ফেন্সিডিল-গাঁজা-মদ ব্যবসা সাময়িক বন্ধ হলেও ঝিকরগাছায় ইয়াবা ব্যবসার স্বর্গরাজ্যে হয়ে উঠেছে

0
448

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোর জেলা পুলিশ সুপারের মাদকমুক্ত যশোর গড়ার জন্য হাতে নেয়া ১০০ দিনের মাদকবিরোধী কর্মসূচী ঝিকরগাছায় আংশিক আলোর মূখ দেখলেও ইয়াবার কালো থাবায় গোটা উপজেলা আঁধারের কালো আবরনে ঢেকে গেছে।পুলিশের মাদক বিরোধী অভিযানে প্রতিদিন ধরা পড়ছে ঝিকরগাছায় কম বেশী মাদক সেবীরা, আর ধরা ছোয়ার বাইরে থেকেই যাচ্ছে রাঘব বোয়াল ইয়াবা ব্যবসায়ীরা। পুলিশী তৎপরতায় উপজেলায় ফেন্সিডিল ব্যবসা শতকরা ৭৫, গাঁজা ৬০ ভাগ, মদ ,হেরোইন অনেকাংশেই বিকিকিনি কমেছে। কিন্তু ঐগুলো যেমন হারে কমেছে একই সাথে পাল্লা দিয়ে জমজমাট হয়ে উঠেছে ইয়াবা ব্যবসা। পকেটে করে ভাম্যমান ভাবে অনেকটা নিশ্চিন্তেই চালিয়ে যাচ্ছে ইয়াবা ব্যবসা। অভিযানে পুলিশ ইয়াবা খোর অহরহ ধরলেও শতকরা একজন ব্যবসায়ী ধরা পড়ছে। আলোচিত ইয়াবা ব্যবসায়ী সোহাগ কে পুলিশ আটক করে জেল হাজতে পাঠিয়েছে। কিন্তু তারই সহযোগী বারবাকপুর গ্রামের আমির জেল থেকে বেরিয়ে তার এলাকায় নির্বিঘেœ চালিয়ে যাচ্ছে ইয়াবা ব্যবসা। পঞ্চনগর গ্রামের ইস্রাফিল ও খোকনের পুত্র জনি ফোনের মাধ্যমে কাষ্টমারের সাথে যোগাযোগের মাধ্যমে কখনও শ্বসান ঘাট এলাকায় ,কখনও বিল পাড়ের কারণ একপাশে এসে বিক্রি করে যাচ্ছে মরন নেশা ইয়াবা। মোবারকপুর এলাকার ইয়াবা সম্রাট জমশের আটক হলেও তার ছেলে রনি বহাল তবিয়তে পুলিশের চোঁখ ফাঁকি দিয়ে কখনও বিলুপ্ত মিতালী সিনেমা হল এলাকায় এসে , কখনও বিচলী হাটার শেষ প্রান্তে পৌর টয়লেটের ভিতর থেকে পার্টিকে ইয়াবা সাপ্লাই দিচ্ছে। উড়ন্ত ইয়াবা ব্যবসায়ী কৃষ্ণনগর গ্রামের ভল্লুক রায়হান একাধিকবার ডিবি ও থানা পুলিশের হাতে আটক হলেও আইনের দূর্বল দিকের ফাঁকা দিয়ে বেরিয়ে এসে চালাচ্ছে রমরমা ব্যবসা। কাউরিয়া গেট এলাকায় উঠতি বয়সী বিডিআর বাবুর ছেলে শাওন ফোন কণ্ট্রাকের মাধ্যমে রেল লাইনের উপর বসেই দেদারসে বেচাকেনা করছে ইয়াবা। পূরন্দপুর সাদ্দামপাড়া এলাকার সবুজ, মাদক সম্রাজ্ঞী করিমনের পুত্র তুহিন, একই এলাকার কাঠমিস্ত্রি আলিম এখন ঐ এলাকার আলোচিত ভ্রাম্যমান ইয়াবা বিক্রেতা। সৈয়দপাড়া গ্রামের ইয়াবা সম্রাট বাবু বারবার আটক হলেও রানৈতিক তদবীরে মোটা টাকা পুলিশ কে দিয়ে ছাড়া পেয়ে যাচ্ছে। আর মামলায় চালান হলেও একে ৩৪ ধারার বেশী দেয় না পুলিশ। এ বাবুর মাধ্যমে হাজিরালী মহিলা কলেজ মোড় এলাকায় জন্ম নিয়েছে একাধিক ছোট ছোট বিক্রেতা। উপজেলার অধিকাংশ মোটর সাইকেল গ্যারেজগুলোত এখন ইয়াবা লেনদেনের নিরাপদ স্থান হিসেবে বেছে নিয়েছে মাদক ব্যবসায়ীরা। উপজেলা মোড় থেকে একটু দুরে উৎপলের মোটর গ্যারেজের পিছনে বাইক মেরামতের নামে দিনভর চলে ভাম্যমান ইয়াবা বিক্রেতাদের লেনদেন, হাজিরালী মোড়ে শীতলের গ্যারেজও একই অবস্থা। এসব জায়গায় থানা পুলিশের অনেকেই যায় বাইক মেরামতে। পুলিশের মধ্যে কেউ কেউ থানায় ধরা পড়া ইয়াবা সোর্সমানি যোগাড়ের নামে