বাঁকড়ায় গ্রোথসেন্টার কেন্দ্রিক উন্নয়ন কাজ নির্ধারিত সময়ে শেষ না হওয়ায় জনদূর্ভোগ চরমে

0
226

নির্মাণের কয়েক মাস পরেই ধসে পড়েছে কয়েকটি রাস্তা

উত্তম চক্রবর্ত্তী,মনিরামপুর(যশোর): সিআরডিপি’র আওতায় ৩ টি প্যাকেজে ৩০ কোটি টাকার অধিক যশোর জেলার বাঁকড়ায় গ্রোথসেন্টার কেন্দ্রিক উন্নয়ন কার্যক্রম নির্ধারিত সময় শেষ হচ্ছে না। দ্বিতীয় দফা কাজের সময় চেয়েছে ঠিকাদারি সংস্থা । নির্ধারিত সময়ে কাজ সমাপ্ত না হওয়ায় বর্ষায় জনদূর্ভোগ চরম আকার ধারণ করেছে। বিশেষ করে বাজার উন্নয়ন কাজে ধীরগতি, যত্রতত্র রাস্তা খোড়াখুড়ির কারণে মারাত্মক এই দূর্ভোগ। নির্মাণাধীন অনেক সড়ক চলতি বর্ষায় ধসে পড়েছে। ঈদে ছুটিতে বন্ধ হওয়া কাজ এখনও শুরু করেনি ঠিকাদারী সংস্থা। এ দিকে তদারকি কর্মকর্তারা দাবি করেছেন, কাজ সুন্দর করে বুঝে নেওয়া হবে, সকল রাস্তা মেরামত না করে ঠিকাদারের বিল ছাড় করা হবে না।
গত বছরের ৯ জুলাই সিআরডিপির আওতায় বাঁকড়া গ্রোথসেন্টার কেন্দ্রিক ৩টি প্যাকেজে উন্নয়ন কার্যক্রমের কাজের উদ্বোধন করেন যশোর-২ আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য ও সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়র সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সদস্য অ্যাড, মনিরুল ইসলাম মনির। ২০১৬ সালের মধ্যে কাজ শেষ হওয়ার কথা ছিল। প্রকল্প ব্যয় বাঁকড়া গ্রোথসেন্টার কেন্দ্রিক সংযোগ সড়ক, বাজার রাস্তা ও ড্রেনেজ ২ ও ৩ নং প্যাকেজ বাবদ ২৬ কোটি ৯৪ লক্ষ টাকা । কাজের ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান ঢালি কনস্টেকশন লিমিটেড। স্যানিটেশন বাবদ বাজার টয়লেট, বাঁকড়া বাজার কেন্দ্রিক কয়েকটি গ্রামে পাইপ লাইনের মাধ্যমে পানি ব্যবস্থায় ৩ কোটি ৫০ লক্ষ টাকা নির্ধারন করা হয়। যার ঠিকাদার কামাল এন্টার প্রাইজ ঢাকা এবং প্রকল্প বাস্তবায়নের দায়িত্ব স্থানীয় সরকার প্রকৌশল ও জনস্বাস্ত প্রকৌশল। সে কারনে স্থানীয় ঝিকরগাছা উপজেলা কর্মকর্তারা প্রকল্প বাস্তবায়নে তদারকি করেন। প্রথম দফায় সময় বাড়িয়ে চলতি বছরের জুনে কাজ শেষ হওয়ার কথা থাকলেও কাজের ্অগ্রগতি তেমন হয়নি। রাস্তা ও ড্রেনের কাজ ২ এবং ৩ প্যাকেজে ৩ নং প্যাকেজে ৯০ ভাগ সমাপ্ত ও ২ং প্যাকেজ ৮০ ভাগ কাজ সমাপ্ত হয়েছে বলে দাবি করেছেন নির্মাণকারী ঠিকাদার সংস্থা ঢালি কনস্টেকশন লিমিটেডের প্রকৌশলী ফসিয়ার রহমান। আগামী অক্টোবরের মধ্যে কাজ সমাপ্ত হবে বলে তিনি জানিয়েছেন। কিন্তুু বাস্তবে তার