প্রাকৃতিক বিপর্যয় ও অর্থনৈতিক চ্যালেঞ্জ

0
263

ড. মুহম্মদ মাহবুব আলী : প্রকৃতির বৈরিতা মানুষের অর্থনৈতিক ক্ষয়ক্ষতির অন্যতম কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এতে সামষ্টিক অর্থনীতি এবং ব্যাস্টিক অর্থনীতির ভিত্তি দুর্বল হয়ে পড়ে। সম্প্রতি হাওর অঞ্চলে প্রকৃতির বৈরিতার কারণে ব্যাপক শস্যহানি ঘটেছে, মানুষের দুর্ভোগের সীমা-পরিসীমা নেই। আবার পার্বত্য অঞ্চলে পাহাড় ধসে মানুষ মারা যাচ্ছে। স্বল্প পরিমাণে বৃষ্টি হলেই ঢাকা শহরে হাঁটু সমান পানি জমে যায়। আর চট্টগ্রাম নগরীতে বৃষ্টি মানেই নদীর সৃষ্টি হওয়া। আসলে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনায় আমরা বরাবরই পারঙ্গম। কিন্তু প্রকৃতি যখন বৈরি হয়ে ওঠে তখন মানুষের কিছুই করার থাকে না। তবে প্রাকৃতিক পরিবর্তনশীলতায় আবহাওয়ায় পরিবর্তন ঘটছে। এ পরিবর্তনের কারণে বন্যায় জামালপুর, নীলফামারী, লালমনিরহাট, ঠাকুরগাঁও, রংপুর, সুনামগঞ্জ, কুড়িগ্রাম, দিনাজপুর, নওগাঁ, সিরাজগঞ্জে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির খবর পাওয়া গেছে। বহিস্থ কারণসমূহের পাশাপাশি আমাদের দেশের অভ্যন্তরীণ কিছু কারণও রয়েছে। পাহাড়ি এলাকায় যেভাবে পাহাড় কেটে বসতি স্থাপন করা হয় তাতে প্রকৃতির বৈরি হওয়াটাই স্বাভাবিক। প্রকৃতির নির্মমতা আপন গতিতে প্রতিশোধ নেয়। প্রকৃতির বৈরিতার কারণে মানুষের জীবনে সামাজিক অর্থনৈতিক কষ্ট নেমে আসে।

দেশে জনসংখ্যার ঊর্ধ্বগতির সাথে সাথে নদী ব্যবস্থাপনায় পলি জমে ভরাট হয়ে যাওয়া, ভূমি দুস্যদের কারণে ভূমি দখল এবং বর্জ্য নিষ্কাশন পদ্ধতির অব্যবস্থাপনার কারণে খাল, বিল, নদী-নালা যেভাবে বন্ধ হয়ে যাচ্ছে তাতে মানুষের উন্নত জীবনের আশা-ভরসা সব কিন্তু প্রকৃতির বৈরিতায় বিনষ্ট হতে পারে। সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনার অভাবে এবং দখলি মনোভাবের কারণে ঢাকা নগরী একটু বৃষ্টিতেই পানিতে তলিয়ে যাচ্ছে। একজন নগরবাসী ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে আর দশজন সাধারণ মানুষের ক্ষতি করছে। এর ফলে মানুষের স্বাভাবিক জীবনযাত্রা কেবল ব্যাহত হয় না, ট্রাফিক জ্যামের ভয়াবহতা দুঃসহ হয়ে ওঠে। আর কর্মক্ষেত্রে উত্পাদনশীলতা ও শ্রম ঘনত্ব কমার পাশাপাশি প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি বিনষ্ট হয়। সরকার যখন ঢাকা নগরীকে পরিকল্পিত নগরী হিসেবে গড়ে তুলতে চেষ্টা করেন তখন তা বানচাল হয়ে যেতে পারে। কেননা ক্ষমতাশালীরা নিজেদের জবাবদিহিতার ঊর্ধ্বে মনে করেন। তারা সিটি করপোরেশন কিংবা রাজউক কাউকেই গ্রাহ্য করেন না। গত সাড়ে আটবছর ধরে ট্রাফিক জ্যাম কমানোর জন্য যে সমস্ত ওভারব্রিজ তৈরি করছে তা প্রশংসনীয়। কিন্তু জবর দখলকারীরা বারবার নিজ স্বার্থে মানুষের ক্ষতি করছেন। এমনকি রাজউক থেকে প্ল্যান পাস করে অন্যভাবে বাড়ি তৈরি করছেন। ঢাকা নগরীকে তিলোত্তমা করার প্রয়াস সরকার নিয়েছে। কিন্তু বাস্তবায়ন করতে হলে যারা জোর-জবর দখলকারী, তাদের ক্ষমতার রাশ টেনে ধরতে হবে। ড্রেনেজ সিস্টেমকে ঢাকা মহানগরীর ওয়ান স্টপ সার্ভিসের আওতায় আনতে হবে। আবার বর্ষাকাল এলেই যে রাস্তা খোঁড়াখুঁড়ি তা বন্ধ করতে হবে।

