বন্যা-পরবর্তী পুনর্বাসন ও খাদ্য নিরাপত্তা

0
230

ড. জাহাঙ্গীর আলম : আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকারের গত প্রায় ৮ বছর বেশ ভালো কেটেছে। তেমন উল্লেখযোগ্য কোনো প্রাকৃতিক দুর্যোগ ছিল না। কৃষির উত্পাদন ছিল বর্ধিষ্ণু। মোটাদাগে খাদ্যশস্যের বাজারদর ছিল ভোক্তাদের নাগালের মধ্যে। এবার তার কিছুটা ব্যতিক্রম লক্ষ্য করা যাচ্ছে। দেশের এক-চতুর্থাংশ এলাকা হয়েছে বন্যা কবলিত। ফসল মার খেয়েছে। বেড়েছে খাদ্যশস্যের মূল্য।

এবারের বন্যা হয়েছে দুই পর্বে। প্রথমে গত এপ্রিল মাসের গোড়ার দিকে আগাম বন্যা হয়েছে দেশের উত্তর পূর্বাঞ্চলে। বন্যা হয়েছে উজানের ঢলের কারণে। মেঘালয় ও ত্রিপুরার পাহাড়ে আর বারাক উপত্যকায় অত্যধিক বৃষ্টিপাতের ফলে এই বন্যার প্রাদুর্ভাব ঘটে। তাতে সিলেট, সুনামগঞ্জ, হবিগঞ্জ, কিশোরগঞ্জ, নেত্রকোনা ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিস্তীর্ণ এলাকা অকাল বন্যায় ভেসে যায়। ডুবে যায় শতকরা প্রায় ৮০ ভাগ কাঁচা-পাকা বোরো ধান। পানিবন্দি হয়ে পড়ে হাওরের অসংখ্য মানুষ। অতি সম্প্রতি ভারতের আসাম ও মেঘালয়ে টানা বর্ষণের ফলে পাদদেশ সুরমা ও কুশিয়ারা স্ফীত হয়ে পুনরায় ভাসিয়ে দিয়েছে দেশের উত্তর পূর্বাঞ্চল। তাতে সিলেট, মৌলভীবাজার ও সুনামগঞ্জের প্রায় ৩ লাখ হেক্টর জমির আউশ ধান তলিয়ে গেছে। বিনষ্ট হয়েছে সবজিখেত। ভেসে গেছে মাছ ও হাঁস। পানিবন্দি হয়েছে হাজার হাজার মানুষ। তারা হয়েছে কর্মহীন, আর্থিকভাবে বিপর্যস্ত। তাদের পুনর্বাসন দরকার, সহায়তা দরকার।

অপরদিকে পশ্চিমবঙ্গে অতিরিক্ত বৃষ্টির কারণে গজলডোবায় তিস্তা ব্যারেজের অধিকাংশ গেট খুলে দেওয়া হয়। তাতে তিস্তা, ধরলা, যমুনা ও ব্রহ্মপুত্রের পানি বৃদ্ধি পায়। তাতে বন্যা হয় ওইসব নদী বাহিত এলাকায়। বিশেষ করে কুড়িগ্রাম, গাইবান্ধা, লালমনিরহাট, নীলফামারী, জামালপুর ও সিরাজগঞ্জে ডুবে গেছে আউশ ধান, পাট, সবিজ ক্ষেত ও আমন ধানের চারা। বন্যার পানি সরে যেতে দেরি হলে আমন ধান রোপণের সময় পিছিয়ে যাবে। তাতে ফলন হ্রাস পাবে। সবজির উত্পাদন বিঘ্নিত হবে। তাছাড়া দেশের পূর্ব দক্ষিণাঞ্চলে বন্যা হয়েছে পাহাড়ি ঢল ও অতিরিক্ত বৃষ্টির কারণে। চট্টগ্রাম, রাঙামাটি, বান্দরবান ও কক্সবাজারের ব্যাপক এলাকা তাতে জনমগ্ন হয়ে গেছে। এভাবে ধাপে ধাপে বন্যার প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে দেশের প্রায় এক চতুর্থাংশ এলাকা। সেখানে জীবন ও জীবিকা নতুন করে শুরু করতে হবে। সহায়তা দিতে হবে অসহায় বানভাসি মানুষদের।

