ফিরে দেখা ২০১৭ : একক আধিপত্যের দিন শেষ হয়ে গেছে

0
534

মুহা. রুহুল আমীন : ইংরেজি নববর্ষ ২০১৮-এর প্রবেশপথে দাঁড়িয়ে ২০১৭ সালের বিশ্ব রাজনীতির পাতায় চোখ রেখে শিউরে উঠলাম। স্নায়ু-যুদ্ধোত্তর বিশ্ব ব্যবস্থায় বৈশ্বিক আধিপত্যের চিরন্তন বিন্যাস, বিশ্বশক্তি কাঠামো, বিশ্ব রাজনীতির মতাদর্শিক স্থাপনা, আন্তর্জাতিক সম্পর্কের রাজনৈতিক অর্থনীতি ইত্যাদি সবকিছু যেন চুর চুর করে ভেঙে পড়ছে। ২০১৭ সালের ক্ষয়ে যাওয়া আন্তর্জাতিক ব্যবস্থা যেন ২০১৮ সালের সূর্য-সকালে নতুন প্রতিশ্রুতি নিয়ে নতুন আলোয় উদ্ভাসিত।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শেষ হলে দু’পরাশক্তির আধিপত্য বিস্তারের লড়াই যুদ্ধোত্তর পৃথিবীর মানুষের সাম্য, স্বাধীনতা ও ব্যক্তিত্বকে চরম বিপর্যয়ের মুখে ঠেলে দেয়। আফ্রো-এশিয়া ও লাতিন আমেরিকার বিশাল এলাকার মানুষ আইনগতভাবে স্বাধীন হলেও কার্যত দু’পরাশক্তির মোরগ লড়াই-এর শিকার হয়। তাদের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি, রাজনৈতিক সমৃদ্ধি এবং সাংস্কৃতিক সৌকর্য পরাশক্তিদ্বয়ের হাতে বন্দি হয়ে পড়ে। পৃথিবীর কোনো রাষ্ট্রের সাধ্য ছিল না পরাশক্তির রক্তচক্ষু উপেক্ষা করার। যে কারণে তাদের ইচ্ছের বাইরেও অনেক রাষ্ট্রকে অবস্থান করতে হয় পরাশক্তির প্রভাব বলয়ে।

স্নায়ুযুদ্ধের অবসানের পর বিশ্ব-তাত্ত্বিকগণ এক মেরু পৃথিবীর তত্ত্ব ছড়িয়ে দেন। যেখানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র পৃথিবীর অন্য সকল রাষ্ট্রের নিয়ন্ত্রকের সুবিধা অর্জন করে। ফ্রান্সিস ফুকুইয়ামা ‘ইতিহাসের সমাপ্তি’ তত্ত্ব প্রচার করে যুক্তরাষ্ট্রকে পৃথিবীর একক পরাশক্তি হিসেবে প্রমাণ করেন। তিনি এমনও প্রচার করেন যে, বিশ্বের সকল রাষ্ট্র যুক্তরাষ্ট্রের উদার পুঁজিবাদ গ্রহণ করবে এবং এ মতাদর্শটি বিজয়ী মতাদর্শ হিসেবে সর্বগৃহীত হবে। ইরাক ও আফগানিস্তান আক্রমণ করে এবং বিশ্বে সন্ত্রাসবিরোধী যুদ্ধ ছড়িয়ে দিয়ে যুক্তরাষ্ট্র তার একক আধিপত্য বিস্তারের মরণ লড়াই শুরু করে।

কিন্তু যুক্তরাষ্ট্রের সে দুঃসাহসিক অভিযাত্রা বাধামুক্ত থাকেনি। ২০১৭ সাল জুড়ে এক একটি ব্যর্থতা ও পরাজয়ের গ্লানি যুক্তরাষ্ট্রের বৈশ্বিক আধিপত্য বিস্তারের স্পর্ধা স্তব্ধ করে দেয়। ইরাক ও আফগানিস্তান যুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের বিকশিত হীনম্মন্যতা, আরব বসন্তের জাগরণে মুক্তিপাগল আরবদের কাছে যুক্তরাষ্ট্রের পরাজয়ের হাতছানি এবং সবশেষে সিরিয়ার মাটিতে যুক্তরাষ্ট্রের আধিপত্যের অবসান দেশটির একক পরাশক্তির অহঙ্কার চুরমার করে দেয়। ইরান এবং রাশিয়ার সমর্থন ও সহায়তায় বলীয়ান হয়ে সিরিয়ার আসাদ এ বার্তাই পৌঁছে দিয়েছে যে আমেরিকার একক আধিপত্যের দিন শেষ হয়ে গেছে।

