বনানীর হোটেলে ধর্ষণকাণ্ডের বিভিন্ন দিক

0
281

বদরুদ্দীন উমর : বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই ছাত্রীকে ঢাকার একটি মহার্ঘ হোটেলে ধর্ষণ করার ঘটনাকে কেন্দ্র করে অনেক প্রতিবাদ, বিক্ষোভ, মানববন্ধন, বিবৃতি ও লেখালেখি হচ্ছে। ধর্ষণের ঘটনা বাংলাদেশে নতুন নয়। দেশের অবস্থা এখন এমন দাঁড়িয়েছে, যাতে প্রতিদিনই সংবাদপত্রে শুধু এক-আধটা নয়, অনেক ধর্ষণের খবরই প্রকাশ হয়। বাংলাদেশের প্রধান জাতীয় পত্রিকাগুলোতে এখন ধর্ষণ, খুন-খারাবি, চুরি-দুর্নীতির খবরই সব থেকে বেশি পাওয়া যায়। তার সঙ্গে ইদানীং যুক্ত হয়েছে জঙ্গি তৎপরতা। এসব দেখে পত্রিকাগুলোকে মনে হয় ক্রাইম পত্রিকা। পত্রিকাগুলোর দোষ নেই। বাংলাদেশের সমাজ এখন যেভাবে পৎরসরহধষরংবফ হয়েছে, যেভাবে এই সমাজের অপরাধিকীকরণ ঘটেছে তার প্রতিফলনই সংবাদপত্রের পাতায় এভাবে দেখা যায়।

আগেকার দিনে সংবাদপত্রে ক্রাইমের খবর কমই থাকত। ধর্ষণের মতো ঘটনা কদাচিৎ ঘটত। কিন্তু বাংলাদেশে এখন ধর্ষণের ব্যাপকতা বিপজ্জনকভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। শুধু ধর্ষণ নয়, স্কুল-কলেজের নারী শিক্ষার্থীর পেছন নেওয়া ও তাদেরকে বখাটে লোকজন কর্তৃক উত্ত্যক্ত করতে থাকার ঘটনাও এখন ভূরি ভূরি। এর ফলে অনেক অল্পবয়স্ক মেয়ের আত্মহত্যার খবরও দেখা যায়। এ ধরনের খবর সংখ্যায় অনেক হলেও সেগুলো নিয়ে সাধারণত তেমন প্রতিবাদ হয় না। প্রতিবাদ হয় সেসব ক্ষেত্রে, যেখানে সমাজের উচ্চ পর্যায়ে অর্থাৎ ধনসম্পদওয়ালাদের মধ্যে এটা ঘটে। কয়েকদিন থেকে বনানীর এক হোটেলে এ রকম ধর্ষণের ঘটনা নিয়েও এখন অনেক শোরগোল-প্রতিবাদ ইত্যাদি হচ্ছে। যারা ধর্ষণ করেছে তারা অগাধ ধনসম্পদের মালিকদের ছেলে এবং নৈতিকতার দিক দিয়ে সমাজের নিম্নতম স্তরের পরিবারের সন্তান। এ কথা বলার কারণ, এই ধর্ষকদের পরিবারের লোকেরা তাদের সন্তানদের এই অপরাধমূলক কাজের বিরোধী নয়। উপরন্তু পরিবার থেকেই ‘উৎসাহ’ ও ‘প্রেরণা’ লাভ করেই তারা ধর্ষণের মতো কাজে বেপরোয়াভাবে লিপ্ত হয়।

সাফাত আহমদ নামে যে ক্রিমিনাল এই ধর্ষণকাণ্ড করেছে সে আপন জুয়েলার্স নামক এক ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানের মালিকের ছেলে। তার নাম দিলদার আহমেদ সেলিম। তার নিজের ছেলের ধর্ষণের বিষয়ে যুগান্তর পত্রিকার প্রতিনিধিকে তার অফিসেই সে এক সাক্ষাৎকারে যা বলে, তা একেবারে স্তম্ভিত হওয়ার মতো ব্যাপার। সে বলেছে, ‘আরে মিয়া, আমার পোলা আকাম (ধর্ষণ) করছে তো কী হইছে? জোয়ান পোলা, একটু-আধটু তো এসব করবই। আমিও তো করি। আমার যৌবন কি শেষ হয়ে গেছে? আমি এখনও বুড়া হইনি।’ যুগান্তরের রিপোর্ট অনুযায়ী এই সাক্ষাৎকারের সময় আপন জুয়েলার্সের কর্মকর্তা ডা. দৌলাসহ তার ঘনিষ্ঠ আরও দুই বন্ধু উপস্থিত ছিল। তারাও মাথা নেড়ে সেলিমের এমন বক্তব্য সমর্থন করে (যুগান্তর ১৩.৫.২০১৭)।

আসলে আপন জুয়েলার্সের মালিকের এই বক্তব্য শুধু স্তম্ভিত হওয়ার মতো নয়, রীতিমতো লোমহর্ষক। এটা শুধু এ জন্য নয় যে, একজন পিতা তার সন্তানের অপরাধের সমালোচনা করছে না; তার জন্য লজ্জাবোধও করছে না। উপরন্তু কোনো কিছুর পরোয়া না করে তা সমর্থন করছে। এটা এ জন্যও যে, বাংলাদেশে আজ যারা নানা ধরনের বিশাল শিল্প ব্যবসায়ের মালিক, তারা চরিত্রের দিক দিয়ে কত ইতর ও নিম্নশ্রেণির, এর মধ্যে তার অভ্রান্ত পরিচয় আছে। এই ইতর চরিত্রের লোকেরা যে ব্যবসা করছে, সে ব্যবসার চরিত্র কি অন্য রকম হতে পারে? এটা ভাবা ঠিক হবে না যে, আপন জুয়েলার্সের মালিক এদিক দিয়ে কোনো ব্যতিক্রম অথবা সংখ্যায় তারা কম। উপরন্তু বাংলাদেশে শিল্প ব্যবসা এখন প্রধানত এ ধরনের ইতর চরিত্রের দুর্নীতিবাজদের দ্বারাই পরিচালিত হচ্ছে। এদের প্রাধান্যই সমগ্র অর্থনীতির ওপর বহাল আছে। এর সত্যতা এই থেকেই বোঝা যাবে যে, আপন জুয়েলার্সের মালিকের উপরোক্ত ইতর ও স্পর্ধিত বক্তব্যের প্রতিবাদ অনেক মহল থেকে হলেও শিল্প মালিক ও ব্যবসায়ীদের প্রতিষ্ঠান থেকে এর বিরুদ্ধে কোনো বক্তব্য প্রদান ও প্রতিবাদ হয়নি। এটা কোনো উপেক্ষার বিষয় বা তাৎপর্যহীন ব্যাপার নয়। ১৯৭২ সাল থেকে এ দেশে লুটপাট, চুরি, ঘুষ, দুর্নীতি ইত্যাদির মাধ্যমে যেভাবে পুঁজি গঠিত হয়েছিল এবং যেভাবে এই পুঁজির মালিকদের চরিত্রও গঠিত হতে শুরু হয়েছিল, তার ধারাবাহিক বিকাশ আজ দেশকে কোন পর্যায়ে এনে দাঁড় করিয়েছে, তার পরিচয়ও এর মধ্যেই আছে।

আপন জুয়েলার্সের মালিকের ছেলে ধর্ষক সাফাত আহমদ গ্রেফতার হওয়ার পর পুলিশের গোয়েন্দাদের কাছে বলেছে যে, তার বাবা তাকে প্রতিদিন ‘হাত খরচা’ হিসেবে দেয় দুই লাখ টাকা! আর ওই টাকা নিয়ে প্রতি রাতেই তারা মহার্ঘ কোনো না কোনো হোটেলে পার্টি দিয়ে থাকে, যে ধরনের পার্টিতে আলোচ্য ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে (যুগান্তর, ১৪.৫.২০১৭)। এত টাকা একজন তার বাবার থেকে প্রতিদিন হাত খরচা হিসেবে পেয়ে থাকে, এটা এক তাক লাগানোর মতো ব্যাপার। বিশেষত যে দেশে একজন শ্রমিকের মাসিক মজুরি হলো পাঁচ-ছয় কি সাত হাজার টাকার মতো!

