বঙ্গবন্ধুর আদর্শে নিজেকে গড়ে তুলতে হবে- প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে রওশন ইকবাল শাহী

0
623

ডি এইচ দিলসান : জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হাতে গড়া বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ৭০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী আজ । প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে যশোর জেলা ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে গ্রহণ করা হয়েছে ব্যাপক প্রস্তুতি। এ নিয়ে ম্যাগপাই নিউজের সাথে কথা বলছিলেন যশোর জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি রওশন ইকবাল শাহী।
ছাত্রলীগের ইতিহাস সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি ম্যাগপাই নিউজকে বলেন, বিভিন্ন গণতান্ত্রিক আন্দোলন ও সংগ্রামে বলিষ্ঠ নেতৃত্ব দানকারী দেশের সবচেয়ে প্রাচীন ও ঐতিহ্যবাহী সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগ। বাংলা ও বাঙালির স্বাধীনতা ও স্বাধিকার অর্জনের লক্ষ্যেই মূল দল আওয়ামী লীগের জন্মের এক বছর আগেই প্রতিষ্ঠা পেয়েছিল গৌরব ও ঐতিহ্যের এ ছাত্র সংগঠনটি। ১৯৪৮ সালের ৪ জানুয়ারি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সংগঠনটি প্রতিষ্ঠা করেন। তার নেতৃত্বেই ওই দিন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফজলুল হক হলে আনুষ্ঠানিকভাবে এর যাত্রা শুরু হয়। তত্কালীন তরুণ নেতা শেখ মুজিবের প্রেরণা ও পৃষ্ঠপোষকতায় এক ঝাঁক মেধাবী তরুণের উদ্যোগে সেদিন যাত্রা শুরু করে ছাত্রলীগ।
তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিশন-২০২১ ও ২০৪১ ঘোষণা করেছেন। ২০২১ সালের মধ্যে মধ্যম আয়ের দেশ এবং ২০৪১ সালের মধ্যে একটি উন্নত দেশ হিসেবে বাংলাদেশকে গড়ে তুলতে হবে। সে ভিশন বাস্তবায়নের জন্য ছাত্রলীগ দেশের শিক্ষার্থীদের নিয়ে একসাথে কাজ করবে। তাছাড়া বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অসমাপ্ত কাজকে সমাপ্ত করতে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভিশন মধ্যম আয়ের দেশ গড়ার লক্ষকে সামনে রেখে বঙ্গবন্ধুর হাতে গড়া প্রিয় সংগঠন ছাত্রলীগ কাজ করে যাবে। যেমন, মুক্তিযুদ্ধে এ সংগঠনের ১৭ হাজার নেতাকর্মী আত্নাহুতি দিয়েছিল, তেমনি এখনও ছাত্রলীগ সকল অপশক্তি বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াবে।


১৯৪৯ সালে তত্কালীন পাকিস্তানের প্রথম বিরোধী দল হিসাবে ‘আওয়ামী মুসলিম লীগের আত্মপ্রকাশ ঘটে, যা পরে আওয়ামী লীগ নাম ধারণ করে এ দেশের স্বাধিকার ও স্বাধীনতা সংগ্রামে নেতৃত্ব দেয়। এ প্রেক্ষাপটে ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠা বাঙালি জাতির ইতিহাসে বিশেষ তাত্পর্যপূর্ণ। উপমহাদেশের সর্ববৃহত্ ও প্রাচীন ছাত্র সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের গৌরব, ঐতিহ্য, সংগ্রাম ও সাফল্যের ৭০তম বার্ষিকী উপলক্ষে সবাইকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন তিনি।

তিনি বলেন, যশোর জেলা ছাত্রলীগের দায়িত্ব আমার কাছে সত্যিই অনেক উপভোগ্য। কারণ, ছোটবেলা থেকে নীতি-আদর্শের যে জায়গাটা আমি লালন করেছি, সেটা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ। সেই আদর্শেই নিজেকে গড়ে তোলার চেষ্টা করেছি। জাতির জনকের নিজের হাতে গড়া ছাত্রসংগঠনের এই গুরুত্বপূর্ণ পদের দায়িত্ব আমার কাছে সর্বদা সুমহান ও কর্তব্যপূর্ণ বলে বিবেচিত।

ছাত্রলীগের ৭০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে যশোর জেলা ছাত্রলীগের প্রস্তুতি সম্পর্কে জানতে চাইলে শাহী বরেণ, প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন কার্যক্রম পুরোদমে পরিচালিত হচ্ছে। সকালে আনন্দন শোভাযাত্রা, বিকেলে দলীয় কার্যালয়ে কেকে কাটা এবং সন্ধায় দড়াটানা ভৈরব চত্ত্বরে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। তিনি বলেন এই সংগঠন শুধু ছাত্রসমাজের নয়, দেশের ১৬ কোটি মানুষের প্রিয় সংগঠন। সংগঠনের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানের সঙ্গে দেশের সকল মানুষকে সংযুক্ত করে আনন্দ ভাগাভাগি করতে চাই।

তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ একটি নতুন পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে। সেটি হচ্ছে ২০১৭ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে নিরক্ষরমুক্ত করা। আমরা কেন্দ্রীয় কমিটির লক্ষ বাস্তবায়নে এবং বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়তে এ বছরের মধ্যে দেশকে নিরক্ষরমুক্ত করতে কাজ করে যাব।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here