আরব বসন্ত যুক্তরাষ্ট্রসহ বৈশ্বিক মোড়লদের হূত্কম্পনের সৃষ্টি করে এবং মিসরসহ কতিপয় আরব রাষ্ট্রের বহিঃনিয়ন্ত্রক শক্তির টুঁটি চেপে ধরে। ফিলিস্তিন ইস্যুকে কেন্দ্র করে যুক্তরাষ্ট্র আরববিশ্বকে নিয়ন্ত্রণের আইনি, নৈতিক ও কূটনৈতিক বৈধতা লাভ করে। কিন্তু ২০১৭ সালে জেরুজালেম ঘোষণার মাধ্যমে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প জেরুজালেমে ইসরাইলের রাজধানী স্থানান্তরের স্বীকৃতি দিলে দেশটি মধ্যপ্রাচ্যের আঞ্চলিক রাজনীতিতে বন্ধুহীন হয়ে পড়ে। প্রায় বিচ্ছিন্ন যুক্তরাষ্ট্র জাতিসংঘসহ পৃথিবীর বিভিন্ন ফোরামে নিন্দা ও ধিক্কার লাভ করে। জাতিসংঘে হম্বিতম্বি করেও যুক্তরাষ্ট্র তার সিদ্ধান্তের পক্ষে বৈশ্বিক সমর্থন লাভে ব্যর্থ হয়।

একক পরাশক্তি হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রের শোচনীয় পরাজয় বিশ্ব রাজনীতিতে রাশিয়ার আধিপত্যের পুনঃপ্রকাশ ঘটায়। অনেকে আবার এখন দ্বিমেরু পৃথিবীর প্রত্যাবর্তনের ইঙ্গিত দিচ্ছেন। আবার অনেক তাত্ত্বিক মনে করেন, বৈশ্বিক শক্তির পুনর্বিন্যাস হয়ে এখন এক-দ্বি-বহু মেরু পৃথিবীর নতুন যুগের সৃষ্টি হয়েছে।

বৈশ্বিক কৌশলগত আধিপত্য বিস্তারের ক্ষেত্রেও বৈশ্বিক মোড়ল রাষ্ট্রদের আধিপত্য খর্ব হয়েছে ২০১৭ সালে। পারমাণবিক ইস্যুতে পরাশক্তির সঙ্গে ইরানের সম্পাদিত চুক্তি প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প অগ্রাহ্য করার কথা বললেও ২০১৭ সালে ইরানের নেতৃবৃন্দ স্পষ্টভাবে জানিয়ে দিয়েছেন যে, ইরানের পারমাণবিক চুক্তি বৈশ্বিক আইন অনুযায়ী সম্পাদিত হয়েছে এবং সে চুক্তি থেকে ইরান কখনো সরবে না।

বৈশ্বিক কৌশলগত শক্তি-বিন্যাসের পরিবর্তনের মূর্ত উদাহরণ হলো উত্তর কোরিয়া। কোনোরকম হুমকি-ধমকি দিয়ে উত্তর কোরিয়ার পারমাণবিক স্থাপনা ধ্বংস করা সম্ভব হয়নি। দেশটির তরুণ নেতা একের পর এক পারমাণবিক অস্ত্রায়নের অভিনব উদাহরণ সৃষ্টি করে জানান দিচ্ছেন যে, আন্তর্জাতিক কৌশলগত শক্তিসাম্যের পুনর্বিন্যাস প্রক্রিয়া চলছে। এখন আর আমেরিকার মতো একটি উদ্ধত রাষ্ট্রের রক্তচক্ষুর ভয়ে কোনো ক্ষুদ্র রাষ্ট্রও তার কৌশলগত উত্কর্ষ লাভের পথ থেকে সরে আসবে না।

আন্তর্জাতিক অর্থনীতিও দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধোত্তর ব্রিটন উড্স ব্যবস্থার দ্বারা বলগাহীন পাশ্চাত্যায়নে সাফল্য অর্জন করতে পারছে না। চীন ও ভারতের মতো তৃতীয় বিশ্বের অনেক দেশ এখন অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির শীর্ষ ধাপে আসীন প্রায়। চীন এখন সিল্ক রোড প্রকল্পের মাধ্যমে অর্থনৈতিক ও বাণিজ্যিকভাবে বিশ্বের সঙ্গে যুক্ত হতে যাচ্ছে। চীন তার অর্থনৈতিক সমৃদ্ধিকে পররাষ্ট্রিক সাফল্য অর্জনের সহায়ক, নির্ধারক ও নিয়ামক হিসেবে প্রতিপন্ন করে আধুনিক আন্তর্জাতিক সম্পর্কে রাজনৈতিক অর্থনীতির শক্তিশালী ভূমিকায় অবতীর্ণ হচ্ছে। ইরান ও ভারতের মতো দেশগুলোও চীনের মতো রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও স্ট্রাটেজিক শ্রেষ্ঠত্ব অর্জনের মাধ্যমে বিশ্বব্যবস্থায় বহু মেরুকরণের পুনর্বিন্যাস ঘটাতে উদ্যত হয়েছে বলে নানা বিশ্লেষণে পরস্ফুিট হচ্ছে। ২০১৭ সালে চীনের প্রেসিডেন্ট এবং ইরান ও ভারতের নেতৃবৃন্দের বৈশ্বিক ভূমিকার মাধ্যমে বিশ্বব্যবস্থার এ নবতর শক্তির পুনর্বিন্যাস নতুন আঙ্গিকে আন্তর্জাতিক সম্পর্কের প্রকৃতি নির্ধারণ করছে বলে বিশ্লেষকদের অভিমত।

