বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য সরাতে দেবেন না মমতা

0
202

ম্যাগপাই নিউজ ডেক্স : কলকাতায় তালতলার বেকার হোস্টেল থেকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্য সরিয়ে ফেলার দাবি জানিয়েছিল একটি সংগঠন। সেই দাবিকে নাকচ করে দিয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বুধবার তিনি বলেন, ‘ঐতিহ্যের কোনও ইজারা হয় না। বঙ্গবন্ধু দুই বাংলার কাছেই শ্রদ্ধেয় ও স্মরণীয়। মুক্তিযুদ্ধ আমাদের প্রেরণা। তার স্মৃতি শ্রদ্ধার সঙ্গে সংরক্ষণ করাই আমাদের কর্তব্য। এর কোনও রকম বিরোধিতাকে সহ্য করা হবে না। কেউ প্রতিরোধ তৈরি করতে চাইলে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

ছাত্রাবস্থায় শেখ মুজিবুর রহমান বেকার হোস্টেলের বাসিন্দা হয়ে পড়শোনা করতেন তখনকার ইসলামিয়া কলেজে, যে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বর্তমান নাম মাওলানা আজাদ কলেজ। ১৯৪৫ থেকে ১৯৪৬ সালে বেকার হোস্টেলে দোতলার ২৪ নম্বর কক্ষে থাকতেন মুজিব। ১৯৯৮ সালে তৎকালীন বাংলাদেশ সরকারের অনুরোধে বেকার হোস্টেলে মুজিবের ব্যবহার করা ২৪ নম্বর ও পাশের ২৩ নম্বর কক্ষদুটি মিলিয়ে সংগ্রহশালা গড়তে উদ্যোগী হন প্রয়াত মুখ্যমন্ত্রী জ্যোতি বসু। ১৯৯৮ সালের ৩১ জুলাই ওই সংগ্রহশালার উদ্বোধন করেন তৎকালীন উচ্চশিক্ষামন্ত্রী সত্যসাধন চক্রবর্তী। সংগ্রহশালায় মুজিবের ব্যবহার করা বিছানা, চেয়ার, টেবিল, তাক সংরক্ষিত করা হয়েছে। পরে ২০১১ সালে ২৩ জানুয়ারিতে বাংলাদেশের তৎকালীন পররাষ্ট্রমন্ত্রী দীপু মণি ওই সংগ্রহশালায় মুজিবের একটি মূর্তির উন্মোচন করেন।

পশ্চিমবঙ্গ সরকার এই ছাত্রাবাস পরিচালনা করলেও তিন তলার যে ঘরে শেখ মুজিব থাকতেন,সেখানকার সংগ্রহশালাটি তাদের সহযোগিতায় বাংলাদেশ উপ-দূতাবাস দেখাশুনা করে। ঘরের মূল চাবিটিও থাকে উপ-দূতাবাসেই। অন্য চাবিটি থাকে হোস্টেল সুপার ও মাওলানা আজাদ কলেজের অধ্যাপক দবীর আহমেদের কাছে।

সম্প্রতি এই মূর্তি সরানোর দাবি করেছে, ‘সারা বাংলা সংখ্যালঘু যুব ফেডারেশন’ নামে একটি সংগঠন। তাদের দাবি, ‘ইসলাম ধর্মে মূর্তির স্বীকৃতি নেই। বেকার হোস্টেলের ভেতরে মসজিদ রয়েছে। তাই হোস্টেলের মধ্যে কোনও ইসলামবিরোধী কাঠামো গড়া অন্যায়।’ সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মহম্মদ কামরুজ্জামান বলেন, ‘অবিলম্বে ওই মূর্তি হোস্টেল থেকে সরিয়ে কলকাতার যেকোনও সরকারি জায়গায় বসানো হোক।’

সূত্র: আনন্দবাজার

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here