বন্ধ হউক পাহাড়ে ঝুঁকিপূর্ণ বসবাস

0
210

কক্সবাজারের উখিয়া উপজেলায় পাহাড়ের কোলঘেঁষিয়া ঝুঁকি লইয়া বসবাস করিতেছে প্রায় অর্ধলক্ষাধিক মানুষ। এই দিকে বর্ষাও প্রায় আসন্ন। আর বর্ষার ভারী বর্ষণে পাহাড় ধসিয়া বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটিবার আশঙ্কাও থাকে প্রবল। বলা যায়, এমন দুর্ঘটনা প্রতি বত্সরই বর্ষা মৌসুমে প্রায়শই ঘটিয়া থাকে। পত্রিকান্তরে প্রকাশিত প্রতিবেদন হইতে জানা যায়, ২০১১ সালে উখিয়ায় পাহাড়-ধসজনিত কারণে মৃত্যু হইয়াছিল ১২ জনের। শুধু উখিয়াতেই নহে, বৃহত্তর চট্টগ্রামের বিভিন্ন স্থানেও পাহাড়ের কোলঘেঁষিয়া ঝুঁকিপূর্ণভাবে বসবাস করিতেছে কয়েক লক্ষ মানুষ। আর বিগত দশ বত্সরে চট্টগ্রামেও পাহাড়-ধসে মৃত্যুবরণ করিয়াছে প্রায় দুই শতাধিক মানুষ।

চট্টগ্রামে পাহাড়-ধসের সবচেয়ে ভয়াবহ দুর্ঘটনাটি ঘটে ২০০৭ সালে। জানা যায়, ওই বত্সর নগরীর সাতটি স্থানে পাহাড় ধসিয়া মাটির নিচে চাপা পড়িয়া প্রাণ হারান ১২৭ জন। দুর্ঘটনাটির পর এই ব্যাপারে গঠিত তদন্ত কমিটি পাহাড়-ধসের ২৮টি কারণ চিহ্নিত করিয়া ৩৬ দফা সুপারিশ করেন। সুপারিশসমূহের মধ্যে পাহাড়ে বসবাসকারীদের পুনর্বাসন, পাহাড় কাটায় জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ, নিরাপত্তা প্রাচীর নির্মাণ, বালি উত্তোলন নিষিদ্ধকরণ, পাহাড়ের ১০ কিলোমিটারের মধ্যে ইটভাটা নির্মাণের অনুমতি না দেওয়া ও পাঁচ কিলোমিটারের মধ্যে হাউজিং প্রকল্প না করার মতো বিষয়গুলি ছিল উল্লেখযোগ্য। কিন্তু গত দশ বত্সরেও এইসকল সুপারিশ বাস্তবায়ন করা সম্ভব হয় নাই। তবে কোনো দুর্ঘটনা ঘটিবার পর সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে সাময়িকভাবে এই ব্যাপারে কিছু পদক্ষেপ (বিশেষ করিয়া সংশ্লিষ্ট এলাকায় উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনার মতো পদক্ষেপ) লইতে দেখা যায়। কিন্তু পরবর্তীকালে অন্য একটি দুর্ঘটনা না ঘটা অবধি কর্তৃপক্ষ প্রায় ক্ষেত্রেই নিষ্ক্রিয় থাকে। তাহা ছাড়া পাহাড়ের মালিকানা সরকারের হইলেও সংঘবদ্ধ কয়েকটি চক্র পাহাড়ের কোলে ঘর নির্মাণ করিয়া অবলীলায় তাহা নিম্নআয়ের মানুষের নিকট ভাড়া দিয়া আয় করিতেছেন লক্ষ লক্ষ টাকা। স্বাভাবিকভাবে এখন প্রশ্ন জাগে—ঝুঁকিপূর্ণ এই বসবাসের সহিত জীবন-মৃত্যুর প্রশ্ন জড়িত থাকিলেও কেন প্রশাসন এইসকল চক্রের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করিতেছেন না?

বর্ষার পূর্বে মাইকিং করিয়া এবং কিছু বসবাসকারীকে সাময়িক সময়ের আশ্রয়কেন্দ্রে লইয়া গেলেই কেবল সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দায়িত্ব শেষ হইয়া যায় না। পাহাড়ের কোলে বসবাসকারীদের মৃত্যুর মিছিল বন্ধ করিবার জন্য সর্বাগ্রে প্রয়োজন বর্ষা আসিবার পূর্বে পাহাড়ে ঝুঁকিপূর্ণ বসবাস বন্ধ করা এবং বসবাসকারীদের স্থায়ীভাবে পুনর্বাসন করা। পাশাপাশি পূর্ববর্তী তদন্ত কমিটির দেওয়া সুপারিশসমূহ যতদূর সম্ভব বাস্তবায়ন করা প্রয়োজন। সর্বোপরি, বসবাসকারীদেরও নিজেদের জীবনের ব্যাপারে সচেতন হইতে হইবে। কোনোভাবে মাথা গুঁজিবার ঠাঁই পাইতে গিয়া অতি মূল্যবান জীবনটিকেই মৃত্যুর দিকে ঠেলিয়া দেওয়াটা বুদ্ধিমানের কাজ নহে। ব্যক্তিগত সচেতনতায় হউক, কিংবা কর্তৃপক্ষের কঠোর উদ্যোগে হউক—পাহাড়ের কোলে ঝুঁকিপূর্ণ বসবাস বন্ধ হওয়াটা জরুরি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here