প্রশ্নপত্র ফাঁস ও তরুণ প্রজন্মের হতাশা

0
301

দেশে প্রশ্নপত্র ফাঁস এখন যেন মামুলি বিষয় হইয়া দাঁড়াইয়াছে। ইহা আমাদের দেশকে ধ্বংসের কিনারে নিয়া যাইতেছে। মেধাবী শিক্ষার্থী ও চাকুরিপ্রার্থীরা ইহাতে যারপরনাই হতাশ। ইহা যেন মহামারী আকার ধারণ করিয়াছে। অথচ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ ব্যাপারটিকে গ্রাহ্য করিতেছেন বলিয়া মনে হইতেছে না। একশ্রেণির লোভী ও বিবেকহীন মানুষ এতটাই দিগ্বিদিক জ্ঞানশূন্য হইয়া পড়িয়াছেন যে, তাহারা দেশ ও জাতিকে ধ্বংসের মুখে ঠেলিয়া দিতে বিন্দুমাত্র কুণ্ঠিত হইতেছেন না। কেননা আজকের তরুণরাই আমাদের ভবিষ্যত্। তাহাদের হতাশায় রাখিয়া কোনো দেশ কস্মিনকালেও উন্নতি করিতে পারে না। পাবলিক পরীক্ষার মতো এখন হরহামেশা নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্নপত্রও ফাঁস হইতেছে। এই দুঃখ ও লজ্জা আমরা কোথায় রাখি? সরকারি জনতা ব্যাংকে নিয়োগের লিখিত পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনা এক মাসও হয় নাই। ইহারই মধ্যে গত শুক্রবার আরেকটি রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংক অর্থাত্ অগ্রণী ব্যাংকে নিয়োগের প্রিলিমিনারি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁস হইবার ঘটনা ঘটিল। এই প্রশ্নপত্র ফাঁসকারীদের দৌরাত্ম্য বন্ধ করা না গেলে আমরা এখন যে উন্নয়নের মহাসড়কে রহিয়াছি, তাহা হইতে ছিটকাইয়া পড়িতে সময় লাগিবে না।

উল্লেখ্য, অগ্রণী ব্যাংকে ২৬২টি সিনিয়র অফিসার পদের বিপরীতে নিয়োগ পরীক্ষায় প্রার্থী ছিল দুই লক্ষাধিক। আমরা শিক্ষিত তরুণ-তরুণীদের মাঝে বিরাজমান ভয়াবহ বেকারত্বের যে কথা বলিয়া আসিতেছি দীর্ঘদিন ধরিয়া এই প্রার্থী সংখ্যাটি তাহারই প্রমাণ। এই বিপুল সংখ্যক প্রার্থীকে সামলাইতে সকাল ও বিকাল দুই বেলার শিফটে পরীক্ষা নেওয়ার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়। কিন্তু পরীক্ষার্থীদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী উভয় শিফটের পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র ফাঁস হইয়াছে। প্রশ্নপত্র ফাঁস হইবার পর তাহা দ্রুত ও ব্যাপকভাবে ছড়াইয়া পড়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। পরীক্ষার প্রায় দুই ঘণ্টা আগে দ্বিতীয় শিফটের পরীক্ষা স্থগিত করা হইলেও সকালের পরীক্ষা বাতিল না করায় পরীক্ষার্থীদের মাঝে ক্ষোভ বাড়িতেছে। যদি প্রথম শিফটেও প্রশ্নপত্র ফাঁস হয় আর তাহা বাতিল না করা হয়, তাহা হইলে মেধা মূল্যায়নের ক্ষেত্রে বৈষম্য সৃষ্টি হওয়াটাই স্বাভাবিক।

বর্তমানে রাষ্ট্রায়ত্ত সব ব্যাংকে নিয়োগের যাবতীয় বিষয় এখন ব্যাংকার্স সিলেকশন কমিটির (বিএসসি) মাধ্যমে সম্পন্ন হইতেছে যাহা বাংলাদেশ ব্যাংকের অধীন। ফলে এই নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁস হইলেও ইহাতে অগ্রণী ব্যাংকের কোনো দায়-দায়িত্ব নাই। এইজন্য সিলেকশন কমিটিকে দায়ী করা যায়। এই কমিটি আবার অধিকাংশ সময় পালন করে সাচিবিক দায়িত্ব। যেমন— তাহারা এই পরীক্ষার সার্বিক ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব আউটসোর্সিংয়ের মাধ্যমে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যাংকিং অ্যান্ড ইন্স্যুরেন্স বিভাগের ওপর অর্পণ করে। কিন্তু প্রশ্নপত্র ফাঁস হওয়ায় বাংলাদেশ ব্যাংক ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় উভয়েরই ভাবমূর্তি প্রশ্নবিদ্ধ হইয়াছে। বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংকের নিয়োগ পরীক্ষার দায়িত্বও একই বিভাগ পালন করে এবং সেইক্ষেত্রেও প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগ উঠিয়াছিল।

সুতরাং প্রশ্ন প্রণয়ন হইতে শুরু করিয়া পরীক্ষা গ্রহণ পর্যন্ত নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা আবশ্যক। মনে রাখা আবশ্যক যে দূর-দূরান্ত হইতে পরীক্ষার্থীরা পরীক্ষা দিতে আসেন। উদভূত পরিস্থিতিতে পরীক্ষা বাতিল হওয়ায় তাহারা যেমন ভোগান্তিতে পড়েন, তেমনি আর্থিকভাবেও ক্ষতিগ্রস্ত হন। সুতরাং এইসব পরীক্ষার্থী ক্ষতিপূরণ পাইবার অধিকার রাখেন। আর প্রশ্নপত্র ফাঁসকারী মূল হোতাদের গ্রেফতার করিয়া কঠোর শাস্তি দিতে না পারিলে এই পরিস্থিতিরও অবসান হইবে না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here