প্রমাণের দায় কেন ধর্ষিতার?

0
200

রাজধানীর বনানীস্থ রেইনট্রি হোটেলে দুই বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রী ধর্ষিত হওয়ার বর্বরোচিত ঘটনায় ধর্ষক ও তাদের সহযোগীরা গ্রেফতার হয়েছে। তারা ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে অপরাধ স্বীকার করেছে। কিন্তু গত বৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের ঢাকা মেডিকেল কলেজের ফরেনসিক বিভাগের চিকিৎসকরা বলেছেন, দুই ছাত্রীর স্বাস্থ্য পরীক্ষায় ধর্ষণের আলামত মেলেনি। এমন অভিমতের কারণ_ ঘটনার অন্তত ৪০ দিন পর স্বাস্থ্য পরীক্ষা হয়েছে। ধর্ষিতাদের শরীরেও ইনজুরির চিহ্ন পাওয়া যায়নি। বলা যায়, চিকিৎসকরা গতানুগতিক ভাষ্য দিয়েছেন। অন্যদিকে, পুলিশ সূত্র বলছে, তারা সাক্ষ্য-প্রমাণ পেয়েছেন যে, ২৮ মার্চ অভিজাত ওই হোটেলে ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। প্রতারণা করে দুই ছাত্রীকে পূর্বপরিচয়ের সূত্রে নিয়ে গিয়েছিল কিছু দুর্বৃত্ত, যাদের রয়েছে অঢেল অর্থ এবং দুষ্টবুদ্ধি। হোটেলের মালিক পক্ষও রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিকভাবে প্রভাবশালী। ঘটনা প্রকাশের পর সংবাদ সম্মেলন করে হোটেল কর্তৃপক্ষ যে বক্তব্য রাখে, তাতে অভিযুক্তদের বাঁচানোর চেষ্টা ছিল বলে অভিযোগ উঠেছে। ধর্ষণের অভিযোগ নিয়ে দুই ছাত্রী বনানী থানায় যাওয়ার পর সেখানের কর্তৃপক্ষ প্রথমে মামলা নিতে চায়নি_ এটা স্পষ্ট। থানার একাধিক কর্মকর্তাকে লঘু শাস্তি দেওয়ার ঘটনা থেকেও বিষয়টির প্রমাণ মেলে। এখন নতুন করে প্রশ্ন উঠবে, ফরেনসিক রিপোর্টকে অভিযুক্তরা নিজেদের বাঁচানোর হাতিয়ার করবে? চিকিৎসকরা বলেছেন, ঘটনার ৪০ দিন পর স্বাস্থ্য পরীক্ষা হওয়ার কারণে প্রমাণ পাওয়া যায়নি। এ কারণে ওই দুই ছাত্রী ধর্ষিত হয়েছে কি-না, সেটা তারা বলতে পারছেন না। তারা হয়তো ‘চিকিৎসা বিজ্ঞানে’র প্রতি অনুগত থেকেই এমন মন্তব্য করেছেন। তবে সঙ্গত কারণেই প্রশ্ন উঠবে_ ধর্ষণের আলামত সংগ্রহ করে রাখার দায় একান্তভাবেই ধর্ষিতার, এ উদ্ভট ব্যবস্থার ওপর আর কতকাল নির্ভর করে থাকতে হবে? এ ব্যবস্থায় কেউ ধর্ষিত হওয়ার পর তাকে ক্ষিপ্রগতিতে ছুটতে হবে কোনো থানা কর্তৃপক্ষের কাছে। সেখানে পুলিশকে বোঝাতে হবে যে, প্রকৃতই সে ধর্ষিত হয়েছে। পুলিশ দয়া-করুণাবশত কিংবা অন্য কোনো কারণে এফআইআর করায় রাজি হলে ধর্ষিতাকে পাঠানো হবে সরকারি কোনো হাসপাতালে ফরেনসিক পরীক্ষার জন্য। থানা ও হাসপাতালে ধর্ষিতার ছোটাছুটির সময় অভিযুক্তরা আর্থিক, সামাজিক ও রাজনৈতিক প্রভাব খাটিয়ে বিষয়টি ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করে_ এমন খবর নিয়মিত আসে গণমাধ্যমে। এসব জটিল, সময়সাপেক্ষ প্রক্রিয়া চূড়ান্ত বিচারে ধর্ষণের শিকারদের ন্যায়বিচার থেকে বঞ্চিত রাখার সহায়ক হয়। চিকিৎসকরা বলবেন, বিজ্ঞান আমাদের হাত-পা বেঁধে রেখেছে। পুলিশ বলবে, আইনের বাইরে যাওয়ার উপায় নেই। ধর্ষক-পাষণ্ডদের তো এটাই কাম্য। তারা দম্ভভরে বলবে_ বিচারিক প্রক্রিয়ায় প্রমাণ হয়েছে যে, আমরা নির্দোষ। এমন পঙ্কিল ঘূর্ণিপাক থেকে কি আমাদের মুক্তি নেই? সমাজের শুভবুদ্ধিসম্পন্ন সব পক্ষের সম্মিলিত চেষ্টায় এ পঙ্কিল ঘূর্ণাবর্ত থেকে আমরা নিশ্চয়ই মুক্তির পথ খুঁজে পেতে পারি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here