চিত্র ভিন্ন। রাস্তা প্যাকেজ ৩ এর আওতায় কার্পেটিং কাজের অগ্রগতি হলেও প্যানাসাইড ও ব্লকের কাজ এখনও হ-য-ব-র-ল হয়ে আছে। রাস্তা ইনিব্লক এখনও হ-য-ব-র-ল অবস্থায় রয়েছে। অনেক স্থানে আধা নির্মান অবস্থায় বাঁকড়া ইউনিয়ন পরিষদ রোড নির্মান করা শেষ হলেও সামান্য বর্ষায় কয়েক স্থানে ধষে গেছে। দাষপাড়া, কামারপাড়ার রাস্তার দক্ষিন বাঁকড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে ধষে মরন ফাঁদে পরিনত হয়েছে। এমনি নির্মাণাধীন অনেক সড়ক ধসে পড়ে দূর্ভোগ চরম আকার ধারণ করেছে। অপরিকল্পিত খুড়াখুড়ি বাজারের মেইন সড়ক মরন ফাঁদে পরিনত হয়েছে। বাজার মধ্যে কাদা, সামান্য বৃষ্টিতে হাটু পানি, কলেজ রোড ও স্কুল রোড পিচ্ছিল কাদার সড়কে পরিণত, যত্রতত্র কাদায় গাড়ি আটকা পড়ে মেইন সড়কে যানজট লেগেই আছে। বাজার ভিতর রাস্তা বন্ধ হয়ে গেছে। সব মিলিয়ে বাজার ব্যাবসায়ী ক্রেতা পথচারি চরম দূর্ভোগে আছে। অথচ তদারকি সংস্থার কোন মাথা ব্যাথা নেই, বাজার ইজারাদারদের টোল বঞ্চিত হতে হচ্ছে। স্কুল রোড প্রায় ২ মাস আগে খুড়ে রাখা রাস্তায় মালবাহি ট্রাক ডেবে থাকতে দেখা যাচ্ছে। বিকল্প সড়ক হিসাবে মালবাহি ট্রাক প্রস্তাবিত কানাই শাহ সড়ক দিয়ে যাওয়ার কারনে সদ্য নির্মান রাস্তা ধসে কয়েকটি স্থানে খাদে পরিনত হয়েছে। এলাকাবাসি বলছে, অপরিকল্পিত খুড়াখুড়ি জনজীবনে এক চরম বিপর্যয় সৃষ্টি করেছে। উপজেলা প্রকৌশলীকে বলেও কাজ হচ্ছে না। বিষয়টি উপজেলা সহকারি প্রকৌশলী কাজের মাঠপর্যায়ে তদারকি কর্মকর্তা আব্দুস সালামের সাথে মোবাইলে কথা বললে তিনি জানান, ধসে যাওয়া রাস্তা মেরামত করা হবে। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের জনবল সংকট মারাতœক বিপর্যয় সৃষ্টি করেছে। কাজের গতি বাড়ানোর তাগিদ দেওয়া হচ্ছে। এদিকে বিজ্ঞজনেরা বলছে, প্যাকেজ ২ এর কাজ ৩০ ভাগ হয়েছে, একটি স্থানে কাজ শেষ না করে আর অন্য স্থানে খোড়ার কারনে হ-য-ব-র-ল সৃষ্টি করা হয়েছে। অচিরেই কাজের গতি বাড়ানো ও পরিকল্পনা মাফিক কাজ না করলে জনরোষ সৃষ্টির আশংকা করছে অনেকে। জনস্বাস্থ্যের অধীনে পানির কাজ অনেকটা এগিয়েছে। কামাল এন্টার প্রাইজ এর মাঠ কর্মকর্তারা জানিয়েছেন , গভীর নলকুপ স্থাপন, নির্ধারিত এলাকায় মাটির নিচে দিয়ে পাইপ লাইন স্থাপন, পানির ট্যাংকিংয়ের কাজ, আবাসিক সংযোগ বাজার সৌচাগার সব মিলিয়ে কাজ ৭০ ভাগ সমাপ্ত হয়েছে, কাজ দ্রুত হচ্ছে আমরা অচিরে সমাপ্ত করব।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here