বৈশ্বিক ব্যবস্থার পাশাপাশি আঞ্চলিক রাজনীতির ক্ষেত্রেও ২০১৭ সাল গুরুত্বপূর্ণ পরিবর্তনের সূত্রপাত করেছে। ব্রেক্সিট এমন একটি একক ঘটনা যা ইউরোপীয় রাজনীতিতে বড় ঝাঁকুনি দিয়ে গেছে। যুক্তরাজ্য ইউরোপের রাজনীতির কেন্দ্রবিন্দু থেকে সরে গিয়ে জার্মানিকে ইউরোপীয় নেতৃত্বে আসীন করেছে। ফ্রান্সের কনিষ্ঠতম প্রেসিডেন্ট ম্যাঁখো পরিবর্তনের শ্লোগান নিয়ে ফ্রান্সের ক্ষমতায় আসীন হয়েই ইউরোপের নেতৃত্বে ব্যাপক পুনর্বিন্যাস ঘটিয়েছেন। রোহিঙ্গা ইস্যুতে গুরুত্বপূর্ণ বক্তব্য দিয়ে ম্যাঁখো বিশ্ববাসীর দৃষ্টি আকর্ষণ করতে সক্ষম হয়েছেন।

২০১৭ সাল কতিপয় আন্তর্জাতিক ঘটনার জন্য বৈশ্বিক ব্যবস্থায় গুরুত্বপূর্ণ মাইলফলক হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে। জাতিসংঘের গোল্ডেন জুবিলি, বেলফোর ঘোষণার শত বছর, অক্টোবর বিপ্লবের শতবর্ষ, কোরীয় উপদ্বীপের অশান্তি, যুক্তরাষ্ট্রের জেরুজালেম ঘোষণা, প্যারিস জলবায়ু চুক্তি থেকে যুক্তরাষ্ট্রের পিছুটান, সর্বোপরি রোহিঙ্গা নির্যাতনের নৃশংস ঘটনা ২০১৭ সালকে অভিশাপের বছর হিসেবে বিশ্বসম্প্রদায়ের কাছে পরিগণিত করেছে। কিন্তু ২০১৭ সালের এ হতাশাকে আশীর্বাদে রূপান্তরিত করার মাধ্যমে ২০১৮ সালকে কাজে লাগানোর অমোঘ সুযোগও রয়েছে।

২০১৭ সালে পরিবর্তিত বিশ্বব্যবস্থায় বাংলাদেশ গুরুত্বপূর্ণ বৈশ্বিক নেতৃত্ব লাভে সক্ষম হয়েছে। জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে রোহিঙ্গা নির্যাতনের বিষয়টি উত্থাপন করে রোহিঙ্গা ইস্যুর আন্তর্জাতিকীকরণের মাধ্যমে বাংলাদেশ বিশ্বরাজনীতিতে বলিষ্ঠ নেতৃত্ব সৃষ্টি করতে সক্ষম হয়েছে। প্রায় এক মিলিয়ন রোহিঙ্গাকে আশ্রয় দিয়ে বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক মানবিক রাষ্ট্রের বিরল মর্যাদা অর্জন করেছে। রোহিঙ্গা ইস্যুকে পারঙ্গমতা সহকারে সমাধান করতে পারলে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রনীতি মজবুত ভিত্তির উপর দাঁড়াবে এবং বাংলাদেশের বিরল বিশ্ব-ইমেজ তৈরি হবে, যা দেশটির উন্নয়নে ব্যাপক ভূমিকা রাখবে। ২০১৭ সালে ইউনেস্কো বাংলাদেশের স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ১৯৭১ সালের ৭ মার্চের ভাষণকে ওয়ার্ল্ড ডকুমেন্টারি হেরিটেজ হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করে বাংলাদেশকে অনন্য গৌরব দান করেছে। ২০১৭ সাল আন্তর্জাতিক সম্পর্ক, বিশ্বরাজনীতি এবং বাংলাদেশের পররাষ্ট্রনীতির আশীর্বাদ হিসেবে বিবেচিত, একথা নির্দ্বিধায় বলা যায়।

লেখক : প্রফেসর, আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here