এদিকে চট্টগ্রাম নগরীর জলাবদ্ধতা বন্ধ করার জন্য ক্রাশ প্রোগ্রাম নেয়া দরকার। এই জলাবদ্ধতার ভয়াবহতা একদিনে হয়নি। চাত্তাই খাল পুনরুদ্ধার করা দরকার। চট্টগ্রাম নগরীর উন্নয়নের কাজে আমলাতান্ত্রিক জটিলতা যে বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে সেটি দূর হওয়া দরকার।

অবাধে পাহাড় কাটা বন্ধ করতে হবে। কিন্তু দুর্ভাগ্য যে, ক্ষমতাশালীরা নিজ স্বার্থে ঠুলি পরিয়ে রাখতে চায়। একারণে দেখা যায় সরকারের নির্দেশ অগ্রাহ্য করে চট্টগ্রাম, পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলে অবাধে পাহাড় নিধন চলছে। ফলে ভুক্তভোগী হচ্ছে সাধারণ মানুষ। জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে মানুষ এক স্থান থেকে অন্য স্থানে যেতে বাধ্য হয়। এর ফলে সামাজিক ও অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে ক্ষয়ক্ষতির সীমা-পরিসীমা থাকছে না। যদি বাংলাদেশ ওয়াটার ডেভেলপমেন্ট বোর্ডের কর্মকাণ্ডকে জবাবদিহিতা, স্বচ্ছতা ও ন্যায়পরায়ণতার আওতায় আনা যেত তবে নিশ্চয়ই এ ধরনের অবস্থা হতো না। দেশের বিভিন্ন প্রান্তে জলাবদ্ধতার কারণে সাধারণ মানুষের ক্ষয়ক্ষতি হচ্ছে। প্রাকৃতিক বিপর্যয় ও জলবায়ু পরিবর্তনজনিত কারণে যখন কোনো দুর্যোগ ঘটে তখন মানুষের জীবনে ভোগান্তির সীমা পরিসীমা থাকে না। ক্লার্ক এ গ্রে এবং ভেলারি মুলার তাদের এক গবেষণায় দেখিয়েছেন যে, বাংলাদেশে ১৫ বছর ধরে গ্রামীণ অঞ্চলে ১৭০০ বসতির ক্ষেত্রে দেখা যায় যে বন্যার কারণে ফসলহানি এবং নারী শিশু ও দরিদ্ররা ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে থাকেন। কিন্তু শস্যহানি যদি বন্যা ছাড়া অন্য কোনো কারণে ঘটে থাকে তবে সে স্থানের মানুষ অন্যত্র চলে যায় অথবা পরিবর্তনশীলতার কারণে খাপ খেয়ে নিতে বাধ্য হয়। প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের কারণে মানুষের মধ্যে অসাম্য বেড়ে যায়। আবহাওয়াজনিত দুর্যোগের ক্ষেত্রে মানবসৃষ্ট পদক্ষেপ কম দায়ী নয়। অথচ আবহাওয়ার কারণে প্রকৃতি যে বৈরি হচ্ছে তা বাংলাদেশের সাথে উন্নত দেশের পার্থক্য আছে। সেখানে কার্বন নিঃসারণ ঘটছে। অথচ কার্বন নিঃসরণের মাত্রা কমানো নিয়ে সম্প্রতি শিল্পোন্নত দেশগুলোর মধ্যে এ ব্যাপারে মতদ্বৈততা প্রকাশ্য হয়ে উঠেছে। এ বছর ইতালিতে অনুষ্ঠিত পরিবেশ মন্ত্রীদের