প্রধান মন্ত্রীর পিএস-১ পরিচয় দিয়ে যশোর উপজেলার ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান বিপুলের কাছ থেকে ৫০ হাজার টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগে মামলা গ্রেফতার-১

0
508

নিজস্ব প্রতিবেদক : প্রধানমন্ত্রীর পিএস-১ সালাউদ্দিন আহমেম্মদ পরিচয় দিয়ে একটি প্রতারক চক্র যশোর সদর উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান (ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান) আনোয়ার বিপুলের কাছ থেকে কৌশল করে বিকাশের মাধ্যমে ৫০ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। এ ঘটনায় র‌্যাবের সহযোগীতায় প্রতারক চক্রের সক্রিয় সদস্য হোসেন আলী নামে এক যুবককে গ্রেফতার করা হয়েছে। সে মাগুরা জেলার শালিখা উপজেলার পাঁচ কাউনিয়া গ্রামের সিরাজুল ইসলাম ওরফে সিরাজ মুন্সীর ছেলে। এ ঘটনায় কোতয়ালি মডেল থানায় বিপুল বাদী হয়ে গ্রেফতারকৃত ১জনসহ দু’জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা ৩/৪জনের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন। মামলায় আসামীরা হচ্ছে, গ্রেফতারকৃত হোসেন আলী ছাড়াও পলাতক কুমিল্লা জেলার মুরাদনগর থানার বাসিন্দা বর্তমানে ঢাকা আশুলিয়া খেজুর বাগান ( ইউনিভার্সাল লিমিটেড এর নির্মানাধীন বিল্ডিং এর শ্রমিক) আল আমিনসহ অজ্ঞাতনামা ৩/৪জন।
যশোর ঢাকা রোড ঘোষপাড়া পুরাতন কসবার জাবেদ আলীর ছেলে যশোর সদর উপজেলা পরিষদের (ভারপ্রাপ্ত) চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন বিপুল সোমবার দিবাগত গভীর রাতে কোতয়ালি মডেল থানায় দায়েরকৃত এজাহারে উল্লেখিত হোসেন আলী, আল আমিনসহ অজ্ঞাতনামা আসামীদের কথা উল্লেখ করে বলেন, ২১ সেপ্টেম্বও সন্ধ্যায় বিপুলের মোবাইল নাম্বারে ০১৭৬৪-৫৮১০৭৫ নাম্বার থেকে ফোন দিয়ে নিজেকে প্রধান মন্ত্রীর পিএস-১ মোঃ সালাউদ্দিন আহম্মেদ পরিচয় দিয়ে বলেন, উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী সেহেতু প্রধান মন্ত্রী ২৪ সেপ্টেম্বও সকাল ১০ টায় গণভবনে আপনার সাথে কথা বলবেন বলে জানান। বিপুল উক্ত নাম্বারের কথা বিশ^াস করে পরের দিন ২২ সেপ্টেম্বর উক্ত নাম্বারে ফোন করে বিপুল নিজের স্ত্রীকে সাথে নিয়ে যাওয়ার কথা বলে বললে উক্ত নাম্বার থেকে জানানো হয় নিয়ে যাওয়া যাবে ও গেট পাশ রাখা হবে জানান। কিছুক্ষণ পর বিপুলের কাছে একটি ওয়াটস আপ নাম্বার থেকে ফোন করে বলা হয় এটা প্রধান মন্ত্রীর ওয়াটস আপ নাম্বার সিভি পাঠাতে বলে বিপুলকে। এর পরপর উক্ত নাম্বার থেকে সোনিয়া আক্তার সোনি নামক একজন ক্যান্সার রোগীর রিপোর্ট উক্ত ওয়াটস আপ থেকে প্রেরণ করে কিছু টাকা চিকিৎসা সাহায্য চেয়ে একটি বিকাশ নাম্বার দেওয়া হয়। বিপুল বিশ^াস করে উক্ত ওয়াটস আপে দেওয়া বিকাশা নাম্বারে দু’ দফা ২৫ হাজার করে ৫০ হাজার টাকা প্রদান করেন। পরবর্তীতে উক্ত নাম্বারে ফোন করে বিপুল খোলা পাইনি। সে বিষয়টি র‌্যাব হেডকোয়ার্টারে জানায়। র‌্যাব হেড কোয়ার্টারের একটি টিম তাদের অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতির সাহায্যে উক্ত নাম্বারের ব্যক্তি হোসেন আলীকে যশোর সদর উপজেলার চুড়ামনকাটি তিন রাস্তার মোড় থেকে ২৮ সেপ্টেম্বর আটক করে। তার কাছ থেকে সহযোগী আল আমিনের নাম পান। আল আমিনসহ এই চক্রে যারা জড়িত তাদের আটকের র‌্যাব তৎপর রয়েছেন। এদিকে বিপুলের দায়ের করা মামলায় আসামী হোসেন আলীকে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই সেকেন্দার আবু জাফর মঙ্গলবার আদালতে সোপর্দ করেছে। তাকে রিমান্ডে আনা হবে বলে জানাগেছে।