প্ল্যাজিয়ারিজমের অভিযোগ যবিপ্রবির শিক্ষকের বিরুদ্ধে : তদন্ত কমিটি গঠন

0
47

৭০তম রিজেন্ট বোর্ডের সভা

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ^বিদ্যালয়ের একজন সহযোগী অধ্যাপকের বিরুদ্ধে প্ল্যাজিয়ারিজম বা চৌর্যবৃত্তির গুরুতর অভিযোগ উঠেছে। অভিযোগের প্রেক্ষিতে যবিপ্রবি’র সর্বোচ্চ নীতি-নির্ধারণী ফোরাম রিজেন্ট বোর্ড তদন্ত কমিটি গঠন করেছে। সভায় করোনা পরিস্থিতির সর্বশেষ অবস্থা বিবেচনায় নিয়ে অতিদ্রুত সশরীরে বা অনলাইনে পরীক্ষা গ্রহণের বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।
বৃহস্পতিবার দুপুরে বিশ^বিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের সম্মেলন কক্ষে রিজেন্ট বোর্ডের ৭০তম সভায় সভাপতিত্ব করেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আনোয়ার হোসেন। বৈশ্বিক মহামারীর কারণে সদস্যদের অনেকে জুম অ্যাপসের মাধ্যমে ভার্চুয়ালি এবং অনেকে সশরীরে রিজেন্ট বোর্ডের সভায় অংশ নেন
রিজেন্ট বোর্ডের সভায় জানানো হয়, যবিপ্রবির ইলেক্ট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেক্ট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং (ইইই) বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. ইঞ্জি. মো. আমজাদ হোসেন, নিজের নামে বাংলাদেশের দুটি পত্রিকায় যুক্তরাষ্ট্রের একটি স্বনামধন্য বিশ^বিদ্যালয়ের সহকারী অধ্যাপকের একটি লেখা প্রকাশ করে প্ল্যাজিয়ারিজম করেছেন বলে বিশ^বিদ্যালয় প্রশাসন বরাবর লিখিত অভিযোগ করেন। ঘটনার গুরুত্ব বিবেচনা করে সভায় যবিপ্রবির রিজেন্ট বোর্ডের সদস্য ও সাভারের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব বায়োটেকনোলজির মহাপরিচালক ড. মো. সলিমুল্লাহকে আহ্বায়ক করে ৫ সদস্যবিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। তদন্ত কমিটিকে এ ঘটনার সত্যতা যাচাই এবং এতে বিশ^বিদ্যালয়ের কোনো মর্যাদা ক্ষুণœ হয়েছে কিনা তা আমলে নিয়ে আগামী ২২ কার্য দিবসের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দেওয়ার কথা বলা হয়।
রিজেন্ট বোর্ডের সভায় বৈশি^ক করোনা পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে শিক্ষার্থীদের ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে অতিদ্রুত সেমিস্টার ফাইনাল পরীক্ষা নেওয়ার বিষয়ে বিস্তারিত আলাপ-আলোচনা করা হয়। সভায় জানানো হয়, সশরীরে পরীক্ষা গ্রহণের বিষয়ে বিশ^বিদ্যালয়ের একাডেমিক অর্ডিন্যান্স রয়েছে। অনলাইনে পরীক্ষা গ্রহণের বিষয়ে কোনো অর্ডিন্যান্স না থাকায় যবিপ্রবির একাডেমিক কাউন্সিল একটি নীতিমালা রিজেন্ট বোর্ডে পেশ করে। পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর সেটিও পাশ করা হয়। করোনা পরিস্থিতির সর্বশেষ হার বিশ্লেষণ করে অতিদ্রুত সশরীরে বা অনলাইনে পরীক্ষা নেওয়ার বিষয়টি জানিয়ে দেওয়া হবে মর্মে সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।
সভায় যবিপ্রবির কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক মো. আব্দুল মজিদ, কাজী নাবিল আহমেদ এমপি, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (বিশ^বিদ্যালয়) এ কে এম আফতাব হোসেন প্রামানিক, যুগ্ম সচিব (উন্নয়ন-৩) সৈয়দা নওয়ারা জাহান, সাভারের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব বায়োটেকনোলজির মহাপরিচালক ড. মো. সলিমুল্লাহ, সাভারের পরমাণু শক্তি গবেষণা প্রতিষ্ঠানের পরিচালক ও প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. এস এম আসাদুজ্জামান, যশোরের আঞ্চলিক কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের মুখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) ড. কাওছার উদ্দিন আহম্মদ, বাংলাদেশ অ্যাক্রেডিটেশন কাউন্সিলের সদস্য অধ্যাপক ড. মো. গোলাম শাহি আলম, জাহাঙ্গীরনগর বিশ^বিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের অধ্যাপক ড. শরীফ এনামুল কবির, ইব্রাহিম কার্ডিয়াক হসপিটাল অ্যান্ড রিসার্চ ইনস্টিউটের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ও সিনিয়র কনসালটেন্ট ডা. এম. এ. রশীদ, যশোর মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মোল্লা আমির হোসেনসহ রিজেন্ট বোর্ডের সদস্যরা অংশ নেন।