প্রেমিকার সঙ্গে প্রথম বার ঘনিষ্ঠ হওয়ার মুহূর্তে কী ভাবেন ছেলেরা

0
68

নিজস্ব সংবাদদাতা : নতুন সম্পর্ক, নানা রকম নতুন অনুভূতি। তার মধ্যে অন্যতম অবশ্যই প্রথম বার ঘনিষ্ঠ হওয়ার মুহূর্তগুলি। সুস্থ আনন্দময় যৌনজীবন যে কোনও প্রেমের সম্পর্কের জন্য যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু যে কোনও নতুন সম্পর্ক হলে দু’জনেই এই মুহূর্ত নিয়ে মানসিক ভাবে অনেক বেশি চাপে থাকেন। কী ভাল লাগবে, কী খারাপ লাগবে, খুব তিক্ত অভিজ্ঞতা হয়ে গেলে, তা থেকে বেরোনো যাবে কী করে— এই ধরনের নানা অহেতুক চিন্তা ভি়ড় করে সকলের মনে। তবে এই পরিস্থিতিতে যে এক জন ছেলে এবং এক জন মেয়ে একটু হলেও অন্য ভাবে চিন্তা করেন, তা নিয়ে কোনও রকম দ্বিমত হয় না। বিশেষ করে ছেলেরা এই মুহূর্তে কী ভাবেন, তা নিয়ে খানিকটা ধোঁয়াসা থেকেই যায়। কারণ তাঁরা এই নিয়ে বিশেষ আলোচনা করতে স্বচ্ছন্দবোধ করেন না। কিন্তু কী নিয়ে চিন্তা করেন তাঁরা? রইল কিছু সম্ভাবনা।

ছেলেরা সাধারণত সব সময়েই প্রস্তুত থাকেন যে কোনও রকমের পরিস্থিতির জন্য। তাই সঙ্গে কন্ডোম রাখেন অনেক পুরুষই। কিন্তু ঠিক ঘনিষ্ঠ মুহূর্তের আগে তাঁদের মনে, কন্ডোম ঠিক কোথায় রয়েছে তা নিয়ে নানা রকম উদ্বেগ তৈরি হয়। মানি ব্যাগ, না প্যান্টের পকেট নাকি খাটের পাশের ড্রয়ার, ঠিক কোথায় রয়েছে কন্ডোম এবং ঠিক কোন সময়ে বার করা উচিত— এই সব ভাবনা চলতে থাকে তাঁর মনে।

প্রতিক্রিয়া কী রকম হবে

প্রতি মুহূর্তে সঙ্গী উপভোগ করছেন কি না, তা নিয়েও মানসিক চাপে থাকেন ছেলেরা। তাই ঘনিষ্ঠ মুহূর্তে মেয়েদের অভিব্যক্তিগুলি খুঁটিয়ে নজর রাখেন ছেলেরা। যাতে তাঁরা বুঝতে পারেন, প্রতিক্রিয়া কেমন হচ্ছে।

ঘর কি পরিষ্কার

প্রথম বার ঘনিষ্ঠ মুহূর্ত কাটানোর জন্য কোন জায়গা বাছা হয়েছে? মেয়েরা এই নিয়ে যতটা চিন্তায় থাকেন, ততটাই থাকেন ছেলেরাও। যদি সেই জায়গাটি হয় তাঁর ঘর, তা হলে তো বটেই। সাধারণত মেয়েরা একটু বেশি পরিচ্ছন্ন হন। অপরিষ্কার জায়গায় অবশ্য এই ধরনে পরিবেশ সৃষ্টি হওয়াও বেশ কষ্টকর। তাই যদি আগে থেকে আভাস পান ছেলেরা, তবে খানিকটা হলেও ঘর পরিষ্কার করে রাখার চেষ্টা করেন।

শরীরের খুঁটিনাটি

প্রথম বারের অভিজ্ঞতায় উত্তেজনা, কৌতূহল এবং উৎসাহ— সব অনেক বেশি থাকে। প্রত্যেকেই সঙ্গীর সঙ্গে এই মুহূর্তগুলি কেমন হতে পারে, সেই প্রত্যাশা নিয়ে মনের মধ্যে একটি ছবি এঁকে ফেলেন। প্রথম বার বিছানায় সেই ছবি মিলছে কি না, তা অবশ্যই মিলিয়ে নেন দু’পক্ষ। ছেলেরা সাধারণত মেয়েদের শরীরের সব রকম খুঁটিনাটি লক্ষ্য করেন। কোথায় তিল, কোথায় জন্মদাগ, কোথায় উল্কি— সব জিনিস খুঁটিয়ে দেখে মনে মনে নোট করে নেন তাঁরা।

কে কতটা উদ্যোগী

প্রত্যেকটা মুহূর্তে কে উদ্যোগী হচ্ছেন? কে কতটা এগোচ্ছেন, কে নিজেকে কখন গুটিয়ে নিচ্ছেন, এগুলি সাধারণত দু’পক্ষই লক্ষ্য করেন। কিন্তু ছেলেরা একটু বেশি লক্ষ্য করে মেয়েদের উৎসাহ। প্রত্যেক মুহূর্তে যদি ছেলেদেরই উদ্যোগী হতে হয় এবং মেয়েরা শুধু নতুন কিছুর প্রত্যাশায় চুপচাপ থাকেন, তা হলে অনেক ছেলেই তা খুব একটা পছন্দ করেন না। তাঁরা খানিক বিভ্রান্তও হয়ে পড়েন এমন ক্ষেত্রে। কী করণীয়, তা ভাবতে হয় তাঁদের।