বন্যার ক্ষতি সীমাহীন। দুর্ভোগ অবর্ণনীয়। তবে আশীর্বাদও আছে। তাতে পলিমাটি পড়ে উর্বরতা বেড়ে যায় কৃষি জমির। রাসায়নিক দ্রব্যাদি ব্যবহারের কারণে ক্ষতিকর বিষাক্ততা ধুইয়ে মুছে যায়। এক নির্মল রূপ ধারণ করে গ্রামীণ প্রকৃতি। সে কারণে যে বছর বন্যা হয় তার পরের বছর ফসল ভালো হয়। কৃষক তার খাদ্য নিরাপত্তার জন্য অধিক আগ্রহে মাঠে কাজ করে। কৃষিতে সে বিনিয়োগ বাড়ায়। উদাহরণ স্বরূপ ১৯৯৮-৯৯ সালের বন্যার পর ১৯৯৯-২০০০ সালে বাম্পার ফলন হয়েছিল সকল কৃষিপণ্যের। বিশেষ করে খাদ্যশস্যের। দেশ হয়েছিল চাল উত্পাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণ। তেমনি ২০০৭-০৮ সালের বন্যার পর ২০০৮-০৯ ও ২০০৯-১০ সালে বাম্পার ফলন হয়েছিল খাদ্যশস্যের। এ সময় খাদ্যশস্যের উত্পাদনে প্রবৃদ্ধির হার দাঁড়িয়েছিল যথাক্রমে ৩.০৯ এবং ৬.৫৫ শতাংশ। নতুন আওয়ামী লীগ সরকারের কৃষি পুনর্বাসন কর্মসূচি ও উদার সহায়তার কারণে স্মরণকালের সর্বোচ্চ প্রবৃদ্ধি অর্জিত হয়েছিল কৃষিখাতে। ২০০৯-১০ সালের পর এ প্রবৃদ্ধিতে ভাটা পড়ে। সামনের অর্থবছরে তা পুনরায় অর্জন করার সুযোগ আসতে পারে। সে কারণে বন্যা-উত্তর কৃষি পুনর্বাসন কর্মসূচিকে জোরদার করা দরকার।

হাওর অঞ্চলে আগামী সেপ্টেম্বর-অক্টোবর মাসে পানি সরে গেলে বিলের কিনারাগুলো জেগে উঠবে। তাতে সরিষা, মশুর এবং ভুট্টার চাষ সম্ভব হবে। অক্টোবর-নভেম্বর থেকে শুরু হবে বোরো ধান চাষের কার্যক্রম। সম্ভব হবে সবজির চাষও। অন্যান্য বন্যা উপদ্রুত এলাকায় রোপা আমন, শীতকালীন ফসল ও বোরো ধান চাষের পূর্ণ সুযোগ থাকবে। তাছাড়া হাওরে মাছের পোনা অবমুক্তকরণ হবে উল্লেখযোগ্য একটি বিনিয়োগের ক্ষেত্র। প্রয়োজনীয় উপকরণ সহায়তা এবং নগদ অর্থ সাহায্য বন্যাদুর্গত মানুষের জন্য এসব কার্যক্রমে খুবই ইতিবাচক ভূমিকা রাখবে। মানুষের ঘর বাড়ি মেরামত, পরিধেয় বস্ত্র ক্রয়, আর্থিক কর্মকাণ্ডে বিনিয়োগ আত্মকর্মসংস্থান ও অন্যান্য প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রে খরচের জন্য দুর্গত মানুষের অনেক নগদ অর্থের প্রয়োজন হয়। কিন্তু ত্রাণ বিতরণ যারা করেন, নগদ অর্থের সংস্থান তারা খুব কমই করে থাকেন। সে কারণে সরকারি অনুদান নগদ অর্থে ব্যাংক একাউন্টের মাধ্যমে প্রেরণ করাই শ্রেয়। তাতে অর্থ লোপাটের আশঙ্কা হ্রাস পাবে।

