বর্ণিল আয়োজনে যশোরে নতুন বছর বরণ

0
285
নন্দন যশোরের মঙ্গল শোভাযাত্রা।

নিজস্ব প্রতিবেদক : বর্ণিল সাজে নিজেকে সাজিয়ে পুরো শহরকে নতুন রুপ দান করে বাংলা ১৪২৪ বর্ষকে বরণ করছে যশোরবাসী। উদীচীর প্রভাতী অুনষ্ঠান ঐতিহ্যবাহী মঙ্গল শোভাযাত্রা ও ডিসি বাংলোর পান্তা উৎসব আর ২৫টি সংগঠনের নানা অােয়োজনে এক বর্ণীল পহেলা বৈশাখ পেলো যশোরবাসী।

এবারের পহেলা বৈশাখের প্রথম প্রহরে অধিকাংশ মানুষের প্রথম গন্তুব্য ছিলো পৌরপার্ক, নবকিশলয় স্কুলমাঠ, মুনশি মেহেরুল্লাহ ময়দান। পৌরপার্কে উদীচী যশোর, নবকিশলয় মাঠে বিবর্তন যশোর ও সুরধুনী এবং মেহেরুল্লাহ মাঠে সুরবিতান সংগীত অ্যাকাডেমি বর্ষবরণ অনুষ্ঠান আয়োজন করে। এছাড়া সপ্তসুর সরকারি সিটি কলেজ মাঠে, তির্যক যশোর মিউনিসিপ্যাল স্কুল মাঠে, শিল্পকলা একাডেমী নিজস্ব কার্যালয়ে, শিশু একাডেমী নিজস্ব কার্যালয়ে অনুষ্ঠান করে। এসব অনুষ্ঠানগুলোতেও ছিলো বিপুল

পহেলা বৈশাখের প্রথম প্রভাতে উদীচী যশোরের অনুষ্ঠানমালার বিশেষ আকর্ষণ ছিলো প্রকৃতির বন্দনা। সংগঠনটি এবার তাদের ব্যাকস্ক্রিন করেছে সুন্দরবন ও রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্রর ওপরে। সেখানে দেখা যাচ্ছে, বিশ্বের ঐতিহ্যবাহী ম্যানগ্রোভ সুন্দরবনের ভেতর রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্রের কালো চিমনি। বিদ্যুৎকেন্দ্রের কুপ্রভাবে বনের সব গাছ-গাছালি মারা যাচ্ছে। উজাড় হয়ে যাচ্ছে এর জীববৈচিত্র্য। কাপড় শুকানোর মতো দড়িতে ঝুলছে রয়েল বেঙ্গল টাইগার আর মায়াবী হরিণের চামড়া। এভাবেই উদীচী যশোর তাদের অনুষ্ঠানের মাধ্যমে সুন্দরবনের কাছে রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণের প্রতিবাদ জানায়। এছাড়া, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে সুন্দরবন রক্ষায় মানুষকে সচেতন করার জন্য একটি বিশেষ স্লটও রাখে সংগঠনটি। অনুষ্ঠানে উপস্থিত হাজারো মানুষ সংগঠনটির এই উদ্যোগের ভূয়সী প্রশংসা করেছে এবং প্রকৃতির অপার লীলাভূমি সুন্দরবন এলাকায় রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের সিদ্ধান্ত থেকে সরকারকে সরে আসার দাবি জানিয়েছে।

নতুন বছরের সকালে প্রধান আকর্ষণ ছিলো মঙ্গল শোভাযাত্রা। সকাল সাড়ে ৮টায় জেলা প্রশাসকের কার্যালয় চত্ত্বর থেকে সম্মিলিত শোভাযাত্রাটি বের হয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। এতে অংশ নেন যশোর-৩ আসনের সংসদ সদস্য কাজী নাবিল আহমেদ, জেলা প্রশাসক ড. মো. হুমায়ুন কবীর, পুলিশ সুপার আনিসুর রহমান। জেলার সকল সাংস্কৃতিক সংগঠনের কর্মী ছাড়াও সর্বস্তরের মানুষ বর্ণিল সাজে শোভাযাত্রায় অংশ গ্রহণ করে। শোভাযাত্রার প্রধান আকর্ষণ ছিলো বৃহৎ আকৃতির ময়ূর, ফড়িং, বাঘ, ইঁদুর, পুতুল, কচ্ছপ, লোকজ নৌকা। সঙ্গে ছিলো নানা প্রাণির মুখোশ। শিশুদের হাতে হাতে শোভাযাত্রায় শহর প্রদক্ষিণ করেছে নানা রঙের ঘুড়ি, কাগজের তৈরি পাখি আর ফড়িং। শোভাযাত্রায় অংশগ্রহণকারীরা ঢাকের তালে তালে নেচে-গেয়ে মাতিয়ে রেখেছিলেন পুরো শহরকে। এবারের শোভাযাত্রার বিশেষ দিক ছিলো শহরের গুরুত্বপূর্ণ মোড়গুলোতে দাঁড়িয়ে বাদ্যের তালে তালে নৃত্য পরিবেশনা।

SHARE
Previous articleস্বাগত ১৪২৪
Next articleনড়াইলে বৃদ্ধের লাশ উদ্ধার
সম্পাদক-বীর মুক্তিযোদ্ধা ইয়াকুব কবির, প্রকাশক-ফয়সাল ফারুকী অমি, প্রধান সম্পাদক - জাহিদ হাসান টুকন, নির্বাহী সম্পাদক-সাকিরুল কবীর রিটন বার্তা সম্পাদক-ডি এইচ দিলসান। নিউজ রুম ই-মেইল-magpienews24@gmail.com

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here