প্লান্টটি অন্যত্র সরাইয়া নেওয়া হউক

0
228

মাত্রাতিরিক্ত লবণাক্ততাসহ নানা কারণে বরিশালসহ সারা দক্ষিণাঞ্চলে রহিয়াছে বিশুদ্ধ পানির তীব্র সংকট। শুধু বরিশাল নগরীতে প্রতিদিন চার কোটি গ্যালন সুপেয় পানির চাহিদা থাকিলেও সিটি করপোরেশন সরবরাহ করিয়া থাকে মাত্র দুই কোটি গ্যালন। শুষ্ক মৌসুমে পানির স্তর নিচে নামিয়া যাইবার কারণে গভীর রাত্রি ছাড়া কোনো ডিপ টিউবওয়েলেও পানি ওঠে না। এইজন্য প্রধানমন্ত্রীর অগ্রাধিকার প্রকল্পের আওতায় কীর্তনখোলা নদীর তীরবর্তী রূপাতলী ও বেলতলায় ১৬ এমএলডি ক্ষমতাসম্পন্ন দুইটি সারফেজ ওয়াটার ট্রিটমেন্ট প্লান্ট নির্মাণ করা হয়। কিন্তু বিদ্যুত্ সংযোগ দিতে না পারিবার জটিলতায় শেষপর্যন্ত প্লান্ট দুইটি উদ্বোধন করা সম্ভব হয় নাই। প্লান্ট দুইটি চালু হইলে প্রতিদিন আরও তিন কোটি ২০ লক্ষ লিটার বিশুদ্ধ পানি উত্পাদিত হইত। ইহাতে সাত লক্ষ জনসংখ্যা অধ্যুষিত নগরীর বাসিন্দাদের পানি সংকট কাটিয়া যাইত বহুলাংশেই। কিন্তু অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক খবর হইল, বিদ্যুত্ সংযোগ নিয়া জটিলতা তো আছেই, এবার ইহার পাশাপাশি বেলতলাস্থ ওয়াটার ট্রিটমেন্ট প্লান্টটি নদীর অব্যাহত ভাঙনে নদীগর্ভে বিলীন হইয়া যাইবার আশঙ্কা দেখা দিয়াছে। ইতোমধ্যে প্লান্টের নদীসংলগ্ন গাইড ওয়াল ভাঙিয়া পড়িয়াছে। সীমানার ভিতরে থাকা বালুর স্তর ধুইয়া যাইতেছে এবং মাটি ভাঙিয়া একেবারে নদীর বুকে তলাইয়া যাওয়ার উপক্রম হইয়াছে যাহা বরিশালবাসীকে উদ্বিগ্ন করিয়া তুলিয়াছে।

ভাঙনকবলিত এলাকায় এই ওয়াটার ট্রিটমেন্ট প্লানটি কেন নির্মাণ করা হইল তাহা নিয়াও প্রশ্ন রহিয়াছে। প্লান্টটি বাস্তবায়ন করিতেছে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর ও বরিশাল সিটি করপোরেশন। তাই দায়-দায়িত্ব তাহাদেরই। এই ব্যাপারে তাহারা পানি উন্নয়ন বোর্ডের কোনো মতামত নেন নাই বলিয়া অভিযোগ উঠিয়াছে। ১৯ কোটি টাকা ব্যয়ে ২০১২ সালে এই প্রকল্পটি গ্রহণ করা হয়। ইহা স্থানীয় সরকার ও পল্লী উন্নয়ন মন্ত্রণালয়ের পানি সরবরাহ, স্যানিটেশন ও ড্রেনেজ নামক বৃহত্ প্রকল্পের অধীন। আসলে এই রকম সমন্বয় ও দূরদৃষ্টির অভাবে দেশের অনেক প্রকল্প হইতে জনগণ কোনো উপকার লাভ করিতে পারিতেছেন না। জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর ও পানি উন্নয়ন বোর্ড এখন ১০ হাজার করিয়া মোট ২০ হাজার জিও ব্যাগ ফেলিয়া ভাঙন প্রতিরোধের চেষ্টা করিতেছে বটে, কিন্তু তাহাতেও শেষ রক্ষা হইতেছে না। ইত্তেফাকে প্রকাশিত ছবিটিই তাহার জ্বলন্ত প্রমাণ।

উপর্যুক্ত পরিস্থিতিতে বেলতলার ওয়াটার ট্রিটমেন্ট প্লান্টটির ভবিষ্যত্ লইয়া নূতন করিয়া চিন্তা-ভাবনা করা জরুরি হইয়া পড়িয়াছে। বলা হইতেছে, কীর্তনখোলা নদীর তীরবর্তী এলাকায় সাড়ে চার হাজার কিলোমিটার বাঁধ নির্মাণের জন্য প্রায় চারশত কোটি টাকার শহর রক্ষা বাঁধ প্রকল্পটি প্রক্রিয়াধীন। এখন ইহা একনেকের সভায় পাস হওয়া দরকার। যদি এই প্রক্রিয়া দ্রুততর করিয়া কার্যকর বাঁধ নির্মাণের ব্যবস্থা করা যায়, তাহা হইলে প্লান্টটি রক্ষা পাইলেও পাইতে পারে। নতুবা ইহা দ্রুত অন্যত্র সরাইয়া নেওয়াই যুক্তিযুক্ত। বলা হইয়া থাকে যে, চাঁদপুর বন্দর রক্ষার জন্য নদীতে বারংবার বাঁধ দেওয়া বাবদ এই যাবত্ যে পরিমাণ অর্থ খরচ হইয়াছে, তাহা দিয়া নূতন একটি বন্দর নির্মাণ করা কঠিন ছিল না। এই বিবেচনায় নদীগর্ভে তলাইয়া যাওয়ার আগেই প্লান্টটি অন্যত্র সরাইয়া নিতে পারিলে ক্ষয়ক্ষতি কিছুটা হইলেও কমিবে বৈকি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here