বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ পরস্পর অবিচ্ছেদ্য

0
216

বাঁচিয়া থাকিলে আজ ৯৮ বত্সরে পা রাখিতেন তিনি। ইহা সুবিদিত যে বয়সের হিসাবে তাঁহার জীবনকাল মোটেও দীর্ঘ ছিল না। কিন্তু মাত্র ৫৫ বত্সরের (১৯২০-৭৫) নাতিদীর্ঘ জীবনে তিনি যে অসাধ্য সাধন করিয়া গিয়াছেন বাঙালির হাজার বত্সরের ইতিহাসে তাহার তুলনা বিরল। যাহা ছিল এই জনপদের মানুষের স্বপ্নেরও অতীত—সেই স্বাধীনতাই তিনি উপহার দিয়াছেন জাতিকে। আজ নানা ক্ষেত্রে আমাদের কতই না অর্জন! বাংলাদেশের গর্বিত নাগরিক হিসাবে বিশ্বব্যাপী আমাদের অবাধ বিচরণ। পারিপার্শ্বিক নানা প্রতিকূলতার পাহাড় ডিঙাইয়া উন্নয়নের মহাসড়ক ধরিয়া দৃপ্ত পায়ে আগাইয়া চলিয়াছে বাংলাদেশ। সমাজ ও অর্থনীতির বিভিন্ন সূচকে আমাদের সাফল্য বিশ্ববাসীর বিস্ময়মুগ্ধ মনোযোগের কেন্দ্রবিন্দু হইয়া উঠিয়াছে। বলা বাহুল্য যে সবই সম্ভব হইয়াছে স্বাধীনতার বদৌলতে। স্বাধীনতার মহান স্থপতি হিসাবে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান শুধু যে সম্ভাবনার অসীম সেই দিগন্ত উন্মোচন করিয়া গিয়াছেন তাহাই নহে, একই সাথে হতাশাক্লিষ্ট জাতিকে উদ্বুদ্ধ করিয়াছেন বংশানুক্রমিক ভয়কে জয় করিবার মৃত্যুঞ্জয়ী মন্ত্রেও। বঙ্গবন্ধুর ভাষায় সেই মন্ত্রটি হইল: ‘আমরা যখন মরতে শিখেছি কেউ আমাদের দাবায়ে রাখতে পারবে না।’

কিন্তু অপ্রিয় হইলেও সত্য যে বড়ই অকৃতজ্ঞ আমরা! স্বদেশবাসীর কল্যাণের জন্য যে-মানুষটি তাঁহার সমগ্র জীবন উত্সর্গ করিয়াছেন, সহ্য করিয়াছেন অবর্ণনীয় দুর্ভোগ এবং জীবনের উল্লেখযোগ্য একটি সময় অতিবাহিত করিয়াছেন কারান্তরালে—স্বাধীনতার মাত্র সাড়ে তিন বত্সরের ব্যবধানে স্বাধীন স্বদেশের মাটিতেই নজিরবিহীন নৃশংসতার শিকার হইতে হইয়াছে সেই নেতাকে। এমনকি ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ জারি করিয়া রুদ্ধ করা হইয়াছিল বিচারের পথও। বত্সরের পর বত্সর ধরিয়া কুত্সা ও অপপ্রচার চালানো হইয়াছে জাতির মহত্তম এই নেতার বিরুদ্ধে। ইতিহাস হইতে মুছিয়া ফেলার সর্বাত্মক অপচেষ্টা চালানো হইয়াছে তাঁহার নাম। দুর্ভাগ্যজনকভাবে স্বাধীনতার দীর্ঘ ৪৫ বত্সর পরও এই হীনমন্যতা হইতে আমরা মুক্ত হইতে পারি নাই। জাতি হিসাবে আমাদের জন্য ইহার চাইতে লজ্জা ও গ্লানিকর আর কী হইতে পারে!

গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ার অকুতোভয় সন্তান শেখ মুজিবুর রহমান কীভাবে—কত দীর্ঘ ও দুর্গম পথ পাড়ি দিয়া—জাতির হূদয়ে স্থায়ী আসন করিয়া লইয়াছেন তাহার হূদয়গ্রাহী বর্ণনা রহিয়াছে বঙ্গবন্ধুর ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’তে। আজকাল এমন আক্ষেপ প্রায়শ শোনা যায় যে আমাদের শিশু-কিশোর-তরুণদের সম্মুখে মহত্ কোনো আদর্শ বা অনুসরণযোগ্য কোনো নেতা নাই বলিয়াই তাহারা বিপথগামী হইতেছে। ইহা খুবই তাত্পর্যপূর্ণ যে বঙ্গবন্ধুর জন্মদিনটি যুগপত্ জাতীয় শিশু দিবস হিসাবেও উদযাপিত হয় রাষ্ট্রীয়ভাবে। আমাদের শিশুকিশোরদের জন্য বঙ্গবন্ধুর চাইতে মহত্ অনুপ্রেরণা আর কী হইতে পারে! আমরা আশা করি, সংশ্লিষ্ট সরকারি প্রতিষ্ঠানসমূহ বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্ম সহজ ও বোধগম্যভাবে তাহাদের সম্মুখে তুলিয়া ধরিতে উদ্যোগী হইবে। তবে যে-কথাটি না বলিলেই নয় তাহা হইল, কেবল তরুণদেরই নয়—দলমতনির্বিশেষে সর্বস্তরের নেতাকর্মীদেরও বঙ্গবন্ধুর নীতি ও আদর্শ অনুসরণ করা অত্যাবশ্যক বলিয়া আমরা মনে করি।

বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ পরস্পর অবিচ্ছেদ্য। বাংলাদেশের অস্তিত্বের মধ্যেই তিনি বাঁচিয়া থাকিবেন। জন্মদিনে মহান এই নেতার প্রতি জানাই গভীর শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here