বঙ্গবন্ধু ও রাজেক আহমেদ

0
74

ডি এইচ দিলসান : সেদিন বঙ্গবন্ধুর একান্ত সান্নিধ্যে যাওয়ার সুযোগ পেয়েছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সেই সময়কার ছাত্রলীগের সহসভাপতি রাজেক আহমেদ। তিনি এই মহাপুরুষের স্মৃতি চারণ করতে গিয়ে বলেছিলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে অনেকবারই খুব কাছ থেকে দেখার সুযোগ হয়েছে তার। তিনি বলেছিলেন স্বাধীনতার আগে এবং পরে খুলনায় প্রেগাম থাকলে বঙ্গবন্ধু বিমানে চড়ে যশোর হয়ে যেতেন। এসময় হাতে গোনা কয়েকজনের মধ্যে আমিও উপস্থিত হতাম সেখানে। তিনি বলেন, আমার পরিচিত এক রিক্সাচালক (নাম মনে নেই), বড়ি গোপালগঞ্জ, ইচ্ছা ব্যক্ত করেছিল বঙ্গবন্ধুকে কাছ থেকে দেখবার। একদিন তার কথা মতো যশোর বিমান বন্দরে নিয়ে গেলাম। সেই রিক্সাচালককে বঙ্গবন্ধুর সামনে নিয়ে বললাম বঙ্গবন্ধু এ আপনাকে দেখতে এখানে এসেছে। ও আপনার দেশের লোক, এসময় বঙ্গবন্ধু রাজেক আহমেদের পিঠে আদর করেই একটা চড় দিয়ে বলেন, তুই কোন দেশের?
রাজেক আহমেদ বলেন, বঙ্গবন্ধুকে ছবিতে যেমন দেখা যায় বাস্তবে তিনি ছিলেন আরো আকর্ষণীয়। তাঁর সামনে দাঁড়ালে মনে হতো অনেক আগে থেকেই সে সম্পর্ক, অনেক আপনজন। তাঁর কাছ থেকে সরতে ইচ্ছে করতো না। রাজেক আহমেদ আর একদিনের স্মৃতি চারণ করতে গিয়ে কিছুটা আবেগ আপ্লুত হয়ে পড়েন। তিনি বলেন একবার ঢাকায় বঙ্গবন্ধু ভবনে গিয়েছি তাঁর সাথে দেখা করতে। বঙ্গবন্ধুর কাছে যেতেই আমার ছিপছিপে শরীর দেখে বঙ্গবন্ধু বুকে হাত বুলিয়ে বলেন তোর অবস্থা এমন কেন? শরীরটা খারাপ নাকি ? সাথে সাথে তোফায়েল আহমেদ (সেসময়ে বঙ্গবন্ধুর এপিএস) কে ডেকে তিনি বলেন এই দেখ আমার সোনার ছেলে ওর হাড্ডি বেরিয়ে গেছে, ভালো চিকিৎসার ব্যবস্থা কর। এসময় অশ্রুসজল হয়ে পড়েন রাজেক আহমেদ। তিনি বলেন বঙ্গবন্ধুকে অন্যদেশের চক্রান্তে এদেশের কিছু মানুষ হত্যা করেছে।