ফুল চাষিরা ফুল উৎপাদন ও পরিচর্যায় ব্যস্ত সময় পার করছে

0
141


আশানুর রহমান আশা : বেনাপোল।করোনাভাইরাস ও আম্পান ঝড়ের ক্ষতি পুষিয়ে নিতে যশোরের ঝিকর গাছার গদখালির ফুলচাষিরা আগামী বিশেষ দিবসগুলোকে সামনে রেখে ফুলচাষ ও পরিচর্যায় দিন পার করছে। 
তবে প্রকৃতিক  দুর্যোগ প্লাস্টিকের ফুলের ব্যবহার বেড়ে যাওয়ায় ফুলচাষ বৃদ্ধিসহ নানা সমস্যায় ব্যবসার মৌসুমেও লাভ-ক্ষতি নিয়ে চিন্তিত যশোরের ফুল চাষিরা।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে ঝিকরগাছার পানিসাড়া গ্রাম ও গদখালির মাঠগুলোতে এখন শোভা পাচ্ছে রজনীগন্ধা, গোলাপ, জারবেরা, গাদা, গ্লাডিওলাস, জিবসি, রডষ্টিক, কেলেনডোনা, চন্দ্রমল্লিকাসহ ১১ ধরনের ফুল। রোগবালাই ও পোকামাকড় থেকে রক্ষা পেতে কৃষকরা গোলাপের কুড়িতে সাদাক্যাপ পরিয়ে রেখেছেন। কেননা সামনে রয়েছে ফুল বিক্রির উপযুক্ত সময়। 
আর কয়েকদিন পর ১৬ ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবস, তারপর ১ জানুয়ারি ইংরেজি নতুন বছর, ১৩ ফেব্রুয়ারি বসন্ত দিবস, পরদিন ১৪ ফেব্রুয়ারী ভালোবাসা দিবস ও ২১ ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসসহ রয়েছে বেশ কয়েকটি বিশেষ দিবস। এসব দিবসে দেশব্যাপী থাকে ফুলের বিশেষ চাহিদা। 
আর এ চাহিদা মেটাতে গদখালির মাঠে পরিশ্রম করে যাচ্ছেন ফুলচাষি ও শ্রমিকরা। ব্যবসায়ী ও ফুলচাষি আবু তাহের জানান করোনা ও আম্ফান ঝড়ের ক্ষতি পুষিয়ে নিতে এবার ৮ বিঘা জমিতে রজনীগন্ধা এবং গ্লাডিওলাস চাষ করেছি।  ফুল চাষি লিয়াকত হোসেন বলেন গোলাপ ও জারবেরা ফুল ৫ বিঘা জমিতে চাষ করেছি। 
যদি আবহাওয়া অনুকুলে থাকে তা হলে দেড় থেকে দুই লাখ টাকা লাভের আশা করছি। গদখালি কৃষকদের দেওয়া তথ্যমতে বর্তমানে ১০০ পিচ রজনীগন্ধা ৭০০, গোলাপ একশত পিচ ৩০০-৪০০, একশত জারবেরা ৯০০, একশত পিচ গাদা ২০০-২৫০, গ্লাডিওলাস একশত পিচ ১১০০শত, জিবসি প্রতি ব্যান্ডিল ৫০ ও রড ষ্টিক প্রতি ব্যান্ডিল ৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। 
কৃষক হারুনার রশিদ ও সরোয়ার হোসেন বলেন দেশে প্লাস্টিকের ফুল আমদানি ও ব্যবহার বৃদ্ধি পাওয়ায় ফুল বিক্রি বেশ কমে গেছে। 
এছাড়া যেসব জেলায় আগে ফুল দিতাম এখন তারাও ফুল চাষ করছেন। ফলে সেখানকার ব্যাবসায়ীরা ফুল সংগ্রহের জন্য আসছে না, এতেতারা  ব্যবসায়িকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছি। 
ফ্লাওয়ারস সোসাইটির সভাপতি আব্দুর রহিম বলেন, দেশের প্রায় ৩০ লাখ মানুষের জীবিকা এ ফুলকে কেন্দ্র করে। 
প্রায় ২০ হাজার কৃষক ফুলচাষের সঙ্গে সম্পক্ত, করোনা পরবর্তীতে কৃষক ও ব্যবসায়ীদের  ক্ষয়ক্ষতি পুষিয়ে নেওয়ার জন্য সরকারের ঘোষিত কৃষি-প্রণোদনার ঋণের জন্য ব্যাংকসহ আর্থিকপ্রতিষ্ঠানে ধর্ণা দিয়েও ফুলচাষি ও ব্যবসায়ীরা কোন অর্থিক সুবিধা পাইনি।কৃষি কর্মকর্তা মাসুদ হোসেন পলাশ জানান, ঝিকরগাছার ৬ ইউপি’র প্রায় ৬২৫ হেক্টর জমিতে বাণিজ্যিকভাবে ফুলচাষ হচ্ছে। ফুলচাষের সাথে প্রায় ছয়হাজার কৃষক ও এক লাখ শ্রমিক সম্পক্ত রয়েছেন।