প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে আশিকের খোলা চিঠি

0
39

নিজস্ব প্রতিবেদক : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে একটি খোলা চিঠি লিখেছেন যশোর জেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আশিকুর রহমান হৃদয়। মিথ্যা হত্যা মামলায় যশোর জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি রওশন ইকবাল শাহীকে কারাবন্দি রাখা হয়েছে দাবি করে চাপা কষ্টে তিনি খোলা চিঠি লিখেছেন। শুক্রবার (২৭ মে) রাতে আশিকুর রহমান হৃদয় তার ফেসবুক আইডিতে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বরাবর একটি খোলা চিঠি পোস্ট করেছেন। ওই পোস্টে তিনি যশোরে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে শাহীর রাজনৈতিক কর্মকান্ড তুলে ধরেন। একইসাথে দ্রুত শাহীর মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করে মুক্তির দাবি তুলেছেন। ছাত্রলীগ নেতা হৃদয়ের ওই খোলা চিঠি ফেসবুকে ইতোমধ্যে ভাইরাল হয়েছে। অনেকেই পোস্টটিতে লাইক, শেয়ার ও কমেন্টস করেছেন।

আশিকুর রহমান হৃদয় খোলা চিঠিতে উল্লেখ করেছেন, যশোর জেলায় শিবির-ছাত্রদল হঠাও আন্দোলনে সম্মুখ যোদ্ধা আজ মিথ্যা ও ষড়যন্ত্রমূলক মামলায় কারান্তরীন। যিনি যশোর জেলা ছাত্রলীগের সাবেক তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক ও সরকারি এম.এম কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছেন। এছাড়া সর্বশেষ যশোর জেলা ছাত্রলীগের ১৭তম সম্মেলনে ছাত্র নেতাদের প্রত্যক্ষ ভোটে সভাপতি নির্বাচিত হন। ২০১৯-২০২১ কমিটিবিহীন জেলা ছাত্রলীগকে সুসংগঠিত করেছেন এই ছাত্রনেতা। এছাড়া ২০১৩ সালে রাজাকারের ফাঁসির দাবিতে যখন সারাদেশ উত্তাল তখন যশোর জেলায় দলীয় কার্যালয়ের সামনে দিনরাত শ্লোগানে মুখরিত করেছেন তৎকালীন এই ছাত্রনেতা। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পূর্বে যশোর জেলায় জামাত-বিএনপি যখন নিরীহ মানুষের উপর পেট্রোল বোমা নিক্ষেপসহ অসহায় মানুষের ঘরবাড়ি ভাংচুর করে তৎকালীন এই ছাত্রনেতা মৃত্যুভয় উপেক্ষা করে জেলা আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে রাজপথে থেকে সকল আন্দোলন-সংগ্রামে অগ্রনী ভ‚মিকা রেখেছিলেন। ২০১৮ সালে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে যশোরের ৬টি আসনে নৌকাকে বিজয়ী করার লক্ষ্যে দিন-রাত পরিশ্রম করেছেন। যে মামলায় তাকে ফাঁসানো হয়েছে সেখানে তার উপস্থিতি বা সম্পৃক্ততা কোনোটার প্রমাণ পাওয়া যায়নি। রাজনৈতিক উদ্দেশ্য হাসিলের জন্য তাকে এই মামলায় ফাঁসানো হয়।

কিছুটা আক্ষেপ করে এই ছাত্রলীগ নেতা আরও উল্লেখ করেন, শেখ হাসিনার সরকার ক্ষমতায় আসার পর যখন দেখি বঙ্গবন্ধুর আদর্শিক কর্মী কারান্তরীন এবং জামিন অযোগ্য হয় কিন্তু ছাত্রদল-শিবিরের ভয়ানক খুনিরা ডজন ডজন মামলায় জামিন নিয়ে বুক ফুলিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে তখন ছাত্রলীগ কর্মী হিসাবে আমাদের হৃদয়ে রক্তক্ষরণ হয়। আগামী ২০২৩ সালের নির্বাচনে শাহীর মতো নিবেদিত সংগঠকদের রাজপথে বড্ড বেশি প্রয়োজন। অবিলম্বে প্রিয় ভাই ও রাজপথের সহযোদ্ধা রওশন ইকবাল শাহীর নিঃশর্ত মুক্তি চাই।

প্রসঙ্গত, ২০১৪ সালের ১৬ মে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটি যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি পদে সুব্রত বিশ্বাস ও সাধারণ সম্পাদক পদে শামীম হাসানের নাম ঘোষণা করে। বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের কমিটিতে পদবঞ্চিতরা এর বিরোধিতা করেন। ফলে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে যায়। এ ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশবিজ্ঞান বিভাগের চতুর্থ বর্ষের ছাত্র নাঈমুল ইসলাম পদবঞ্চিতদের পক্ষে নেতৃত্ব দেওয়ায় বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল ফটকে প্রকাশ্যে দুর্বত্তরা তাকে হত্যা করে। একই বছরের ১৫ জুলাই নিহত নাঈমুল ইসলামের মামা রফিকুল ইসলাম বাদী হয়ে ১২ জনের নাম উল্লেখ করে ও অজ্ঞাতনামা আরও ২৩ জনকে আসামি করে কোতোয়ালি থানায় হত্যা মামলা করেন। ঐ মামলাটি সিআইডি তদন্ত করে রওশন ইকবাল শাহীকে ৩ নম্বর আসামি করে মোট ১১ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেয়। দীর্ঘদিন তিনি পলাতক থাকায় শাহীর নামে আদালত গ্রেপ্তারি পরোয়ানা করে। পরবর্তীতে গত ৮ এপ্রিল র‌্যাব-৬ শহরের পুরাতন কসবা কাজীপাড়া (তেতুলতলা) এলাকার নিজ বাড়ি থেকে শাহীকে গ্রেপ্তার করে। বর্তমানে তিনি যশোর কারাগারে বন্দি রয়েছেন।

এছাড়া, এই হত্যা মামলায় জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমানে যশোর সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেনসহ তিনজনকে মামলা থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে।