প্রেসক্লাব যশোরে মারপিটের অভিযোগ করলো পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রী

0
332

নিজস্ব প্রতিবেদক : পড়া না পারায় স্কুলের পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রীর হাতের তালুতে লাঠি দিয়ে মেরেছেন। দীর্ঘদিন ধরে ওই শিক্ষক একই ঘটনা ঘটলে ছাত্রীদের অভিভাবকরা শরীরে অন্য স্থানে মারার অনুরোধ করতে গেলে তার সাথে দুর্ব্যবহার করেছেন। যশোর শহরের জেল রোড বেলতলা বনফুল প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্রী রাবেয়া খাতুন মায়া ও তার পিতা আনোয়ার হোসেন শনিবার সন্ধ্যায় প্রেসক্লাব যশোরে এসে এ অভিযোগ করেন।

ঘোপ জেল রোড এলাকার রফিকুল ইসলামের বাড়ির ভাড়াটিয়া আনোয়ার হোসেন জানান, তার মেয়ে বনফুল স্কুলের পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রী। সে অংকে খুব দুর্বল। আর অংক না পারলে ওই স্কুলের প্রধান শিক্ষক নাসিমা খাতুন লাঠি দিয়ে হাতের তালুতে মারেন। মারার পর তার চোখ দিয়ে অবিরত ভাবে পানি পড়ে। স্কুল ছাত্রী মায়া ইতোপূর্বে শরীরে অন্যস্থানে মারার অনুরোধ করলেও তিনি তা শোনেননি। গত বুধবার নাসিমা খাতুন আবার মারেন। এরপর সে আর স্কুলে যেতে রাজি হচ্ছে না। এ ঘটনায় শনিবার তিনি নিজে ওই স্কুলে যান এবং প্রধান শিক্ষককে অনুরোধ করতে গেলে তিনি প্রচন্ড দুর্ব্যাবহার করে স্কুল থেকে তাড়িয়ে দেয়ার চেষ্টা করেন।
স্কুল ছাত্রী মায়া তার ডান হাতের বৃদ্ধা আঙ্গুলের ফোলা আঘাতের চিহ্ন দেখিয়ে বলেন, তার ক্লাসে শাপলা খাতুন এখন চশমা ব্যবহার করছেন। তার হাতের তালুতে মারার কারণে প্রথমে চোখ দিয়ে পানি পড়তো। সে চক্ষু বিশেষজ্ঞদের স্মরণাপন্ন হলে তিনি চশমা ব্যবহারের নির্দেশ দিয়েছেন।
এ ব্যাপারে প্রধান শিক্ষক নাসিমা খাতুন জানান, প্রথম সামায়িক পরীক্ষায় ফেল করেছে। তাকে বাড়ি থেকে কয়েকটি অংক করে আনতে বললে তা আনেনি। এ কারণে তার হাতে একটি আঘাত করা হয়েছে। এছাড়া স্কুলের কোন ছাত্রছাত্রীকে মারপিট করা হয়না। আর পিতার সাথে দুব্যবহার করার অভিযোগ সঠিক নয় বলে তিনি দাবি করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here