এসব স্পটে বসে নিরাপদে বিক্রি করে যায় মাদক ব্যবসায়ীদের কাছে এমন অভিযোগও পাওয়া যাচ্ছে অহরহ। গদখালী এলাকার দীর্ঘদিনের মাদক ব্যবসায়ী বাদল এখন গাঁজা বিক্রি বন্ধ করে ইয়াবার পাইকারী ব্যবসা ধরেছে বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ। হাজিরালী এলাকার একই বাড়ীর কয়েক ভাই শ্যামল, খোড়া মাহবুব ইয়াবা ব্যবসা ছাড়লেও তাদের ঐ মোড়স্থ কর্মক্ষেত্রে মাদকসেবীদের আনাগোনা এখনও বন্ধ হয়নি। মাদক সেবীদের ভাষ্য অনুযায়ী একই এলাকায় মাসুম নামে এক যুবক ইয়াবা ব্যবসা করছে খুবই চতুরতার সাথে। কে এ মাসুম এখনও তার নাম ঠিকানা অধরা রয়ে গেছে। পারবাজার মোড়ে ইয়াবা সেবক ও ব্যবসায়ীদের ধরে একটি দোকানে বসিয়ে প্রতিনিয়িত থানা পুলিশের লেনদেন হচ্ছে এ অভিযোগ সাধারন মানুষের। বাজারের অফেলউদ্দিন মার্কেটে ইয়াবা ব্যবসায়ী ইমদাদ মোবাইল ঠিক করার নামে একটি দোকান নিয়ে বসে আছে। যার একাত্র ব্যবসায় ইয়াবা ব্যবসা ও একই সাথে সেবন। এখানে সব ভিআইপি কাষ্টমারের লেনদেন। একটি তাতাল নিয়ে দিনভর মানুষ কে দেখায় মোবাইল ঠিক করছে। অথচ চলছে ফোন কণ্ট্রাকের মাধ্যমে ভিআইপি সেবকদের ইয়াবা সরবরাহের কাজ। পুলিশে না কি তার আত্মীয় আছে এবং পিছনে আছে রাঘব বোয়াল ব্যক্তিরা । তাই পুলিশ তাকে আটক করলেও হয় ছেড়ে দেয় নয়তো ৩৪ ধারায় চালান। বাজারে খান মার্কেটসহ কয়েকটি স্পটেই এই মোবাইল ঠিক করার যন্ত্রাংশ নিয়ে চলছে রমরমা ইয়াবা ব্যবসা। পৌর সদরের শেষ সীমানা হাওয়ার মোড়ে ছোট খাটো পানবিড়ির দোকানে রাজনৈতিক মদদে চলে ইয়াবা ব্যবসা। এসব ব্যবসায়ীরা বেনাপোল কাগজপুকুর এলাকার মাদক সম্রাট শহিদ ও নাভারন ভবের বেড় এলাকার সম্রাজ্ঞী খালেদা বেগম এর কাছ থেকে পাইকারী মূল্যে কিনে নিয়ে আসছে এই মরন নেশা ইয়াবা। হাতে গোনা দুই একজন পুলিশের সাথে এদের এমন সখ্যতা যে এদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করলে উল্টো প্রতিবাদকারীর ধরে গাল শুকে ইয়াবা ব্যবসায়ীর ইয়াবা দিয়ে চালান দেয়ার ভয় দেখানো হয় এমন অভিযোগও পাওয়া গেছে। মোবাইল যোগাযোগের মাধ্যমে সচরাচর চলছে এ ব্যবসা। পুলিশের অধিকাংশ সোর্সই আড়ালে চালাচ্ছে নির্বিঘেœ ইয়াবা ব্যবসা। ঝিকরগাছার অসংখ্য পরিবার আজ ইয়াবার ছোবলে ক্ষতবিক্ষত। এদের বিরুদ্ধে পুলিশের চৌকস টিম দিয়ে মাদক অভিযান না চালালে ঝিকরগাছায় ১০০ দিনের মাদক বিরোধী অভিযান মূখ থুবড়ে পড়বে বলে স্থানীয়দের অভিমত। গাল শুকার নামে হয়রানী বন্ধ করে ইয়াবা ব্যবসায়ী ধরার কৌশল নিয়ে ইয়াবার রাজ্যে হানা না দিতে পারলে ঝিকরগাছায় খুন জখমের ঘটনাও বাড়তে পারে বলে আশংকা করা হচ্ছে। তা না হলে পুলিশ সুপারের আহবানে সাড়া দিয়ে মাদক বিরোধী র‌্যালী ও সমাবেশে রাস্তা নেমে আসা শত শত সাধারন মানুষ প্রশাসনের দিকে ধিক্কার ছুড়ে বলবে ” সবই ছিলো আইওয়াশ, অথবা পুলিশ উর্দ্ধতন মহলে নিজেদের ভাবমূর্তি দেখাতে সাজিয়ে ছিল মাদকবিরোধী অভিযানের নামে ১০০ দিবসের হাস্যকর ধারাবাহিক নাটক”।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here