প্রাকৃতিক দুর্যোগের পর দ্রব্যমূল্য স্থিতিশীল রাখা একটি বড় চ্যালেঞ্জ। এ বিষয়ে আমাদের অভিজ্ঞতা তেমন সুখের নয়। ২০০৭ ও ২০০৮ সালে এদেশে দ্রব্যমূল্য সীমা ছাড়িয়ে গিয়েছিল। প্রাকৃতিক দুর্যোগ ছাড়াও বিশেষ কোনো ক্ষেত্রে সম্প্রতি দ্রব্যমূল্য অস্থির হয়ে উঠেছে। উদাহরণস্বরূপ ২০১৫-১৬ অর্থবছরে পেঁয়াজের মূল্য অস্বাভাবিক বেড়ে যাওয়ার কথা বলা যায়। অতি সম্প্রতি রসুনের দাম বেড়েছে। চিনির দাম বেড়েছে বল্গাহীনভাবে। এসব মূল্যবৃদ্ধি ঘটেছে কোনো প্রাকৃতিক দুর্যোগ ছাড়াই। তবে চালের সাম্প্রতিক মূল্যবৃদ্ধির জন্য অনেকাংশে প্রাকৃতিক দুর্যোগই দায়ী। হাওর অঞ্চলে আগাম বন্যা, ব্লাস্ট রোগের আক্রমণ, চলন বিলে বন্যা এবং দেশের সর্বত্র অতি বৃষ্টির কারণে বোরো চালের উত্পাদন ১০/১২ লাখ টন কম হয়েছে। তাতে দেখা দিয়েছে সরবরাহ সংকট। বোরো চালের বাজারজাত উদ্বৃত্ত হ্রাস সরবরাহ সংকটের মূল কারণ। এ সংকট মোকাবিলা করার জন্য সরকারি গুদামে যে পরিমাণ চাল থাকা দরকার ছিল খাদ্য বিভাগ তা ধারণ করতে পারেনি। এক পর্যায়ে চালের সরকারি মজুদ ১.৮ লক্ষ টনে নেমে আসে। তাতে বাজারে হস্তক্ষেপ দুরূহ হয়ে পড়ে। এটি খাদ্য বিভাগের ব্যবস্থাপনা ব্যর্থতা। অনেকে বলেছেন, চালের মূল্যবৃদ্ধির পেছনে ছিল চাতালের মালিক ও মজুতদারদের কারসাজি। কিন্তু এদের কারসাজিকে বানচাল করে দিয়ে বাজারমূল্য স্থিতিশীল রাখাটা কি খাদ্য বিভাগের দায়িত্বের মধ্যে ছিল না? হাওরে আগাম বন্যা, রাষ্ট্রীয় খাদ্য ব্যবস্থাপনায় ব্যর্থতা এবং মজুতদারদের কারসাজিতে চালের দাম এবার দ্রুত বেড়ে গিয়েছে। এক সময় মোটা চালের দাম ৪৮-৫০ টাকা কেজি এবং সরু চালের দাম ৬০-৬২ টাকা কেজি করে ক্রয় করতে হয়েছে দেশের স্বল্প-আয়ের সাধারণ মানুষের। তারা আন্তর্জাতিক বাজারের চেয়ে প্রায় ৫০ শতাংশ বেশি দামে চাল কিনে খেয়েছে।

আগাম বন্যায় বোরো ফসলের ক্ষতি এবং চালের সরকারি মজুদ হ্রাসের পর পরই প্রয়োজন ছিল বাজার উদারীকরণ ও আমদানি শুল্ক হার হ্রাস করা। সরকার তা করেছে দীর্ঘ প্রায় ৩ মাস পর, যখন চালের দাম চূড়ায় গিয়ে পৌঁছেছে। ইতোমধ্যেই মুনাফাখোর ব্যবসায়ীরা তাদের পকেট ভরে নিয়েছে। বলা হয়েছে চালের দাম বৃদ্ধি পেলে কৃষক লাভবান হয়। কিন্তু এবারের মূল্যবৃদ্ধির সুফল কৃষকের কাছে পৌঁছেছে কি? উপর্যুপরি বন্যার পর তাদের ঘরে চালের বাজারজাত উদ্বৃত্ত আদৌ আছে কি?