বৈঠকে জি-৭ জলবায়ু পরিবর্তন নিয়ে তাদের নিজেদের অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত করছে। অবশ্য মার্কিন প্রেসিডেন্ট প্যারিস চুক্তি থেকে সরে আসার কথা ইতঃপূর্বে জানিয়েছেন। আসলে প্রকৃতিকে সুন্দর রাখতে হলে দেশের অভ্যন্তরীণ ও বহিস্থ পরিবেশসহ প্রাকৃতিক পরিবেশ যাতে বজায় থাকে সেদিকে লক্ষ রাখা দরকার। প্রকৃতির যে প্রতিশোধ তা বড় নির্মম। উত্তরাঞ্চলের বন্যা পরিস্থিতি মোকাবেলায় আমাদেরকে যথাযথ পদক্ষেপ নিতে হবে। কেবল সরকার নয়— বেসরকারি উদ্যোগও দরকার। ছেলেবেলায় ইতিহাসে পড়েছিলাম মহেনজোদারো ও হরপ্পা-তে সে যুগে উন্নত সভ্যতার বিকাশ ঘটলেও জলাবদ্ধতার কারণে প্রাকৃতিক বিপর্যয় নেমে এসেছিল। বিশ্বব্যাপী আবহাওয়ার যে পরিবর্তন হচ্ছে তা কিন্তু হিমালয়কেও ক্ষতিগ্রস্ত করছে। সমুদ্র পৃষ্ঠের পানির স্তরের উচ্চতা আবহাওয়া পরিবর্তনজনিত কারণে বৃদ্ধি পাচ্ছে। বস্তুত বিশ্ব প্রকৃতির ভারসাম্যহীনতার কারণে বাংলাদেশের উপকূলীয় অঞ্চলের সামাজিক অর্থনৈতিক ক্ষতি হচ্ছে। বাংলাদেশের ডেল্টা এলাকার মানুষজনের জীবনযাত্রা ও জীবিকার ক্ষেত্রে ব্যাপক পরিবর্তন আসতে শুরু করেছে। বিশ্বব্যাংকের এক পরিসংখ্যানে বলা হয়েছে— দক্ষিণ এশিয়ার দরিদ্ররা আরো দরিদ্র হবে। এ অঞ্চলের ৩০ থেকে ৪০ মিলিয়ন লোক ২০৫০ সাল নাগাদ ক্ষতিগ্রস্ত হবে। এদিকে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফসর মার্ক নিউ তার গবেষণায় দেখিয়েছেন যে, গত ৩০ বছরে হিমালয়ের পূর্বাঞ্চলে ৩০ শতাংশের মতো তুষারপাত এবং বরফের আস্তরণ সরে গেছে। ফলে হিমালয়ের পূর্বাঞ্চলে যে সমস্ত নদী উত্পন্ন হয়ে বাংলাদেশে এসেছে সেগুলো ক্ষতির সম্মুখীন হবে। এদেশে দেখা যাচ্ছে যে, আবহাওয়াজনিত কারণে বৃষ্টিপাতের ক্ষেত্রেও ব্যাপক পরিবর্তন সাধিত হয়েছে। সাইক্লোনের গতি প্রকৃতিতে পরিবর্তন ঘটেছে এবং সমুদ্রের পানির স্তর উচ্চ হয়েছে। উপকূলীয় অঞ্চলে মিঠা পানির অভাব দেখা দিয়েছে। কৃষি এবং মত্স্য উত্পাদনের ক্ষেত্রেও পরিবর্তন এসেছে। এমনকি উষ্ণ পানি সহিষ্ণু এলাকায় পশুপালনের ধরনের ব্যাপক পরিবর্তন এসেছে। বাধ্য হয়ে মানুষ যারা সুযোগ পাচ্ছেন তারা এক স্থান থেকে অন্য স্থানে চলে যাচ্ছেন। আর যারা পারছেন না তারা সে স্থানে থেকে প্রকৃতির বৈরিতার সাথে লড়াই করে জীবন ধারণে বাধ্য হচ্ছেন। উষ্ণ লবণাক্ততা পানির সাথে খাপ খাইয়ে কৃষি ও পশুপালন হচ্ছে। আসলে মানুষের যখন দেয়ালে পিঠ ঠেকে যায়, তখন “ডিসরাপটিভ টেকনোলজির” উদ্ভাবন ঘটে থাকে। প্রাকৃতিক পরিবর্তনশীলতার সাথে খাপ খাওয়ানো এবং গ্রিন হাউস গ্যাস হ্রাস করার জন্য সরকার দেশে বিভিন্ন পদেক্ষেপ গ্রহণ করেছে। আবহাওয়া পরিবর্তনজনিত ফান্ড তৈরি করেছে। তবে এক্ষেত্রে কেবল জনসচেতনতা নয়, বরং প্রতিটি মানুষকে বিবেকবোধে উজ্জীবিত হতে হবে। প্রতিবছর যে নদীর ড্রেজিং হয়, সে ড্রেজিং-এর অধিকাংশই কিন্তু কাগজে-কলমে দেখানো হলেও প্রকৃত অর্থে কাজ হয় না বলে পত্রিকান্তরে প্রকাশিত রিপোর্টে দেখা যায়। যেখানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে মাথাপিছু কার্বন ডাই-অক্সাইড হচ্ছে ২০ টন, সেখানে বাংলাদেশে হচ্ছে ০.৩ টন। আসলে বৈশ্বিক জলবায়ু পরিবর্তনের সাথে দেশের জলবায়ু পরিবর্তনের ধরন অঙ্গাঙ্গিভাবে জড়িত। এজন্যই বৈশ্বিক সাহায্য-সহযোগিতা দরকার। স্থায়ীত্বশীল উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রায় যেখানে প্রাকৃতিক বিপর্যয় রোধ করে এ ধরিত্রীকে মানুষের বসবাসযোগ্য করার কথা বলা হয়েছে— সেখানে নিজেরা সচেতন হলেই হবে না, প্রকৃতির ভারসাম্য রক্ষায় সক্রিয়ও হতে হবে। পক্ষান্তরে বৈশ্বিক সাহায্য-সহযোগিতা অবশ্যই প্রয়োজন। এবারে হাওর অঞ্চলের ক্ষতিতে ২০ মিলিয়ন মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। দুই লক্ষ হেক্টর জমির ফসল ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, যার ফলে আট লক্ষ মেট্রিক টন চালের উত্পাদন ব্যাহত হয়েছে। হাওর অঞ্চলের মত্স্যজীবীরাও মারাত্মক ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছেন। হাঁস-মুরগি আর গবাদিপশুর ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। স্বাস্থ্যজনিত ক্ষতিও হয়েছে। সরকার অবশ্য পিকেএসএফ-এর মাধ্যমে চেষ্টা করছেন দুর্গতদের মধ্যে সাহায্য পৌঁছে দেয়ার। কিন্তু একটি দীর্ঘমেয়াদী হোলিস্টিক এ্যাপ্রোচের আওতায় হাওরবাসীর জন্যে যথাযথ গ্রহণ করতে হবে। প্রাকৃতিক বিপর্যয় রুখতে সম্মিলিত প্রয়াস দরকার। নানা সীমাবদ্ধতা সত্ত্বেও সরকার প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবিলায় সক্ষমতার পরিচয় দিচ্ছে।

লেখক: ম্যাক্রো ও ফিন্যান্সিয়াল ইকোনোমিস্ট

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here