাসান ও সাধারণ সম্পাদক ইকবাল কবির জাহিদ এক বিবৃতিতে বলেন, গতকাল প্রধানমন্ত্রী আওয়ামী লীগের ত্রাণ কমিটি গঠন ও প্রশাসনিক সহায়তার যে ঘোষণা দিয়েছেন, তার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান। দেশের এই মহা দুর্যোগ মোকাবেলায় রাজনৈতিক দলগুলি ও আপামর জনগণ যখন সকল গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক দল, শ্রেণি-পেশা, সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠন ও চিকিৎসা বিশেষজ্ঞদের নিয়ে জাতীয় সমন্বয় কমিটি গঠনের দাবি করছেন তখন এই ঘোষণা অনাকাঙ্খিতই শুধু নয়, গণবিরোধী। যা দেশের জন্য আরও ভয়ঙ্কর পরিস্থিতির পথ প্রশস্ত করবে। ইতিমধ্যে দুই শতাধিক স্থানে ত্রাণের খাদ্য দুর্নীতিতে অধিকাংশই আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের পরিচয় পাওয়া গেছে। ফলে প্রধানমন্ত্রীর এই সিদ্ধান্ত দলীয় দুর্নীতিবাজদেরকেই সুযোগ করে দেবে। নেতৃবৃন্দ বলেন, খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য খাদ্য মজুত ব্যবস্থা, পরিবহণ ও বিতরণের জন্য সেনাবাহিনীর উপর পূর্ণ দায়িত্ব অর্পণ, করোনা চিকিৎসায় সেনাবাহিনীর ‘মেডিকেল কোর’কে সংযুক্তকরণ এবং সারাদেশকে কার্যকর লকডাউনের আওতায় আনার জন্য সরকারের প্রতি আহবান জানিয়েছেন।
বিবৃতিতে তাঁরা বলেন, করোনা ভাইরাস নামক অদৃশ্য শত্রুর ভয়ঙ্কর আক্রমণে বিশ্বব্যাপি মৃত্যুর মিছিল সব কিছু তছনছ করে দিচ্ছে। উল্লেখ্য, যেখানে ২৫ মার্চ ২০২০ বিশ্বব্যাপি মোট মৃতের সংখ্যা ছিল ১৭,২৪১ আর ১৬ এপ্রিল সেই সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১,৩৪,৬৭০ জন। অন্যান্য বহু দেশের মধ্যে বাংলাদেশেও মৃত্যুর মিছিল দীর্ঘতর হতে চলেছে। ২৫ মার্চ দেশে করোনায় মৃতের সংখ্যা ছিল মাত্র ৪ জন, ১৬ এপ্রিল তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬০ জনে। তেমনি পুরো অর্থনৈতিক ব্যবস্থাও ভেঙ্গে পড়ছে। এর ফলে কর্মসংস্থান সংকট দেখা দিয়েছে। চলমান বেকার ও অনানুষ্ঠানিক খাতে যারা কর্মরত ছিলেন তাদের মিলিত সংখ্যা ১০ কোটি ছাড়িয়ে যেতে পারে। ভাইরাস আক্রমণ জনিত কারণে যেমন বিপুল সংখ্যক মানুষের প্রাণহানি সম্ভাবনা রয়েছে তেমনি খাদ্যের অভাবে তা আরও মারাত্মক হবে। ছোট-মাঝারি ব্যবসায়ী, ছোট ছোট কারখানার মালিক-কর্মচারি, মধ্যবিত্ত-নি¤œমধ্যবিত্ত আর একটি অভাবী মানুষের চাপের সাথে যোগ হবে। এর সাথে আরও যোগ হবে নি¤œ বেতনভুক সরকারি কর্মচারি। সব মিলে কোটি কোটি হত দরিদ্রের সংখ্যাই বৃদ্ধি পাবে। শুধু তাই-ই নয়, ইতোমধ্যে দারিদ্র্য সীমার নিচে চলে এসেছেন এমন সংখ্যক মানুষ যাদের কথা এখনই আমাদের ভাবনার মধ্যে আনতে পারছি না। এবং এর ফলে “দিন-আনা-দিন-খাওয়া” সম্পর্কে যে ধারণা আমাদের সামনে আছে তার সীমানা হবে বহু বিস্তৃত।