অনেকে মনে করেন, আমাদের একটা প্রবণতা আছে খাদ্যশস্যের উত্পাদনের পরিমাণ স্ফীত করে দেখানো এবং ভোগের পরিমাণ কম করে দেখানো যাতে উদ্বৃত্ত জানান দেওয়া যায়। স্বয়ম্ভর বলে আমরা দাবি করতে পারি। স্থিতিশীল মূল্য ও আমদানি নীতির জন্য তা ক্ষতিকর। দেশের উত্পাদন পরিকল্পনা প্রণয়ন ও তা বাস্তবায়নের জন্যও এটা নেতিবাচক সংকেত দিতে পারে। অতএব, খাদ্য নিরাপত্তার স্বার্থে দেশের মোট উত্পাদন ও ভোগের পরিমাণ সঠিকভাবে নির্ণয় করা দরকার।

বাংলাদেশে চালের সরবরাহ হ্রাস পেলেও সারা বিশ্বে চালের উত্পাদন এবার ০.৬ শতাংশ বেড়েছে। তাতে চালের পর্যাপ্ত সরবরাহ রয়েছে বিশ্ব বাজারে। এশিয়ায় ধানের জমি বেশি চাষ হয়েছে, উত্পাদন বেড়েছে দক্ষিণ আমেরিকায়। তবে ভিয়েতনাম ও যুক্তরাষ্ট্রে খারাপ আবহাওয়া-জনিত কারণে উত্পাদন কিছুটা বিঘ্নিত হয়েছে। গমের উত্পাদন এবার কিছুটা কমেছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও ইউক্রেনে উত্পাদন হ্রাসের কারণে। কিন্তু ভুট্টার উত্পাদন ব্যাপক বৃদ্ধি পেয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকা ও আমেরিকায়। ফলে উল্লেখযোগ্য পরিমাণে বেড়েছে ভুট্টার মোট উত্পাদন। সার্বিকভাবে খাদ্যশস্যের উত্পাদন গত বছরের সর্বোচ্চ ২৬০৭.৯ মিলিয়ন মেট্রিক টন থেকে এবার কিছুটা হ্রাস পেয়ে দাঁড়িয়েছে ২৫৯২.৭ মিলিয়ন টনে। এটা মাত্র ০.৫৮ শতাংশ হ্রাস। বিশ্বের খাদ্যশস্যের সরবরাহে এটা কোনো গুরুত্বপূর্ণ হ্রাস ঘটাবে না। মূল্যের স্থিতিশীলতাও বিঘ্নিত হবে না। তবে চালের মূল্য কিছুটা বেড়েছে বাংলাদেশের আমদানির ফলে। এটা সাময়িক। অদূর ভবিষ্যতে তা অবশ্যই স্থিতিশীল হবে। সুতরাং আতঙ্কের কিছু নেই। ২০১৬-১৭ অর্থবছরে বাংলাদেশ প্রায় সাড়ে ৫৮ লাখ ২৩ হাজার টন খাদ্যশস্য আমদানি করেছে। ২০১৭-১৮ সালে তা প্রায় ৬০ লাখ টনে বেড়ে যেতে পারে। তবে বন্যা দীর্ঘায়িত না হলে এবং রোপা আমন ধানের উত্পাদন ভালো হলে আমদানির প্রয়োজনীয়তা হ্রাস পেতে পারে।

