ফেসবুকে বীর মুক্তিযোদ্ধাকে সর্বোচ্চ অপমান!প্রতিবাদে চৌগাছায় মুক্তিযোদ্ধা জনতার মানববন্ধন এবং ১৫ দিনের আলটিমেটাম ঘোষনা

0
379

নিজস্ব প্রতিনিধি

যশোরের চৌগাছায় উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা ঐক্য পরিষদের সভাপতি সাবেক ব্যাংক কর্মকর্তা আব্দুস সালামের বিরুদ্ধে উপজেলার কথিত একজন ফটো সাংবাদিক শামীম রেজার ফেসবুকে উদ্দেশ্য প্রণোদিত, মিথ্যা,বানোয়াট ও কুরুচিপূর্ণ বক্তব্য প্রচারের প্রতিবাদে,সরকারি ঘোষণানুযায়ী এলাকার বিভিন্ন সড়ক বীর মুক্তিযোদ্ধাদের নামে নামকরণ এবং চৌগাছা-যশোর সড়কের ‘‘কড়ইতলা বাজার’’কে “মুক্তিযোদ্ধা নগর” নামকরণ এবং প্রশাসন কর্তৃক যে সকল স্থাপনায় রাজাকার মুজাহিদ আলীর পিতার নামে নামকরণ করা হয়েছে তা অবিলম্বে বাতিলের দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।
বৃহস্পতিবার বেলা ১১ টায় চৌগাছা শহরের মুক্তিযুদ্ধ ভাস্কর্য মোড়ে বীর মুক্তিযোদ্ধা, মুক্তিযোদ্ধা পরিবার ও মুক্তিযোদ্ধা জনতার ব্যানারে এই মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। ঘন্টাব্যাপি মানববন্ধনে উপজেলার শতাধিক মুক্তিযোদ্ধা ছাড়াও মুক্তিযোদ্ধার সন্তান, স্ত্রী, স্বজনসহ প্রায় তিনশতাধিক ব্যক্তি অংশগ্রহণ করেন।

আগামী ১৫ দিনের মধ্যে উল্লেখিত দাবিগুলির সন্তোষজন সমাধানের জন্য প্রশাসনের প্রতি আহবান জানিয়ে মানবনন্ধনে বক্তৃতা করেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সিনিয়র সহ-সভাপতি যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস সাত্তার, অবসরপ্রাপ্ত প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মুক্তিযোদ্ধা আমিরুল ইসলাম, মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস সাত্তার ও মুক্তিযোদ্ধা তোফায়েল আহমেদ।
মানবন্ধনে নেতৃত্বস্থানীয়দের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক রবিউল ইসলাম, মুক্তিযোদ্ধা ঐক্য পরিষদ নেতা রেজাউল ইসলাম, আরজান আলী, রওশন আলী, হয়াদার আলী, এরশাদ আলী, মতিয়ার রহমান, মসলেম উদ্দীন, আবু বক্কার, ইমদাদুল হক ছবি, আব্দুল মাজিদ, আলতাফ হোসেন, উপজেলা উদীচীর যুগ্ম সম্পাদক অবসরপ্রাপ্ত বিজিবি সদস্য শওকত আলী, কড়ইতলা বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি ফারুক হোসেন প্রমুখ।
মানববন্ধন শেষে একটি প্রচারপত্র বিলি করা হয়। ‘‘অদ্যকার মানববন্ধন থেকে বীর মুক্তিযোদ্ধা, মুক্তিযোদ্ধা পরিবার ও মুক্তিযোদ্ধা জনতার পক্ষ থেকে প্রশাসনের প্রতি আহবান’’ শীর্ষক ওই প্রচারপত্রে উপরোক্ত দাবিগুলি রেখে বলা হয় উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা ঐক্য পরিষদের সভাপতি সাবেক ব্যাংক কর্মকর্তা আব্দুস সালামের বিরুদ্ধে ফেসবুকে উদ্দেশ্য প্রণোদিত, মিথ্যা, বানোয়াট ও কুরুচিপূর্ণ বক্তব্য প্রচারকারী শামীমের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে হবে।
সরকারি ঘোষণানুযায়ী এলাকার বিভিন্ন সড়ক বীর মুক্তিযোদ্ধাদের নামে নামকরণ,স্থানীয় জনগণের দাবির যৌক্তিকতা বিবেচনা করে‘‘কড়ইতলা নামক স্থানকে মুক্তিযোদ্ধা নগর” নামকরণ করতে হবে এবং প্রশাসন কর্তৃক যে সকল স্থাপনায় রাজাকার মুজাহিদ আলীর পিতার নামে নামকরণ করা হয়েছে তা অবিলম্বে বাতিল করতে হবে।”
সেখানে আরো বলা হয় আমরা জানি একটি বর্ণচোরা কুচক্রীমহল স্বাধীনতা বিরোধী রাজাকার পরিবারকে গোপনে ইন্ধন যোগাচ্ছে। এই রাজাকার পরিবারের আমেরিকা প্রবাসী একজন সদস্য মোঃ শওকত আলী প্রশাসনের উচ্চস্তরের বিভিন্ন কর্মকর্তা,প্রভাবশালী রাজনীতিক,স্থানীয় বিভিন্ন স্তরের জনপ্রতিনিধিগণের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ রক্ষা করে চলেছেন। যা বীর মুক্তিযোদ্ধা জনতা অবগত আছেন।
রাজাকার পরিবারের এই প্রবাসী,যিনি সেদেশে তারেক রহমানের সরকার উৎখাতের আন্দোলনের সঙ্গে সক্রিয়ভাবে সম্পৃক্ত।
গত ১লা সেপ্টেম্বর ২০১৯ বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষ্যে যুক্তরাষ্ট্র শাখার উদ্যোগে যে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয় সে অনুষ্ঠানে এই শওকত আলি শেখ হাসিনা সরকার বিরোধী বক্তব্য দিয়েছিলেন।
২রা সেপ্টেম্বর যা অনলাইন নিউজ পোর্টালে প্রকাশিত হয়। শওকত আলীর সে বক্তব্যর ভিডিও চিত্র আমাদের হাতে রয়েছে। (একটি ফেসবুক লিংক সংযোজিত)।
জনতার আন্দোলন কখনো বৃথা যায়না েএবং কুচক্রীরা পরাজিত হবেই বলে মুক্তিযোদ্ধারা বিশ্বাস করেন।
বিংশ শতাব্দীর শ্রেষ্ঠ অর্জন আমাদের “স্বাধীনতা”,যা অর্জিত হয়েছে ত্রিশ লক্ষ শহীদ ও দুই লক্ষ মা বোনের ইজ্জতের বিনিময়ে। সেই স্বাধীনতা আন্দোলনের বিরোধীতাকারী বর্তমান সরকারকে উৎখাতের ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রাজাকার পরিবারের কোন সদস্যের নামে সরকারি ব্যবস্থাপনায় কোন নামকরণ হতে পারেনা। আর তা যদি হয়, তা হবে রাজাকারকে বৈধতা দেয়ার শামিল।
বঙ্গবন্ধুর বাংলায়, রাজাকারের ঠাই নাই,ঠাই নাই।