বর্ষার ভরা মৌসুমে পানি উঠছে না নলকুপে

0
124

সাকিরুল কবীর রিটন : যশোরে গত ১৫ দনি ধরে চলছে অব্যাহব দাবদাহ। তামাত্রা বিরাজ করছে ৩৮ ডিগ্রি থেকে ৩৯ দশমিত ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। বাতাস না থাকার কারণে গরম বেশি অনুভূত লাগছে। বৃষ্টির দেখা মিলছেনা। তীব্র গরমে মানুষসহ প্রাণীকূল হাফিয়ে উঠেছে। আর এই গরমের সাথে দেখা দিয়েছে।
বর্ষা মৌসুমে কাঙ্খিত বৃষ্টিপাত না হওয়ায় শুষ্ক মৌসুমের শুরুতেই যশোরে ভুস্তরের পানির সংকট দেখা দিয়েছে। শুষ্ক মৌসুম বলতে সাধারণত জানুয়ারি থেকে মে মাস পর্যন্ত সময়কে গণনা করা হয়। ইতোমধ্যে অনেক টিউবওয়েলে পানি উঠা বন্ধ হয়ে গেছে। আর যেসব টিউবওয়েলে পানি উঠছে তার পরিমাণ খুবই কম।
যশোর বিএডিসির পানি পরীক্ষাগারের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ফজলে রাব্বি জানান, জানুয়ারি মাস থেকে ভূগর্ভস্থ পানির স্তর নামতে শুরু করে। এপ্রিল মাসে পানির স্তর সর্বোচ্চ নিচে নেমে যায়। মে মাসে পরিস্থিতি বেশি খারাপ থাকে। তবে এবার একটু আগেভাগেই ডিসেম্বর মাস থেকেই ভূগর্ভস্থ পানির স্তর নিচে নেমে গেছে। এবার বর্ষা মৌসুমে চাহিদার তুলনায় কাঙ্খিত বৃষ্টিপাত না হওয়ায় আগেভাগেই ভূগর্ভস্থ পানির স্তর নিচে নেমে গেছে। সাধারণত বছরে গড় বৃষ্টিপাত হয় ২০৩ সেন্টিমিটার। এবার হয়েছে তুলনামূলক কম বৃষ্টিপাত। বর্তমানে পানির স্তর ২০ থেকে ২৫ ফুটে নেমে গেছে। একারণে টিউবওয়েলে পানি ওঠা বন্ধ হয়ে গেছে। এছাড়া কৃষিকাজের সেচের কারণেও ভূগর্ভস্থ পানির স্তর নিচে নেমে যায়। এসময় ভূগর্ভ থেকে গভীর নলকূপ দিয়ে পানি উঠানো হয়। পানির স্তর স্বাভাবিক হতে প্রায় মাসখানেক সময় লাগে। তবে এখন বৃষ্টিপাত হলে পানির স্তর আবার স্বাভাবিক হতে শুরু করবে। সাধারণত পানির স্তর স্বাভাবিক থাকে ১৫ থেকে ২০ ফুটের মধ্যে।
বিএডিসি অফিস (সেচ) সূত্রে জানা যায়, জেলায় গভীর নলকুপের সংখ্যা এক হাজার ৬শ’ ২টি। এরমধ্যে বিদ্যুতচালিত এক হাজার ৪শ’ ৮৬টি এবং ডিজেলচালিত একশ’ ১৬টি। এসব নলকূপ দিয়ে ২৫ হাজার ৪শ’ ৮২ হেক্টর জমিতে পানি দেয়া হয়। অন্যদিকে স্যালো টিউবওয়েলের সংখ্যা ৬৩ হাজার ৮শ’ ৯৯টি। এর মধ্যে বিদ্যুতচালিত ৬ হাজার ৭শ’ ৮৪টি এবং ডিজেলচালিত ৫৭ হাজার একশ’ ১৫টি। এসব স্যালো টিউবওয়েল দিয়ে একলাখ ২৩ হাজার ৪শ’ ৮২ হেক্টর জমিতে পানি দেয়া হয়। কর্মকর্তারা জানান, আমাদের দেশে বোরো ধান চাষের সময় অনেক পানি অপচয় হয়। এক কেজি ধান উৎপাদন করতে আমাদের দেশে পানি লাগে ৩ থেকে সাড়ে ৩ হাজার লিটার। উন্নত ধান উৎপাদনকারী দেশ থাইল্যান্ড ও ভিয়েতনামে এর অর্ধেক পানি খরচ হয়। এসব দেশে এক কেজি ধান উৎপাদন করতে পানি খরচ হয় এক থেকে দেড় হাজার লিটার। কৃষিকাজে উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহার করে তারা পানি অপচয় রোধ করে। বারিড পাইপের মাধ্যমে মাটির নিচ থেকে থাইল্যান্ড ও ভিয়েতনামে জমিতে পানি দেয়া হয়। আমাদের দেশে জমিতে নালা কেটে পানি দেয়া হয়। ফলে অর্ধেক পানি মাটিতে চুষে নেয়। পানির অপচয় রোধ করতে ইতোমধ্যে বিএডিসির উদ্যোগে পরীক্ষামূলকভাবে যশোর জেলার বেশ কয়েকটি উপজেলায় উন্নত প্রযুক্তির বারিড পাইপের মাধ্যমে জমিতে পানি দেয়া হচ্ছে। এতে যেমন পানির অপচয় রোধ করা সম্ভব হচ্ছে, তেমনি জমিতে কম সময়ে দ্রুত পানি পৌঁছে যাচ্ছে। বোরো ধান চাষের কাজে অনেক পানি অপচয়ের ফলে প্রতিবছরে এসময় তীব্র খাবার পানির সংকট দেখা দেয়।
শুষ্ক মৌসুমে পানির সংকট রোধ করতে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতর যশোর অফিস জেলার বিভিন্ন অঞ্চলে কাজ করে যাচ্ছে। তারা শহর ও শহরতলিতে স্বল্পমূল্যে গভীর নলকূপ বসিয়ে খাবার পানি সংকট মোকাবিলার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।
জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতর যশোরের নির্বাহী প্রকৌশলী মঞ্জুর মোশারেফ জানান, যেসব এলাকায় পানির সংকট দেখা দেয়, ওইসব এলাকায় ৭ হাজার টাকার বিনিময়ে গভীর নলকূপ বসিয়ে খাবার পানিসহ গৃহস্থালির কাজে পানির ব্যবস্থা করা হয়। শুষ্ক মৌসুমে পানির সংকট মোকাবিলার জন্য গভীর নলকূপ বসিয়ে পানির সংকট মোকাবিলা করা হয়। গতবছর জেলার বিভিন্ন এলাকায় গভীর নলকূপ বসিয়ে পানির সংকট মোকাবিলা করা হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here