নেতৃবৃন্দ বলেন, চিকিৎসা ক্ষেত্রে এখনও চলছে সীমাহীন অব্যবস্থাপনা ও সমন্বয়হীনতা। ইতিমধ্যে দুইজন চিকিৎসক শহীদ হয়েছেন তারা জাতীয় বীর। আক্রানত হয়েছেন অনেক চিকিৎসক ও চিকিসা কর্মি। স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের আচরণে মানুষ বিক্ষুব্ধ। সামগ্রীক পরিস্থিতি মোকাবেলায় চরম সমন্বয়হীনতা দৃশ্যমান। কর্মহীনদের খাদ্য নিরাপত্তার ব্যবস্থা হচ্ছে না। খাবার মজুত আছে ঘোষণা দিলেও মানুষের জন্য বরাদ্দ পৌঁচোচ্ছে প্রয়োজনের তুলনায় যৎসামান্য।
নেতৃবৃন্দ আরো বলেন, নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের দাম নিয়ন্ত্রণহীনভাবে বেড়েই চলেছে। বুভুক্ষু মানুষ বিভিন্ন জেলায় বিক্ষোভে সামিল হচ্ছেন। অথচ দুই শতাধিক স্থানে ত্রাণের চালের দুর্নীতি ধরা পড়েছে। প্রধানমন্ত্রীর বক্তৃতায় তার স্বীকৃতি রয়েছে। চোরদের রাজনৈতিক পরিচয় তাঁরই সরকারি দলের লোক। তাদের মধ্যে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিরাও রয়েছেন। বেসরকারি ত্রাণ, না-খাওয়া মানুষের কেড়ে নেওয়ার মত ঘটনা ঘটেছে। অপ্রতুল খাদ্য ও অব্যবস্থাপনার কারণে অনাকাঙ্খিত ঘটনা ঘটার লক্ষণ দেয়া যাচ্ছে। মানুষ সরকার ও সরকার দলীয় লোকজনের উপর বিন্দু মাত্র আস্থা রাখতে পারছেন না। লকডাউন ও খাদ্য নিরাপত্তা অবিচ্ছেদ্যভাবে যুক্ত। খাদ্যনিরাপত্তার অভাবে লকডাউন ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। পরিস্থিতির ভয়াবহতার বিচারে সারাদেশকে লকডাউনের আওতায় আনা এবং খাদ্যনিরাপত্তা নিশ্চিত করা ছাড়া পরিস্থিতি মোকাবেলার বিকল্প পথ নেই।
এমত পরিস্থিতিতে আমরা মনে করি, বেঁচে থাকার জন্য ন্যূনতম চাহিদা বাস্তবায়ন করতে গেলে রাষ্ট্রের সকল অংশকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে কাজে লাগাতে হবে। এমতাবস্থায় খাদ্য নিরাপত্তা বিধানে ও খাদ্য বিতরণের মূল দায়িত্ব বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর উপর ন্যস্ত করা জরুরি। সেনাবাহিনীর জাতীয় দুর্যোগ মোকাবেলায় ভূমিকা পালনের সুযোগ রয়েছে। সেনাবাহিনীর হাতে স্থল, নৌ, বিমান বাহিনী এ ভূমিকা নিতে পারে। করোনা আক্রান্ত বিভিন্ন দেশ সংগঠিত এ বাহিনীকে কাজে লাগাতে ভুল করেনি। খাদ্য মজুত, পরিবহণ ও বিতরণের দায়িত্ব তাদের হাতে তুলে দিতে হবে।
তাঁরা বলেন, সেনাবাহিনীর রয়েছে সর্বোচ্চ চেইন-অব-কমান্ড। সারাদেশে সুসংগঠিত সেনানিবাস এবং প্রশিক্ষিত লোকবল রয়েছে। পরিবহণ ও যথাযথ বিতরণের জন্য এ রকম সুসংগঠিত ও প্রয়োজনীয় অবকাঠামো রাষ্ট্রের অন্য কোন অঙ্গের নেই। সিভিল প্রশাসন অবশ্যই কাজ করবে কিন্তু এক্ষেত্রে মূল দায়িত্ব থাকতে হবে সেনাবাহিনীর হাতে। এ সিদ্ধান্ত জনগণ স্বাগত জানাবে। হাওড়ের ধান কাটতে লোকবল নিয়ে যাবার জন্য সেনাবাহিনীকে দায়িত্ব দেয়া সমুচীন হবে।
নেতৃবৃন্দ বলেন, এই মুহূর্তে আমরা এই মহা দুর্যোগ মোকাবেলায় জাতীয় দুর্যোগ ঘোষণা দাবি জানাচ্ছি। একই সাথে সর্বদলীয় সভা ডেকে জাতীয় সমন্বয় কমিটি গঠনের জন্যও সরকারের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি। ত্রাণ কর্মকান্ড দলীয়করণের সিদ্ধান্তের নিন্দা জানাচ্ছি একই সাথে গ্রাম-পাড়া-মহল্লা সহ সর্বস্তরে দল-মত নির্বিশেষে সার্বজনীন সুরক্ষা গণকমিটি গড়ে তোলার জন্য আহবান জানাচ্ছি।