প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে ঘুষ গ্রহণের অভিযোগ,একপ্রার্থীর আত্মহত্যার হুমকিতে নিয়োগ পরীক্ষা স্থগিত

0
136

পাটকেলঘাটায় কুমিরা পাইলট মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়…..

রিপন হোসাইন,পাটকেলঘাটা : আমার চাকরী দিতে হবে, ভিটে বাড়ি বিক্রি করে সাড়ে ৮ লাখ টাকার চুক্তিতে হেড স্যারের হাতে ১ লাখ ৫০ হাজার টাকা দিয়েছি। হেড স্যার পরীক্ষার আগের দিন প্রশ্নপত্র দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিলেও প্রশ্নপত্র না দেওয়ায় হতাশ হয়ে বলে চাকরী না হলে আমি সর্বশান্ত হয়ে যাব। আমার বাঁচার কোন পথ নেই। এখন আত্মহত্যা ছাড়া আর কোন উপায় নেই। এসব কথা বলতে বলতে বিদ্যালয় নিয়োগ বোর্ডের সামনে বারান্দার মেঝেতে শুয়ে পড়ে হাও-মাও করে কাদতে থাকেন কুমিরা গ্রামের সঞ্জীব ঘোষের পুত্র নিয়োগ প্রার্থী তাপস ঘোষ। তাকে শান্ত করার জন্য বিদ্যালয়ের পরিচালনা ও নিয়োগ বোর্ডের সভাপতি, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ঘোষ সনৎ কুমার একাধিকবার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়ে অবশেষে প্রধান শিক্ষকের কাছে দেওয়া দেড় লাখ টাকা ২ মাস পর ফেরত দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিলেও কোন কথায় কাজ হয়নি। এনিয়ে বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে অশান্তি সৃষ্টি হলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়। একপর্যায়ে বিদ্যালয়ের দাতা সদস্য রফিকুল ইসলাম মোড়ল ঐ প্রার্থীর কাকা মধুসূদন ঘোষ, পল্লী চিকিৎসক কমল কান্তি মল্লিক, পাটকেলঘাটা থানার এসআই কৃষ্ণপদ, এএসআই মশিউর রহমান সহ অনেকে ঐ প্রার্থীকে শান্ত করার চেষ্টা করে ব্যর্থ হন। অবশেষে বিষয়টি জেলা প্রশাসকের হস্তক্ষেপে পরীক্ষা স্থগিত করা হয়। এব্যাপারে প্রধান শিক্ষকের সাথে কথা হলে তিনি হতবাক হন এবং তার বিরুদ্ধে সব অভিযোগ অস্বীকার করেন। জানা যায়, উপজেলার কুমিরা পাইলট মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর পদে নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। এরই প্রেক্ষিতে ১৯ জন প্রার্থী আবেদন পত্র জমা দেন। যাচাই বাছাই শেষে ১২ সেপ্টেম্বর সকাল ১০ টায় পরীক্ষা গ্রহণের জন্য বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ সকলকে পত্র প্রদান করেন। এদিকে পরীক্ষা অনুষ্ঠানের জন্য পরীক্ষার নিয়োগ বোর্ডের কর্মকর্তা ডিজি প্রতিনিধি তালা বি.দে সরকারী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বেগম রোজিনা খাতুন, মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধি উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ আতিয়ার রহমান, দাতা সদস্য মোঃ রফিকুল ইসলাম মোড়ল, সদস্য সচিব ও প্রধান শিক্ষক গৌতম কুমার দাশ এবং নিয়োগ বোর্ডের সভাপতি উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ঘোষ সনৎ কুমার নিয়োগ বোর্ডে উপস্থিত হলেন ক্ষতিগ্রস্থ প্রার্থী তাপস ঘোষ বারান্দার মেঝেতে শুয়ে পড়ে হাওমাও করে কান্নাকাটি করতে থাকেন। বিষয়টি তিনি শান্ত করার জন্য বারবার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন। অবশেষে জেলা প্রশাসকের নির্দেশে নিয়োগ পরীক্ষা স্থগিত করা হয়।