ফেসবুকে পোস্ট করা গ্রীলের সাথে হাতকড়া লাগানো যুবকের ছবি নিয়ে তোলপাড়, খেঁপেছেন কোতোয়ালী ওসি আজমল

0
588

নিজস্ব প্রতিবেদক : সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে পোস্ট করা যশোর কোতোয়ালী থানা হাজতে থাকা এক যুবকের ছবি নিয়ে হৈচৈ শুরু হয়েছে। আর তেলে বেগুনে জ্বলে খেপেছেন ওসি আজমল হুদা।  হাজতখানায় গ্রিলের সাথে ওই যুবককে হাতকড়া লাগিয়ে দাঁড় করিয়ে রাখা ও মোটা অংকের ঘুষ দাবির কথা ওই পোস্টে উল্লেখ করা হয়েছে।  ফেইসবুকের ওই পোস্টটিতে রীতিমত ঝড় উঠেছে পুলিশ প্রশাসনে, তেমনি দৌঁড়ঝাপ করছেন ওসি। তিনি সাংবাদিকদের প্রবেশ নিয়ন্ত্রিত করেছেন। এর আগে গত জানুয়ারিতে আবু সাঈদ নামে এক যুবককে আটকের পর উল্টো করে ঝুলানো ছবি গণমাধ্যমে প্রকাশিত হলেও তোলপাড় শুরু হয়। যা হাইকোর্ট পর্যন্ত গড়ায়।

সম্প্রতি যশোর কেতোয়ালী থানার হাজতখানার গ্রীলের সাথে হাকড়া লাগিয়ে এক যুবককে দাঁড় করিয়ে রাখা একটি ছবি ফেইসবুকে পোস্ট করা হয়। যশোরের একজন সচেতন নাগরিক ও পোস্টটি ছাড়েন। তাতে ৩০ সেকেন্ডের একটি ডভিডিও ছাড়া হয়।  ওই যুবক গাজা ব্যবসায়ী বলে পুলিশ দাবি করে। তার বিরুদ্ধে এজাহারও দেয়া। আর ওই মামলায় তাকে চালান দেয়া হয়। এদিকে ওই যুবক নির্দোষ হলেও ঘুষ দাবি করা হয়েছে, ঘুষ না দেয়ায় গ্রিলের সাথে হাতকড়া পরিয়ে দাঁড় করিয়ে রাখা হয়েছে এমনটি বলা হয় ফেসবুকের ওই পোস্টে। পোস্টটি  ফেইস বেশি বেশি শেয়ারও হয়। সব মিলিয়ে হৈচৈ পড়ে যায়। এটি পুলিশ প্রশাসনের উপর মহলেও তোলপাড় শুরু হয়েছে। একটি টিভি চ্যানেলে লাইভ প্রোগ্রামেও পুলিশের আইজপিকে বিষয়টি ফোনে অবহিত করান এক ব্যক্তি। আইজিপি বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে দেখবেন বলে অবহিত করেন ওই ফোনকারীকে। এদিকে ওই পোস্টটি ছড়িয়ে পড়লে চাপের মুখে পড়েন কোতোয়ালী ওসি একেএম আজমল হুদা । মূলত তার নির্দেশে ওই যুবকের হাত বেধে গ্রিলে বাধা হয়। আর ঘুষ দাবি করা হয়। যে কারনে তাকে নাকি ঢাকায় তলব করা হয় বলে তথ্য মিলেছে। তিনি ঢাকায় দৌঁড়ঝাপ করে যশোরে ফিরেছেন। আর যার তাকে দুষছেন। কে ভিডিওটি করেছে তা যাচ্াই বাছাই করে বেড়াচ্ছে। চাউর করছেন কোন সাংবাদিক হাজতখানায় যাবেনা। নিজের দুর্বলতা ঢাকতেই তার এই তেলে বেগুনে জ্বলে ওঠা বলেও মনে করছেন থানার অনেক অফিসর।

এদিকে ওই পোস্টটি পড়ে অনেকে বলাবলি করছেন গত জানুয়ারিতেও এমন একটি ঘটনা ঘটেছিল থানায়। যশোর শহরতলী তালবাড়িয়া কলেজপাড়া থেকে সাইদ নামে একজনকেস আটক করে সাদা পোশাকের পুলিশ সদস্যরা। ওই টিমে ছিলেন কোতেয়ালী থানার কথিত সিভিল টিমের সদস্য এসআই নাজমুল ও এএসআই হাদিকুর রহমান। ওই সময় অভিযোগ ওঠে ২ লাখ টাকা দাবি করেন ওই দুই অফিসার। ঘুষ দিতে অস্বীকার করায় আবু সাঈদকে হ্যান্ডক্যাপ পরিয়ে থানার মধ্যে দুই টেবিলের মাঝে বাশ দিয়ে উল্টো করে ঝুঁলিয়ে পেটানো হয়। পরে ৫০ হাজার টাকা দিয়ে সে ওই রাতেই ছাড়া পায়। ওই সময় এমন তথ্য দিয়ে সাঈদকে মারপিটের ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুক ও বিভিন্ন নিউজ পোর্টালে ভাইরাল হয়। এরপর এনিয়ে একাধিক সংবাদ প্রকাশ হওয়ায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়। আর আদালত পযন্ত গড়ায় ওই ঘটনাটি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here