বন্যায় গাইবান্ধায় ৫১ স্কুলে পাঠদান ব্যাহত

0
337

গাইবান্ধা প্রতিনিধি: টানা বৃষ্টি আর উজানের পাহাড়ি ঢলে গাইবান্ধার সার্বিক বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি হয়েছে। বন্যার কারণে জেলার তিনটি স্কুল বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। এছাড়া আরও ৪৮টির মতো স্কুলে পানি ঢুকে পড়ায় পাঠদান ব্যাহত হচ্ছে। পাহাড়ি ঢলে ব্রহ্মপুত্র ও ঘাঘট নদীতে পানি বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হলেও তিস্তা, যমুনা ও করতোয়া নদীর পানি বিপদসীমার নিচে রয়েছে। পানিতে তলিয়ে গেছে আউশ ধান। পানিবন্দী হয়ে পড়েছে হাজারো মানুষ।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের দেয়া তথ্য অনুযায়ী গত ২৪ ঘণ্টায় ব্রহ্মপুত্রের পানি বিপদসীমার ৩৮ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ঘাঘট নদীর পানি বিপদসীমার ২৪ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এছাড়া তিস্তা, যমুনা ও করতোয়া নদীর পানি বিপদসীমার নিচে রয়েছে।

বন্যা পরিস্থিতি অবনতি হওয়ায় জেলার সুন্দরগঞ্জ, সদর, ফুলছড়ি ও সাঘাটা উপজেলার নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হয়েছে। চার উপজেলার প্রায় ৭৫ হাজার পরিবার এখন পানিবন্দী। ওইসব এলাকার নিচু এলাকা পানিতে তলিয়ে গেছে। চরাঞ্চলের রাস্তা-ঘাট, ফসলি জমি জলমগ্ন হয়ে পড়েছে।

বন্যার পানি প্রবেশ করায় ফুলছড়ি উপজেলার এরেন্ডাবাড়ী ইউনিয়নে তিনটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আজিজুর রহমান।

এছাড়া ফুলছড়ি সদর, সুন্দরগঞ্জসহ চরাঞ্চল বেষ্টিত ৪৮টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের আশপাশে বন্যার পানি উঠায় পাঠদান বিঘ্নিত হচ্ছে। নতুন করে এরেন্ডাবাড়ী ইউনিয়নের ১৩০টি পরিবার নদী ভাঙনের শিকার হয়েছে। ভাঙনের মুখে পড়েছে আরও কয়েকটি প্রতিষ্ঠান।

আগামী ১৫ দিন পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকবে বলে জানিয়েছেন গাইবান্ধা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মাহবুবুর রহমান।

জেলা প্রশাসক গৌতম চন্দ্র পাল জানান, চরাঞ্চলসহ বিভিন্ন নিচু এলাকার মানুষ এখনও আশ্রয় কেন্দ্রে আসার মত পরিস্থিতিতে পড়েননি। তবে আশ্রয় কেন্দ্রগুলোও তৈরি রাখা হয়েছে। প্রশাসনের হাতে পর্যাপ্ত ত্রাণ সামগ্রী রয়েছে।

তিনি বলেন, এ পর্যন্ত জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে জরুরিভাবে ১শ’ ২৫ মেট্রিক টন চাল ও ১০ লাখ টাকা ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। এরমধ্যে বিতরণ করা হয়েছে ৫০ মেট্রিকটন চাল ও ২ লাখ টাকা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here