খাদ্যশস্যের বাজার স্থিতিশীল রাখার জন্য মোট উত্পাদনের ১০ শতাংশ অভ্যন্তরীণভাবে সংগ্রহ করা উচিত্। তাতে প্রতি বছর সংগ্রহের পরিমাণ দাঁড়াবে প্রায় ৪০ লক্ষ মেট্রিক টন। নিম্নতম মজুদ রাখতে হবে নূন্যপক্ষে ১০ লক্ষ মেট্রিক টন। তাতে সরকারি হস্তক্ষেপ বাজারে প্রভাব ফেলতে সক্ষম হবে। অতীতের অভিজ্ঞতা থেকে দেখা যায় যে, খাদ্যশস্যের সরকারি মজুদের পরিমাণ ১০ লক্ষ টন থেকে হ্রাস পেতে থাকলে বাজার দর বৃদ্ধি পেতে থাকে। মোট মজুদ ৫ লক্ষ টনের নিচে নেমে গেলে তা হয়ে পড়ে বল্গাহীন। কারণ তখন মুনাফাখোর ব্যবসায়ী ও মজুতদারগণ বেশি ক্রিয়াশীল থাকার সুযোগ পায়। উল্লিখিত মজুদ রক্ষা করা সম্ভব না হলে দ্রুত আন্তর্জাতিক বাজার থেকে তা সংগ্রহ করে পূরণ করে নিতে হবে। এক্ষেত্রে দেশের কৃষকদেরকে আমরা কি পরিমাণ সুরক্ষা দেব এবং আন্তর্জাতিক বাজার দরের চেয়ে কত শতাংশ উপরে খাদ্যশস্যের অভ্যন্তরীণ মূল্য নির্ধারণ করব, তার উপর নির্ভর করবে আমদানির ওপর অরোপযোগ্য শুল্কহার। দেশের মোট উত্পাদন কাঙ্ক্ষিত পরিমাণের চেয়ে কম বা বেশি হলে শুল্কহারে তারতম্য ঘটতে পারে। ধান-চালের ভাল দাম কৃষকদেরকে উত্পাদনে উত্সাহী করে এ কথা সত্য। তবে গ্রামীণ গরিব ভোক্তাদের কথাও এক্ষেত্রে আমাদের স্মরণ রাখতে হবে। বাংলাদেশের শতকরা প্রায় ৮০ ভাগ গ্রামীণ পরিবারই খাদ্যশস্যের ঘাটতি থাকে। আমাদের ছোট কৃষকগণ উত্পাদন মৌসুমে কিছু খাদ্যশস্য বিক্রি করে থাকলেও বছরের অধিকাংশ সময়ই তারা কিনে যায়। কাজেই উত্পাদন মৌসুমে ব্যাপক মূল্যহ্রাস ও পরে দ্রুত মূল্য বৃদ্ধি তাদেরকে ক্ষতিগ্রস্ত করে। এর জন্য বেশি করে খাদ্যশস্যের অভ্যন্তরীণ সংগ্রহ এবং পর্যাপ্ত সরকারি মজুদ গড়ে তোলা দরকার। যাতে বাজারে উপযুক্ত হস্তক্ষেপের মাধ্যমে মুনাফাখোরদের দৌরাত্ম্য হ্রাস করা যায়। এবং খাদ্যশস্যের বাজার দর স্থিতিশীল রাখা যায়।

অত্যন্ত আশার কথা এই যে, সরকারের অতি সাম্প্রতিক বাজার উদারিকরণ নীতি গ্রহণ ও চালের আমদানি শুল্ক হার হ্রাসের ফলে ইতোমধ্যেই অভ্যন্তরীণ বাজারে চালের দাম কমতে শুরু করেছে। গত কয়েক সপ্তাহের মধ্যে মোটা চালের দাম কমেছে কেজি প্রতি ৪ থেকে ৫ টাকা। সরকারি ও বেসরকারি পর্যায়ে চাল আমদানির মাধ্যমে মিটে যাচ্ছে দৃশ্যমান সরবরাহ সংকট। ধারণা করা যায়। শীঘ্রই স্বাভাবিক হয়ে আসবে চালের বাজার। বন্যা-উত্তর মৌসুমে চালের উত্পাদনও বাড়বে। বর্তমানে চাল উত্পাদনে বাংলাদেশ বিশ্বের চতুর্থ বৃহত্তম উত্পাদনশীল দেশ। গম ও ভুট্টার উত্পাদনও এদেশে নেহাতই কম হয় না। সম্প্রতি গম ও ভুট্টার উত্পাদন বৃদ্ধির লক্ষ্যে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে একটি নতুন গবেষণা প্রতিষ্ঠান। ভবিষ্যতে এ দুটো খাদ্যশস্যের উত্পাদনও বৃদ্ধি পাবে উল্লেখযোগ্য হারে। তাতে বেড় যাবে আমাদের খাদ্যে স্বয়ম্ভরতা অর্জনের হার। নিশ্চিত হবে খাদ্য নিরাপত্তা। এ লক্ষ্যে উপযুক্ত বিনিয়োগ, খাদ্যশস্যের ব্যবস্থাপনা ও মূল্য নীতি গ্রহণ করা দরকার।

লেখক : কৃষি অর্থনীতিবিদ,

গবেষক ও শিক্ষক

alamj52@gmail.com

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here