যে প্রতিদিন হাত খরচা হিসেবে দুই লাখ টাকা পায়, তার হাত খরচা মাসে ষাট লাখ টাকা! এত টাকা একজন তার বাবার কাছ থেকে পেলে সে লোচ্চা, লম্পটগিরি এবং ইতরামি ছাড়া আর কী করতে পারে? তার বাবার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী, সে নিজেও এই কাজ করে থাকে! তাহলে এ ধরনের পরিবারের অবস্থাই-বা কী? এরা কি কোনো সভ্য সমাজের লোক হিসেবে গণ্য হতে পারে? এর থেকেই বোঝা যায়, দেশে যে শুধু লুটপাট, ভূমি দস্যুতা, চুরি, দুর্নীতি ইত্যাদি ধনসম্পদ উপার্জনের উপায় দাঁড়িয়েছে তাই নয়। যারা এভাবে ধনসম্পদ উপার্জন করছে তারা সারাদেশের সমাজ, সমাজের রীতিনীতি ইত্যাদির ওপর প্রভাব ও প্রাধান্য বিস্তার করে আছে। এটা যদি না হতো তাহলে সারাদেশে এখন ধর্ষণ, চুরি, দুর্নীতি, মিথ্যার রাজত্ব যেভাবে কায়েম হয়েছে, সেটা সম্ভব হতো না। কাজেই ধনিক শ্রেণির লোকদের ধর্ষণ ইত্যাদি অপরাধের ঘটনায় সমালোচনা করলে তার বিরুদ্ধে বিবৃতি দিয়ে, মানববন্ধন করে প্রতিবাদ করলেই সমস্যার সমাধানের ধারে-কাছেও যাওয়া সম্ভব নয়। সেটা সম্ভবও হচ্ছে না। কারণ, ধর্ষণের এ ধরনের ঘটনা এই প্রথম ঘটল না। সংবাদপত্রে ধনসম্পদের মালিকদের এ ধরনের অপরাধের খবর প্রায়ই দেখা যায়। তার বিরুদ্ধে প্রতিবাদও নানাভাবে হয়; কিন্তু তার ফলে এই অপরাধ কমে না। উপরন্তু ক্রমাগত বৃদ্ধিই পায়। এসবের বিরুদ্ধে সমাজে যদি সচেতনতা সৃষ্টি করা না যায়, তাহলে যে ধরনের প্রতিবাদ এখন করা হচ্ছে, সেটা করা অর্থহীন ছাড়া আর কী? ধর্ষণকাণ্ড যেভাবে চলছে তার পাশাপাশি প্রতিবাদও চলতে থাকবে; কিন্তু এদিক দিয়ে পরিস্থিতির কোনো উন্নতি হবে না।

এখানে আর একটি বিষয়ের উল্লেখ করা দরকার। সারাদেশে এমনকি গ্রামাঞ্চলেও এখন ধর্ষণের ঘটনা অনেক ঘটছে। সে ক্ষেত্রে নিরীহ মেয়েরা, বিশেষত স্কুল-কলেজের ছাত্রীরা অপরাধীদের আক্রমণের শিকার হচ্ছে। কিন্তু ঢাকার বড় হোটেলগুলোতে ধর্ষণের যেসব ঘটনা ঘটছে এবং সেই ঘটনায় যেভাবে মেয়েরা ধর্ষিত হচ্ছে, তার চরিত্র এক নয়। ধনসম্পদের মালিকের যেমন ছেলে আছে, তেমনি তাদের মেয়েরাও আছে। দেশের বিদ্যমান পরিস্থিতিতে মেয়েরা রাতে এসব হোটেলে কেন যাবে? যে মেয়েরা এভাবে রাতে পার্টিতে যায় প্রায় অপরিচিত লোকদের কাছে, তাদের কি উচিত নয় সতর্ক ও সাবধান হওয়া? কাজেই এ বিষয়টিকে ধর্ষণকাণ্ডের ক্ষেত্রে আলোচনার বাইরে রাখা উচিত নয়। এ বিষয়েও সচেতনতা এবং আলোচনার প্রয়োজন আছে। এ আলোচনা বাদ দিয়ে বা এড়িয়ে গিয়ে বিদ্যমান পরিস্থিতির চরিত্র বুঝে ওঠা যে সম্ভব নয়, এটা বলাই বাহুল্য।
সভাপতি, জাতীয় মুক্তি কাউন্সিল

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here